শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন

শৈশবের স্মৃতি আমার চন্দ্রকোণা

শৈশবের স্মৃতি আমার চন্দ্রকোণা

– তালাত মাহমুদ –
ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন-সংগ্রাম আর শিক্ষা-সংস্কৃতি ও ক্রীড়াচর্চা এবং ব্যবসায়-বাণিজ্যের জন্য তৎকালীন অবিভক্ত ময়মনসিংহ জেলার অন্তর্গত নকলা থানার ঐতিহ্যবাহী চন্দ্রকোণার সুনাম ঐতিহাসিকভাবে স্বীকৃত। সেকালের অপ্রতিরোধ্য ব্রহ্মপুত্র নদ হয়ে নৌ-পথে দেশের বিভিন্ন বাণিজ্য নগরী ছাড়াও কোলকাতা এবং ইংল্যান্ডের ডান্ডির সাথে চন্দ্রকোণার সরাসরি বাণিজ্যিক যোগাযোগ ছিল। ময়মনসিংহ- ঢাকা-নারায়নগঞ্জের সাথেও চন্দ্রকোণার নিত্যদিনের নৌ-যোগাযোগ ছিল। ময়মনসিংহের সাথে চন্দ্রকোণার মানুষের যাতায়াতের সুবিধা থাকায় এ অঞ্চলের মানুষ ব্রিটিশ আমল থেকেই উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ ও গুরুত্বপূর্ণ পদে সরকারি চাকুরি লাভের সুযোগ পেয়ে আসছিলেন। তাই আজও এ অঞ্চলে উচ্চ পদস্থ অনেক সরকারি কর্মকর্তা, শিক্ষাবিদ ও কৃতি সন্তান দেশ-বিদেশে কর্মরত আছেন। চন্দ্রকোণায় অনেক বড় বড় হিন্দু মারোওয়ারী ও মুসলমান ব্যবসায়ী ছিলেন।
‘চন্দ্রকোণা’র পূবর্ নাম ছিল ‘রাণীগঞ্জ’। পরবর্তীতে চন্দ্রকোণী মসলিন শাড়ী থেকে ‘চন্দ্রকোণা’ নামের উৎপত্তি। জনশ্রুতিআছে যে, একবার ময়মনসিংহের মহারাজা শশীকান্ত চৌধুরী চন্দ্রকোণায় বেড়াতে এলে তাঁর সম্মানার্থে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এক সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন। সে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে চন্দ্রবালা নাম্মী এক বাঈজী নাচ ও গান পরিবেশন করেছিলেন। মহারাজা শশীকান্ত চৌধুরী তার নাচে-গানে মুগ্ধ হয়ে চন্দ্রবালা বাঈজীকে একটি চন্দ্রকোণী মসলিন শাড়ী উপহার দেন। ধারণা করা হয়, চন্দ্রকোণী মসলিন শাড়ী থেকেই কালক্রমে ‘চন্দ্রকোণা’ নামের উৎপত্তি হয়েছে। তবে কারও কারও মতে, ‘চন্দ্রবালা বাঈজী’র নাম থেকে ‘চন্দ্রকোণা’ নামকরণ হয়েছে। যেহেতু নালিতাবাড়ি ও শ্রীবরদীর নামকরণ হয়েছে এই শ্রেণির নারীর নাম থেকে। উল্লেখ্য যে, চন্দ্রকোণা বাজারের পূর্ব পার্শ্বে ‘রাণীগঞ্জ’এলাকাটি আজও দৃশ্যমান রয়েছে। তবে সেখানে কোন হাট-বাজার বসেনা। আগের সেই বড় বড় গুদামও এখন আর নেই। মুঘল শাসনামল থেকেই চন্দ্রকোণায় সম্ভান্ত্র মুসলমান ও বনেদী হিন্দু লোকের বসবাস ছিল। সম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিরাজমান থাকায় শিক্ষা-সংস্কৃতি আর খেলাধুলায় চন্দ্রকোণার হিন্দু ও মুসলমানরা সুদূর অতীতকাল থেকেই সুনাম অর্জন করে এসেছেন। ফুটবল, ভলিবল, দাড়িয়াবান্ধা ,হা-ডু-ডু, নৌকাবাইচ, ঘোড়দৌড়, লাঠিখেলা, আর জারি-সারি, ভাওয়াইয়া- পল্লীগীতি, পালাগান এবং দলীয় গানের জন্য চন্দ্রকোণার খ্যাতি ছিল দিগন্তজোড়া। বীর মুক্তিযোদ্ধা জমশেদ আলী জঙ্গু বয়াতির পালাগান এক সময় এ অঞ্চলে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিল। নাটক, যাত্রা,সার্কাস, মেলা-এসব তো ছিলোই।
চন্দ্রকোণার স্থানীয় ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি মারোওয়ারীদেরও বড় বড় ব্যবসা-বাণিজ্য ও গুদাম ছিল। ধান, পাট, কলাই, সরিষা, ফলমূল-তরিতরকারির জন্য চন্দ্রকোণার অনেক সুনাম রয়েছে। ভারত-পাকিস্তান বিভক্তি এবং ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দে সংঘটিত মুক্তিযুদ্ধের সময় হানাদার পাকবাহিনী চন্দ্রকোণা বাজারের বড় বড় পাটের গুদাম পুড়িয়ে দিলে চন্দ্রকোণার সেই আগের জৌলুস আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়নি।
