সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন

ইসলামী দৃষ্টিকোনে বাংলা নববর্ষ

ইসলামী দৃষ্টিকোনে বাংলা নববর্ষ

– মনিরুল ইসলাম মনির –
বাংলা নববর্ষ বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বাংলাদেশের প্রতিটি শহর-নগরে, গ্রাম-গঞ্জে বাংলা নববর্ষ আনন্দ-উল্লাসে উদযাপিত হয়। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, আমরা মুসলমানরা অনেকেই মনে করি, বাংলা নববর্ষ উদযাপন করা উচিত নয়। এটি বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুকরণ। এর চেয়ে অধিকতর ভ্রান্ত কোন ধারণা আর হতে পারে না। বাংলা নববর্ষ সঠিক ও সুষ্ঠুভাবে উদযাপিত হলে তার মধ্যে ইসলামবিরোধী কোন কিছু খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাছাড়া বাংলা সনের জন্ম দিয়েছে মুসলমানরাই।
মহানবি (সা.) এর মহান স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহাসিক হিজরত-ভিত্তিক হিজরি সন অবলম্বনেই এই বাংলা সন প্রণীত হয়েছে। বাংলা সনের জন্ম দিয়েছেন একজন মুসলমান বাদশা, একজন মুসলিম রাজজ্যোতিষী। সঠিক ও সুষ্ঠুভাবে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত হলে তার মধ্যে ইসলামি শরিয়তের কোনো বাধা নাই। কিন্তু যারা আবিস্কারক, যাদের হাতে তৈরি হয়েছে বাংলা সন- এতোটা রব-সব আর এতোটা আয়োজন-আনুষ্ঠানিকতায় তারা কখনো নববর্ষ পালন করেছেন বলে ইতিহাসে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না। তখনকার দিনে নববর্ষ ছিল বছরান্তে পালনকৃত নিছক একটি আনন্দ-উৎসব মাত্র। যে উৎসবের গোটা অবয়বজুড়ে পরিপূর্ণ ছিল কৃষকের হাসি ও তৃপ্তি। বছর শেষে সব হিসেবের হালখাতা হতো এবং মিষ্টি বিতরণীমূলক কিছু আনন্দ-আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হতো। তখনকার সেইসব উৎসব-আয়োজনের মাঝে ইসলামি শরিয়া লঙ্ঘনগত তেমন কোনো সমস্যা পরিলক্ষিত ছিল না। ছিল না কোনো ইসলামি বিধি-নিষেধর তীক্ষèদৃষ্টি। প্রশ্ন হলো- ১লা বৈশাখ বা নববর্ষকেন্দ্রিক বর্তমানে চলমান এই মহাউৎসব-আয়োজন। যাকে আমরা বাঙালি জাতির সংস্কৃতিগত অস্তিত্ব মনে করছি; এই উৎসব-আয়োজন এলো কোথা থেকে? এই উৎসব-আয়োজনের ইতিহাসগত যে কয়টি উল্লেখযোগ্য রেফারেন্স পাওয়া যায় তার মাঝে অন্যতম হলো ১৯১৭ সালে প্রথম মহাযুদ্ধের সময় বৃটিশদের যেন জয় হয়, সেই লক্ষ্যে এই অঞ্চলে ১লা বৈশাখের দিনে বিভিন্ন পূজা-অর্চনা এবং শোভাযাত্রার আয়োজন করানো হয়। সেই পূজা-অর্চনা এবং শোভাযাত্রার একমাত্র উদ্দেশ্য ছিল বৃটিশরা যেন যুদ্ধে জয় লাভ করে।
‘আধুনিক নববর্ষ উদযাপনের খবর প্রথম পাওয়া যায় ১৯১৭ সালে। প্রথম মহাযুদ্ধে বৃটিশদের বিজয় কামনা করে সে বছর পহেলা বৈশাখে হোম কীর্ত্তণ ও পূজার ব্যবস্থা করা হয়। এরপর ১৯৩৮ সালেও অনুরূপ কর্মকান্ডের উল্লেখ পাওয়া যায়। পরবর্তী সময়ে ১৯৬৭ সনের আগে ঘটা করে পহেলা বৈশাখ পালনের রীতি তেমন একটা জনপ্রিয় হয়নি। ‘ [সূত্র : নহ.রিশরঢ়বফরধ.ড়ৎম/রিশর/পহেলা বৈশাখ]।
