1. admin@banglarkagoj.net : admin :

মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২০, ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীর ষাট একর পাহাড়ি বনভূমি প্রভাবশালীদের দখলে

নালিতাবাড়ীর ষাট একর পাহাড়ি বনভূমি প্রভাবশালীদের দখলে

মনিরুল ইসলাম মনির : শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে ষাট একরের অধিক পাহাড়ি সরকারী বনভূমি স্বাধীনতা পরবর্তী সময় থেকে কথিত নিলাম ক্রয়ের বয়নামা (ভূমি বিক্রির সনদ) মূলে ভোগ-দখল করে আসছে প্রভাবশালী মহল। বর্তমান বাজার মূল্যে অন্তত ৬ কোটি টাকা মূল্যের ওইসব সম্পত্তি শুধু ভোগ-দখলই নয়, পাহাড়ি বনভূমিতে থাকা লাখ লাখ টাকা মূল্যের শাল-গজারি ও সেগুনসহ নানা প্রজাতির বনজ গাছও উজার করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময়ে উপজেলার বাতকুচি মৌজায় বেশকিছু পাহাড়ি টিলাবেষ্ঠিত জমি উপজাতি ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মালিকানায় ছিল। স্বাধীনতার পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সময়ে ওইসব জমির মালিকরা তাদের জমিজমা ফেলে পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে পাড়ি জমান। এরপর থেকে পরিত্যক্ত ওইসব জমি জেলা প্রশাসকের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। কিন্তু সরকারের কোন নজরদারি না থাকায় ধীরে ধীরে জমিগুলো কথিত নিলাম ক্রয় দেখিয়ে ব্যক্তি মালিকানায় পরিণত হয়। ব্যক্তি মালিকানায় দখলে নেওয়ার পর ওইসব বনভূমিতে থাকা শাল-গজারি, সেগুন ও বহেরাসহ নানা প্রজাতির পাহাড়ি বনজ গাছ উজার হয়ে প্রাকৃতিক বন শুন্য হয়ে যায়। ওইসব স্থানে রোপন করা হয় আকাশমনিসহ পরিবেশ নষ্টকারী গাছ।
অনুসন্ধানে জানা যায়, নির্মলা নলীনি দেবী নামে এক নারীর নামে ৪৫ নং সিএস খতিয়ানে এবং হালদাগ ৫০১-এ ২২.৮৯ একর ও ১২৭-এ ২৪.৬৭ একর মিলে মোট ৪৭.৫৬ একর বনভূমি নিলামে ক্রয় দেখিয়ে পর্যায়ক্রমে মালিকানা পরিবর্তন হয়ে বর্তমানে গ্রীণ এগ্রোকম প্রাইভেট লিমিটেড এর পক্ষে আবুল কালাম আজাদের নামে দখলে রয়েছে। একইভাবে একই খতিয়ানভুক্ত ৫০১ নং দাগে ৭.৪৫ একর ও ১২৭ নং দাগে ৬.১০ একর মিলে মোট ১৩.৫৫ একর বনভূমি মোহাম্মদ হোসেন গং এর নামে দখলে রয়েছে।
ভূমি অফিস হতে প্রাপ্ত তথ্যমতে, গ্রীণ এগ্রোকম প্রাইভেট লিমিটেড এর পক্ষে আবুল কালাম আজাদের নামীয় ভূমি ২০১৬ সালে ও মোহাম্মদ হোসেন গং এর নামীয় ভূমি ২০১৪ সালে নালিতাবাড়ী উপজেলা ভূমি অফিস থেকে নামখারিজ বা মিউটেশন করা হয়। এর আগ পর্যন্ত বিআরএস (বাংলাদেশ রিভিশনাল সার্বে) রেকর্ড অনুযায়ী ওইসব ভূমি ‘খ’ তফসিলের অন্তর্ভূক্ত ছিল। কিন্তু সরকারের সঠিক নজরদারী না থাকায় মূল্যবান সম্পদ নিলামে বিক্রি দেখিয়ে ব্যক্তি মালিকানায় নেয়া হয়।