চন্দ্রকোণা ও তার আশপাশের এলাকায় বসবাসরত মানুষের মাঝে শিক্ষার প্রসার ঘটাতে শেরপুরের জমিদার গোপাল দাস চৌধুরী তাঁর মা রাজলক্ষ্মী চৌধুরাণীর নামানুসারে ১৯১৩ সালে চন্দ্রকোণা রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। কলিকাতা শিক্ষা বোর্ড ১৯১৯ সালে বিদ্যালয়টিকে পূর্ণাঙ্গ স্বীকৃতি দেয়। তৎকালীন জামালপুর মহকুমার পূর্বাঞ্চলে এটিই একমাত্র বিদ্যাপিঠ ছিল। দূর দূরান্তের শিক্ষার্থীরা আশপাশের গ্রামগুলোতে জায়গীর থেকে অথবা বাড়ি থেকে পায়ে হেঁটে এসে চন্দ্রকোণা রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করতো।
আমার জানামতে, এই বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন জামানার মুজাদ্দেদ হযরত খাজা বাবা ফরিদপুরী (মু:আ:), ১৯৭০এর নির্বাচনে ময়মনসিংহ সদর আসন থেকে নির্বাচিত এমএনএ ও সাবেক রাষ্ট্রদূত, কথা-সাহিত্যিক এডভোকেট সৈয়দ আব্দুস সুলতান, ময়মনসিংহের ডিস্ট্রিক্ট নাজির এবং ১৯৭০ এর প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র এমপিএ প্রার্থী মোজাফফর আলী, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের এডভোকেট, খোদা-ই-খিদমতগার-এর আহ্বায়ক ও সাপ্তাহিক নবজাগরণ-এর সম্পাদক মোঃ আবুল কাশেম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যলয়ের সাবেক উপচার্য ড. মুুফাখখারুল ইসলাম, জাতিসংঘের সাবেক ইকোনোমিক মিনিস্টার ও বাংলাদেশ ভূমি সংস্কার বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান এএইচএম সাদিকুল হক (ইপিসিএস), সাবেক সচিব ব্যারিস্টার হায়দার আলী, মাজাহারুল হক (কালু মিয়া), সাবেক এসপি ওয়াসেরুল হক (হেজ মিয়া), বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোঃ আসাদুজ্জামান, সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ডাঃ একেএম সাইদুর রহমান, সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ নজরুল ইসলাম, ভারতের তথ্য ও প্রযুক্তি বিজ্ঞানী ড. বিমল কান্তি, ড. বেলায়েত বেলায়েত হোসেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. গৌতম চন্দ্র দে, এডভোকেট বিজ্ঞান আলী, আলহাজ মাওলানা সিরাজুল হক, জনতা ব্যাংকের সাবেক জিএম বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আকরাম হোসেন, চন্দ্রকোণা ডিগ্রী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ এনামুল হক, বর্তমান অধ্যক্ষ ড.মোঃ রফিকুল ইসলাম, বিআরডিবি’র সাবেক উপ-পরিচালক মোঃ সালাহ উদ্দিন, ঢাকা সায়েন্স ল্যাবরেটরীর অবসরপ্রাপ্ত চিফ টেকনিকেল অফিসার মেহেরুন নাহার, ঢাকা হাইকোর্টের এ্যাডভোকেট সুলতানা ফাওজিয়া ইয়াসমিন, সিনিয়র পুলিশ অফিসার শাহ মোঃ মঞ্জুর কাদের, ইউকে’র রেজিস্টার্ড ফরেন ল’ইয়ার ব্যারিস্টার ড. শাহ মোঃ মনিরুল ইসলাম (নাহিদ), এডিশনাল পুলিশ সুপার মোঃ জাহিদুল ইসলাম টুটুল, সাবেক কৃষি কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম, চরমধুয়া আদর্শ বিদ্যা নিকেতনের প্রধান শিক্ষক হাফিজুর রহমান (বাদল), এটিআই শেরপুরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ শামসুর রহমান প্রমূখ।
চন্দ্রকোণা রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয় বলা হলেও দলিলপত্রে প্রকৃত নাম চন্দ্রকোণা আরএল ইন্সটিটিউট। এই ইন্সটিটিউটের ছাত্র হয়েও অনেকে এই বিদ্যালযে সুনামের সাথে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তম্মধ্যে জহরউদ্দিন আহমদ, মাহবুবুর রহমান বিএসসি, নূর ইসলাম বিএসসি, সিরাজুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম বিএসসি এবং বর্তমান প্রধান শিক্ষক মোঃ রফিকুল ইসলাম। এই বিদ্যালয়ের স্মরণীয় প্রধান শিক্ষক ছিলেন কুলরঞ্জন গোস্বামী। আজও তাঁর নাম অনেকের মুখে শোনা যায়। আলহাজ নাজিম উদ্দিন আহমদ চন্দ্রকোণা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দীর্ঘদিন