1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৩১ অপরাহ্ন

নায়ক হতে পারলেন না মুস্তাফিজ, মুম্বাইয়ের হারের হ্যাটট্রিক

নায়ক হতে পারলেন না মুস্তাফিজ, মুম্বাইয়ের হারের হ্যাটট্রিক

স্পোর্টস ডেস্ক : শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ১১ রান। নিজের প্রথম তিন ওভারে ১৪ রান দেওয়া মুস্তাফিজুর রহমানের হাতে বল তুলে দিলেন রোহিত শর্মা। বাঁহাতি পেসারের প্রথম দুই বলেই চার ও ছক্কা হাঁকিয়ে স্কোর লেভেল করে ফেললেন জেসন রয়। কিন্তু মুস্তাফিজের পরের তিন বল ব্যাটেই লাগাতে পারলেন না ইংলিশ ব্যাটসম্যান। ১ বলে দরকার ১।

ম্যাচে তখন নখ কামড়ানো উত্তেজনা। আরেকটি ডট বল করতে পারবেন মুস্তাফিজ? ম্যাচ কি সুপার ওভারে যাবে? শেষ বলটা মুস্তাফিজ দিলেন অফ কাটার। কাভারে বল আকাশে তুললেন রয়। মুম্বাইয়ের প্রায় সব খেলোয়াড়ই এসেছিলেন ৩০ গজ বৃত্তের ভেতরে। বল পড়ল তাই ‘নো ম্যানস ল্যান্ডে’, ১ রান। আবারো শেষ বলে হার মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের।

শেষ ওভারে নায়ক হওয়ার সুযোগ ছিল মুস্তাফিজের সামনে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পারলেন না বাংলাদেশের পেসার। আইপিএলের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স হারল নিজেদের প্রথম তিন ম্যাচেই। মানে হারের হ্যাটট্রিক! আজ দিনের প্রথম ম্যাচে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের কাছে ৭ উইকেটে হেরেছে রোহিতের দল। মুম্বাইয়ের করা ১৯৪ রান দিল্লি পেরিয়ে যায় শেষ বলে।

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে বড় লক্ষ্য তাড়ায় শুরু থেকেই তাণ্ডব চালিয়েছেন রয়। চতুর্থ ওভারে প্রথমবার বল হাতে নিয়ে মুস্তাফিজ খরচ করেন মাত্র ৪ রান। ৫ ওভারে দিল্লি তুলে ফেলেছিল বিনা উইকেটে ৫০ রান।

ষষ্ঠ ওভারের প্রথম বলেই মুম্বাইকে ব্রেক থ্রু এনে দেন মুস্তাফিজ। বাঁহাতি পেসারের বল পুল করতে গিয়ে মিড উইকেটে রোহিতকে সহজ ক্যাচ দেন গৌতম গম্ভীর (১৫)। নিজের প্রথম দুই ওভারে ৭ রান দিয়ে মুস্তাফিজের শিকার এক উইকেট।

দ্বিতীয় উইকেটে ঋষভ পন্তে সঙ্গে ৬৯ রানের বড় জুটি গড়ে ম্যাচ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেন রয়। ১৬ রানের মধ্যে পন্ত (২৫ বলে ৪৭) ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে (১৩) ফিরিয়ে দিল্লিকে টেনে ধরেন হার্দিক পান্ডিয়া।

মুস্তাফিজ যখন দ্বিতীয় স্পেলে বোলিংয়ে এলেন, দিল্লির ১৮ বলে দরকার ২৪ রান। প্রথম পাঁচ বলে ৪ রান দেওয়া মুস্তাফিজকে শেষ বলে বান্ডারি হাঁকান শ্রেয়াস আইয়ার। পরের ওভারে জাসপ্রীত বুমরাহ খরচ করেছিলেন মাত্র ৫ রান। কিন্তু শেষ ওভারে মুস্তাফিজ দলকে জেতাতে পারলেন না।

এর আগে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে তিন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তায় নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৯৪ রান করেছিল মুম্বাই। ওপেনিংয়ে নেমে সর্বোচ্চ ৫৩ রান করেন সূর্যকুমার যাদব। তার ৩২ বলের ইনিংসে ছিল ৭টি চার ও একটি ছক্কার মার। এভিন লুইসের সঙ্গে যাদবের ১০২ রানের উদ্বোধনী জুটিই মুম্বাইয়ের বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দিয়েছিল।

লুইস ২৮ বলে ৪টি করে চার ও ছক্কায় করেন ৪৮ রান। তিনে নামা ইশান কিশানের ব্যাট থেকে আসে ২৩ বলে ৪৪ রান। এ ছাড়া রোহিতের ১৮ ও পান্ডিয়ার ১১ রানে বড় পুঁজি পায় মুম্বাই। কিন্তু সেটি জয়ের জন্য যথেষ্ট হলো না।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!