1. admin@banglarkagoj.net : admin :

রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন

সাপ্তাহিক দশকাহনীয়ার ২৮ বছরে পদার্পণ উপলক্ষে কিছু কথা

সাপ্তাহিক দশকাহনীয়ার ২৮ বছরে পদার্পণ উপলক্ষে কিছু কথা

– তালাত মাহমুদ –
মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অবিচল শেরপুরের অন্যতম দীর্ঘস্থায়ী সংবাদপত্র ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ আটাশতম বর্ষে পদার্পণ করছে; এটা যেমন আনন্দের তেমনি বেদনারও বটে। যেখানে ভালো ছাপাখানা ছিলো না, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের অনুকুল পরিবেশের অভাব ছিলো, বিজ্ঞাপনের সুযোগ ছিলোনা, পৃষ্ঠপোষকের অভাব, হামলা-মামলার শিকার হওয়া এবং সাংবাদিকদের প্রতিনিয়ত হুমকী-ধমকীর মধ্যে থাকতে হয়েছে- সে রকম একটা অনাকাঙ্খিত আবহের মাঝে অবস্থান করে ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ পত্রিকাটির একটানা সাতাশ বছর অতিক্রম করা সত্যি আশ্চার্যজনক।
১৯৯১ খ্রিস্টাব্দের মাঝামাঝি সময়ে পত্রিকাটির আত্মপ্রকাশ ঘটে শেরপুরের কালীর বাজার এবি প্রেস থেকে। পত্রিকাটির সম্পাদক ও প্রকাশক মুহাম্মদ আবু বকর শত প্রতিকুলতার মাঝেও দীর্ঘদিন একটানা পত্রিকাটি বের করে আসা অবস্থায় সহসা অসুস্থ হয়ে পড়লে পত্রিকাটির হাল ধরেন ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও শেরপুর প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি এবং শ্যামলবাংলা২৪ডটকম’র সম্পাদক-প্রকাশক রফিকুল ইসলাম আধার। তাঁরই ঐকান্তিক প্রয়াসে এবং পৃষ্ঠপোষকতায় পত্রিকাটি আজও আলোর মুখ দেখছে। এ জন্য তিনি ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য। নবীন-প্রবীন কবি ও সাহিত্যিকদের লেখায় সমৃদ্ধ হয়ে আজও ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র প্রকাশনা অব্যাহত রয়েছে।
১৯৯০-এর দশকের শুরু থেকে আমি একটি বহুল প্রচারিত সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রধান সম্পাদক ছিলাম। সম্পাদক মুহাম্মদ আবু বকরের অনুরোধে শত ব্যস্ততার মাঝেও ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র প্রকাশকাল থেকেই আমি নিয়মিত উপ-সম্পাদকীয় কলাম লিখতাম। শুধু তা-ই নয়, অফসেটে মূদ্রিত ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র ৮ পাতার প্রথম সংখ্যাটি আমিই ঢাকা থেকে ছেপে এনেছিলাম। এই পত্রিকার মাধ্যমেই অনেক কবি সাহিত্যিকের সাথে আমার পরিচয় ঘটে। তন্মধ্যে বাংলাদেশ বেতারের গীতিকার ও কবি প্রয়াত মোস্তাক হাবীব, প্রয়াত কবি ও প্রাবন্ধিক মোস্তফা কামাল, লেখক ও সমাজসেবক রাজিয়া সামাদ ডালিয়া, লেখক জিয়াউল হক মুক্তা, কবি ও সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম আধার, অকাল প্রয়াত কবি ও সাংবাদিক শাহ আলম বাবুল, সাংবাদিক মেরাজউদ্দিন, সাংবাদিক মুগনিউর রহমান মনি, কবি আরিফ হাসান, কবি নূরুল ইসলাম মনি, কবি হাফিজুর রহমান লাভলু, কবি মহিউদ্দিন বিন জুবায়েদ, সাংবাদিক মুহাম্মদ হারুনুর রশিদ, সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আহমেদ হোসাইন, সাংবাদিক খোরশেদ আলম, সাংবাদিক গৌতম পাল এবং পরবর্তীতে রেজাউল করিম বকুল প্রমুখের নাম উল্লেখযোগ্য। ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ পত্রিকার সার্বক্ষণিক দায়িত্বে বর্তমানে আরও যারা কর্মরত আছেন, তাঁরা হলেন- বার্তা সম্পাদক কবি মোহাম্মদ জোবায়ের রহমান, স্টাফ রিপোর্টার জুবাইদুল ইসলাম ও মইনুল হোসেন প্লাবন।