এরপর ১৯৩৭-৩৮ সনের দিকে এই আয়োজন আরো কিছুটা সমৃদ্ধি লাভ করে এবং ১৯৬৩ সনে এসে ১লা বৈশাখকেন্দ্রিক আয়োজনগুলো পরিপূর্ণ একটি রূপ লাভ করে। তখনকার ইতিহাসে ১লা বৈশাখ উপলক্ষে মেলা, শোভা যাত্রাসহ আরো কিছু নতুন নতুন আয়োজন-অনুষঙ্গ পরিলক্ষিত হয়। ১লা বৈশাখে ঘিরে ঘটা করে এই যে পান্তা ইলিশের একটি প্রথা, এই প্রথাটিও তখন ছিল না বলেই দেখা যায়। এভাবে দিনে দিনে নতুন নতুন ইস্যু ও নতুন নতুন অনুষঙ্গ যুক্ত হয় ১লা বৈশাখে। জন্মরূপ হারিয়ে নতুন এক রূপ-কাঠামোতে আবিস্কৃত হয় নববর্ষকেন্দ্রিক উৎসব-আয়োজন। সবশেষ ১৯৮৯ সালের দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে মঙ্গল শোভাযাত্রা নামে একটি নতুন অনুষঙ্গ যুক্ত হয় ১লা বৈশাখের উৎসব-আয়োজনে।
মূলত, মঙ্গল শোভাযাত্রা হলো বিভিন্ন মুখোশ-প্রতীকের সম্মিলিত মিছিলের মাধ্যমে নতুন বছরকে স্বাগত জানানো। কেবল ইসলামি দৃষ্টিকোণ থেকে নয়, বাঙালী জাতিগত সংস্কৃতি এবং নববর্ষের মৌলিক সংস্কৃতির কোনোটির সাথেই নূন্যতম কোনো সম্পর্ক বা সম্পর্কগত যৌক্তিকতা নেই এই মঙ্ঘল শোভাযাত্রার। সবমিলিয়ে ১লা বৈশাখে নববর্ষ গ্রহণ করার উৎসব-অনুষ্ঠানিকতাটা বর্তমান সময়ে এমন একটা রূপ পরিগ্রহণ করেছে, যার ইসলামি শরয়ী বিশ্লেষণ ও ব্যাখার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।
অথচ এই উৎসব-আয়োজনের শুরুর ইতিহাসটা কিন্তু এমন ছিল না। সমস্যা তখন ছিল না যখন এই ১লা বৈশাখ কেবল হালখাতা গ্রহণ, নতুন বছর উপলক্ষে নতুন হিসাবের খাতা উন্মুক্তকরণ এবং মিষ্টিমুখকরণমূলক বিভিন্ন উৎসব-আয়োজনের মাঝে সীমাবদ্ধ ছিল। কিন্তু কালের ¯্রােতে বয়ে যখনি এই ১লা বৈশাখ পালনে পান্তা-ইলিশ খাওয়াকে প্রথা হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে, বিভিন্ন মুখোশ-মূর্তির সমন্নয়ে গঠিত মঙ্গল শোভাযাত্রাকে জাতীয় সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে এবং এটা ভাবা শুরু হয়েছে যে, পহলো বৈশাখ পালন না করলেই নয়; তখন এই বিষয়টিতে ইসলামি শরয়ী ব্যাখ্যার প্রয়োজনীয়তা বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। একটি কথা বলা প্রয়োজন। বাংলা সন যেহেতু মুসলিম ঐতিহ্যের হিজরি সনের উপর ভিত্তি করে উদ্ভাবিত হয়েছে, সেহেতু প্রকৃত মুসলমানদেরই দায়িত্ব নিতে হবে নিজের সংস্কৃতিকে সুস্থ ধারায় টিকিয়ে রাখার জন্য। কেননা সংস্কৃতি হলো নদীর ¯্রােতের মত। একদিকে স্থবির হয়ে গেলে কিংবা গতিপথে বাঁধ দিলে আরেক দিকে প্রবাহিত হবে। হিজরি সনের জন্য কারও মনে যদি এতটুকু অনুভূতি থাকে, বাংলা সনের জন্যও তার মনে সমান বা তার চেয়ে বেশি অনুভূতি থাকা বিশেষভাবে প্রয়োজন। আর বাংলা ভাষাভাষী মুসলমানদের জন্য বাংলা সন তো রীতিমতো গর্বের বিষয় যে, বাংলা সনের নামে তারা যে সন পেয়েছে, তা তাদের শুধু জাতীয় সনই নয়, হিজরি সনেরই নামান্তর। একদিকে বাংলা সন যেমন জাতীয় দিক থেকেও গুরুত্বপূর্ণ ঠিক ধর্মীয় দিক থেকেও তেমনই গুরুত্বপূর্ণ।
তবে নববর্ষের অনুষ্ঠান হোক কিংবা হোক অন্য যে কোনো অনুষ্ঠান তা বিজাতীয় কৃষ্টি-কালচারের অনুসরণে ইসলামি সভ্যতা-সংস্কৃতির বিসর্জন দিয়ে কোনো প্রকারের কোনো অনুষ্ঠান-আয়োজনের অনুমতিই ইসলাম প্রদান করেনি। বিভিন্ন উৎসব-আয়োজনের ক্ষেত্রে ইসলাম প্রদত্ত নিজস্ব নীতিমালা ও রূপরেখা রয়েছে। ইসলাম প্রদত্ত সেই নীতি-আইন ও রূপরেখায় সীমা অতিক্রমকারী যেকোনো প্রকারের যেকোনো আয়োজন-অনুষ্ঠানই ইসলামে নিষিদ্ধ। হোক সেটা নববর্ষের আয়োজন কিংবা সেটা হোক কোনো ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com