সম্প্রতি বাতকুচি পাহাড়ে মোহাম্মদ হোসেন গং এর পক্ষে মাহমুদ মোরাদ একটি পাহাড়ি টিলায় রোপিত আকাশমনি গাছ কাটতে লোকজন নিয়ে হাজির হন। এসময় চুক্তিতে রোপিত ওই বাগানের মালিকানা আবুল কালাম আজাদ দাবী করলে উভয়পক্ষে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এমতাবস্থায় স্থানীয় মধুটিলা রেঞ্জের দায়িত্বে থাকা ভারপ্রাপ্ত রেঞ্জ কর্মকর্তা আব্দুল করিম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভূমির সীমানা নির্ধারণ সংক্রান্ত জটিলতা থাকায় সরকার, বন বিভাগ ও ব্যক্তিমালিকানা ভূমির সীমানা নির্ধারণ পর্যন্ত সব কার্যক্রম বন্ধ করতে নির্দেশ দেন। ফলে ব্যক্তিমালিকানায় থাকা ভূমির মালিকপক্ষগণ সর্বমোট ৬১.১১ একর ভূমির সীমানা নির্ধারণ করতে উপজেলা ভূমি অফিসে তাদের স্বপক্ষের কাগজপত্র দাখিল করেন।
এদিকে মালিকানার বিষয়টি নিয়ে গুঞ্জন থাকায় অনুসন্ধান করতে গেলে বেড়িয়ে আসে থলের বিড়াল। অনুসন্ধানকালে দেখা যায়, ১৯৬৩ সালের বয়নামায় (ভূমি বিক্রির সনদ) আরএস (রিভিশনাল সার্ভে) খতিয়ান নম্বর উল্লেখ করা রয়েছে ৮৫। কিন্তু সীমানা নির্ধারণের জন্য জমাকৃত ফটোকপি করা কাগজপত্রে একই ভূমির খতিয়ান নং ৪৫ উল্লেখ করা। এমতাবস্থায় পক্ষসমূহের কাছে মূল কাজগপত্র তলব করে গত ২০ অক্টোবর শুনানীর জন্য আহবান করা হলে দাখিলকৃত মূল কাগজে কাটছেঁড়া নজরে আসে কর্তৃপক্ষের। এমতাবস্থায় বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়ায় কার্যক্রম স্থগিত রাখা হয়।
বাতকুচি এলাকায় ১৯৬৪ সাল থেকে বসবাসকারী প্রবীণ ব্যক্তি আব্দুল হালিম (৭২) জানান, শুরুতে বর্তমানে মালিকানায় থাকা এসব পাহাড়ি বনভূমি বন বিভাগ বা সরকারের বলেই তারা জানতেন। কিন্তু দেশ স্বাধীনের বেশকিছুদিন পর থেকে মালিক বের হতে শুরু করে।
অপর প্রবীণ আক্কাছ আলী (৭০) জানান, আগে জানতাম এইসব জমি সরকারের। কিন্তু দেশ স্বাধীনের পর থেকে শুনি এগুলো নিলামে বিক্রি হয়ে গেছে।
পাহাড়ে বসবাসকারী প্রবীণ নারী ছুরতন নেছা (৭০) জানান, আগে ওইসব জমি সরকারের ছিল। গজারি, সেগুন, শাল ও বহেরাসহ কতো জাতি গাছ ছিল। কিন্তু দেশ স্বাধীনের পর থেকে এইসব জমির মালিক বেড়িয়ে পড়ে। আর ধীরে ধীরে সব গাছ উজার হয়ে যায়।
স্থানীয় রেঞ্জ কর্মকর্তা আব্দুল করিম জানান, বাতকুচি মৌজায় অনেক জমি ব্যক্তি মালিকানায় দখলে রয়েছে। এছাড়াও জেলা প্রশাসক ও বন বিভাগের জমিও রয়েছে। কিন্তু কোন ডিমারগেশন বা সীমানা নির্ধারণ নেই। প্রকৃতপক্ষে ওইসব জমি ব্যক্তি মালিকানায় কি না তা সংশ্লিষ্টদের খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।
এ বিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, গাছ কাটা নিয়ে দু’পক্ষের সাথে বনবিভাগের সমস্যার সৃষ্টি হলে উপজেলা ভূমি অফিসে উল্লেখিত জমি সংক্রান্ত নথিপত্র তলব করা হয়। নথিপত্রে দেখা যায়, উপরোক্ত জমি ভিপি ‘খ’ তালিকাভুক্ত। কিন্তু ওই জমি ২০১৪ ও ২০১৬ সালে দু’পক্ষ তাদের নামে খারিজ করে নিয়েছে। এছাড়াও দুই পক্ষের দাখিলকৃত কাগজপত্রে উল্লেখযোগ্য অমিল পাওয়া যায়। এ বিষয়ে আমরা পর্যালোচনা করছি। যদি জালিয়াতির বিষয়ে আমরা নিশ্চিত হতে পারি, তবে খারিজ বাতিল করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে এ বিষয়ে জমির মালিক দাবীদার পক্ষের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com