দেশের প্রান্তিক জেলা গারোপাহাড়ের কোল ঘেষে অবস্থিত সুজলা সুফলা শস্য শ্যমলে সাজানো গোছানো এবং খাদ্যশস্যে ভরপুর বাংলাদেশের ছোট্ট সুন্দর এই শেরপুর জেলা ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন সংগ্রাম ও ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের সুবাদে দেশ বিদেশে পরিচিতি লাভ করেছে। বিনোদন ও বনভোজনের জন্য গজনী অবকাশ কেন্দ্র, মধুটিলা ইকোপার্ক, বারোমারী মিশনারী এবং ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে নালিতাবাড়ি উপজেলার নাকোগাঁও স্থলবন্দরের জন্য গোটা দেশে শেরপুর জেলার পরিচিতি সর্বজন বিদিত। শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চার ক্ষেত্রে শেরপুর জেলার খ্যাতি আবহমানকাল থেকেই বিরাজমান। শেরপুরের সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার ইতিহাসও অত্যন্ত পুরনো। ১৮৮০ খ্রিস্টাব্দে শেরপুরে চারু প্রেস স্থাপিত হয় এবং ১৮৮১ খ্রিস্টাব্দে এই প্রেস থেকেই প্রকাশিত হয় ‘সাপ্তাহিক চারুবার্তা’। শেরপুরে প্রতি বছর ‘কবি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। যা অন্য কোন জেলায় কল্পনাও করা যায়না। কবি সংঘ বাংলাদেশ’র উদ্যোগে এ পর্যন্ত ১৬টি কবি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনের পিছনেও সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া এবং সজ্জন ব্যক্তিত্ব রফিকুল ইসলাম আধারের অবদান রয়েছে। এ ছাড়াও যুব উৎসব, গণিত সম্মেলন এবং বাংলা নববর্ষ সহ জাতীয় দিবসগুলো যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালিত হয়ে থাকে। ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’য় এ সব বিষয়ের উপরও গুরুত্ব সহকারে সংবাদ পরিবেশিত হয়ে আসছে। তাছাড়া জেলার নানা সমস্যা ও সম্ভাবনার উপরও নানা প্রকারের ফিচার প্রকাশিত হয়ে থাকে।
পত্রিকাটি তার অতীতের সকল সংগ্রামী ইতিহাস ও ঐতিহ্য ধারণ করে যেভাবে তার নীতি ও আদর্শ লালন করে আসছে- দেশ ও জাতির বৃহত্তর সার্থে সেই আপোসহীনতার ধারাবাহিকতা রক্ষা করে গণ-মানুষের মূখপত্র হিসেবে ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’ সামনের দিকে এগিয়ে যাবে বলে আমরা মনে করি। আমরা ‘সাপ্তাহিক দশকাহনীয়া’র দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

লেখক: কবি সাহিত্যিক সাংবাদিক ও কলামিস্ট

শেয়ার করুন


Notice: WP_Query was called with an argument that is deprecated since version 3.1.0! caller_get_posts is deprecated. Use ignore_sticky_posts instead. in /home/banglark/public_html/wp-includes/functions.php on line 4865

Notice: WP_Query was called with an argument that is deprecated since version 3.1.0! caller_get_posts is deprecated. Use ignore_sticky_posts instead. in /home/banglark/public_html/wp-includes/functions.php on line 4865
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com