বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২২ অপরাহ্ন

নালিতাবাড়ী ছাত্রলীগ সভাপতি রাজিবের বিয়ের কাবিননামা নিয়ে রহস্য!

নালিতাবাড়ী ছাত্রলীগ সভাপতি রাজিবের বিয়ের কাবিননামা নিয়ে রহস্য!

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রাজিবুল ইসলাম রাজিবের বিয়ের কাবিননামা ফাঁস হয়েছে। এ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে ছাত্রলীগ সমর্থিত নেতাকর্মীদের মাঝে। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা ও নিয়ম লঙ্ঘন করে কিভাবে বিবাহিত ছাত্রলীগে স্থান পেল এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সবার মাঝে। তবে এটি সঠিক কি না তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেছেন কেউ কেউ।
জানা গেছে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক গত ১২ জুলাই নালিতাবাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষনা করা হয়। এতে রাজিবুল ইসলাম রাজিবকে সভাপতি এবং এএসএম কিবরিয়া সাজুকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। তবে এক বছর মেয়াদী এ কমিটি এখন পর্যন্ত পূর্ণাঙ্গ করা হয়নি। গেল প্রায় দশ মাসে কোন সাংগঠনিক তৎপরতা দেখা যায়নি বহুল প্রতীক্ষিত এ কমিটির কাছে। সভাপতি রাজিবুল ইসলাম রাজিব সাংসদ ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বিরোধী শিবিরের রাজনীতিক কৃষিবিদ বদিউজ্জামান বাদশা সমর্থিত হওয়ায় এবং সাধারণ সম্পাদক এএসএম কিবরিয়া সাজু কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী সমর্থিত হওয়ার তাদের মাঝে রয়েছে সন্বয়ের অভাব। সভাপতি রাজিব পৃথকভাবে বেশকিছু রাজনৈতিক কর্মসূচী পালন করলেও সাংগঠনিক কর্মসূচী পালন করেনি। একই অবস্থা সাধারণ সম্পাদককে ঘিরেও। তিনি ঢাকায় পড়াশোনার সুবাধে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কর্মসূচীতে অংশ নেন। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দুই মেরুর বাসিন্দা বলে স্থানীয় ছাত্রলীগে কার্যত অচলাবস্থা বিরাজ করছে।

এদিকে গত দুইদিন যাবত বর্তমান সভাপতি রাজিবুল ইসলাম রাজিবের বিয়ের কাবিননামা ফাঁস হয়ে যায়। কাবিননামা অনুযায়ী রাজিব কালিয়াকৈরের সামিহা সরকার সুইটি নামে এক তরুণীকে দশ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করেছেন মর্মে উল্লেখ রয়েছে। গেল ২০১২ সালের ১২ জুলাই রাজধানীর মধ্য বাড্ডা এলাকায় কাজী মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিনের কার্যালয়ে এ বিয়ে সম্পন্ন হয় বলে কাবিননামায় উল্লেখ করা হয়। বর্তমানে ওই কাবিননামা ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে। তবে রাজিব সমর্থিত অনেকেই বলছেন, এটি প্রকৃত কাবিননামা নয় এবং রাজিব আদৌ বিয়ে করেনি। অবশ্য একাধিক ঘনিষ্ট সূত্র রাজিবের বিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
ছাত্রলীগ সমর্থিত কর্মী হারুণ-অর-রশিদ জানান, রাজিব ২০১২ সালে বিয়ে করেছে, আমাদের কাছে প্রমাণ আছে। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিবাহিত কোন ব্যক্তি ছাত্রলীগে থাকতে পারেন না। এসময় তিনি বর্তমান কমিটি অবৈধ উপায়ে আনা হয়েছে বলে অভিযোগ করে বলেন, আমরা চাই প্রকৃত আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান ও প্রকৃত ছাত্ররা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসুক।
ছাত্রলীগ সমর্থিত অপর কর্মী ইয়াসিন আরাফাত প্রান্তিক জানান, আমরা চাই প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী প্রকৃত এবং মতিয়া চৌধুরী সমর্থিতরা ছাত্রলীগে আসুক। বিরোধী মতাদর্শী ও কোন বিবাহিত যেন ছাত্রলীগে না আসে।
বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক এএসএম কিবরিয়া সাজু বলেন, সভাপতি রাজিবের বিয়ের বিষয়ে অভিযোগ বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আমাদের কাছে এসেছে। বিষয়টি সঠিক হলে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ তদন্ত করে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিবেন। আর যদি সঠিক না হয় তবে এ বিষয়েও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সিদ্ধান্ত নিবে।
এদিকে বিয়ের বিষয়টি সঠিক কি না তা জানতে সভাপতি রাজিবুল ইসলাম রাজিবের ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরে তিনবার যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com