প্রধান শিক্ষক ছিলেন। দৈনিক সংবাদের প্রয়াত সম্পাদক ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর স্বামী বজলুর রহমান চন্দ্রকোণা রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ও শিক্ষক ছিলেন এবং জাতিসংঘের সাবেক ইকোনোমিক মিনিস্টার এবং বাংলাদেশ ভূমি সংস্কার বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান এইচএম সাদিকুল হক (ইপিসিএস) এই বিদ্যালয়ের ছাত্র ও শিক্ষক ছিলেন। ্এছাড়া অসিত কুমার দেব, নীহার রঞ্জন দেব, কামিনী মোহন সাহা, খুশী চন্দ্র সাহা, সুনীল চন্দ্র সাহা, আব্দুস সাত্তার বাদশা ও শাহ মোঃ আব্দুল হালিম এই বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। নান্দিনা হাইস্কুল ও নরুন্দি হাইস্কুলের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক নলিনী মোহন দাস চন্দ্রকোণা হাইস্কুলের ছাত্র ছিলেন। উল্লেখ্য, জামালপুর-৫ আসন থেকে ৪বারের নির্বাচিত এমপি ও সাবেক ভূমিমন্ত্রী বর্ষীয়ান জননেতা
রেজাউল করিম হীরা চন্দ্রকোণা ইউনিয়নের চরমধুয়া চৌধুরীবাড়ির সন্তান।
এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে আন্দামানে নির্বাসিত হয়েছিলেন বিপ্লবী নগেন্দ্র চন্দ্র মোদক । কমিউনিটি নেতা বিপ্লবী মন্মথ চন্দ্র দে যিনি জীবনেরঅধিকাংশ সময় জেল খেটেছেন। বিট্রিশ বিরোধী আন্দোলনের আরেক বিপ্লবী নেতা যোগেশ দাম ভারত সরকারের বৃত্তি পেতেন। প্রগতিশীল রাজনীতির প্রবক্তা বিপ্লবী মুখলেছুর রহমান মুকুল মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন। কফিল উদ্দিন, আব্দুল হাকিম কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য ছিলেন। মেবার হোসেন, মুখলেছুর রহমান তালেক, বদিয়র রহমান বদু ও আনিসুর রহমান (বাচ্চু) প্রগতিশীল রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন।
স্বাধীনতার আগে চন্দ্রকোণায় ‘উল্কা ক্রীড়া চক্র’ যথেষ্ঠ সুনাম অর্জন করেছিল এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে খেলতে গিয়ে যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছে। শুধু তা-ই নয়, ‘উল্কা ক্রীড়া চক্র’এর খেলোয়াড়রা কোরকাতায় গিয়ে খেলে সুনাম অর্জন করে এসেছেন বলে জানা যায়। স্বাধীনতার পূর্বাপর চন্দ্রকোণার খেলাধূলায় আব্দুল জলিল, আব্দুল ওয়ালেক পাগু, আব্দুর রশিদ (খোকা), মোঃ শুকুর আলী, আব্দুস সুলতান, রেজাউল করিম খুররম, পঙ্কজ চন্দ্র সাহা’র নাম পাওয়া জানা যায়।
চন্দ্রকোণার সাংস্কৃতিক অঙ্গনও ব্রিটিশ আমল থেকেই সমৃদ্ধ হয়ে আসছে। তদানীন্তন পাকিস্তান আমলে নবাব সিরাজউদ্দৌলাহ চরিত্রে অভিনয় করে একেএম ফয়েজুর রহমান আজও স্মরণীয় হয়ে আছেন। স্বাধীনতা পরবর্তী কালে ‘কামিনী নাট্য গোষ্ঠী’ নাটক ও যাত্রাপালা করে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। মুখলেছুর রহমান মুকুল, খাজা মাইনউদ্দিন, মোয়াজ্জেম হোসেন, মুখলেছুর রহমান, শহীদুর হক হীরা, এমদাদুল হক রিপন, হাবিবুর রহমান বাদল, মুকসেদুর রহমান মুকসেদ প্রমুখ ব্যক্তি অভিনয়ের ক্সেত্রে দক্ষতার ছাপ রেখেছেন। ১৯৭৯ খ্রিস্টাব্দে ‘ঝংকার পর্ষদ’ নামে একটি সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটে। ‘ঝংকার পর্ষদ’এর সভাপতি ছিলেন (এই নিবন্ধ্রে লেখক) তালাত মাহমুদ এবং সাধারণ সম্পাদক ছিলেন বর্তমানে সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ নজরুল ইসলাম। চন্দ্রকোণার সর্বস্তরের সুধিজন ‘ঝংকার পর্ষদ’এর সদস্য ছিলেন। ১৯৯০ খ্রিস্টাব্দে গঠিত হয় ‘চন্দ্রকোণা যুব নাট্য গোষ্ঠী’ চন্দ্রকোণা ডিগ্রী কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষ ড. মোঃ রফিকুল ইসলাম সভাপতি এবং কবি ও গীতিকার এমদাদুল হক রিপন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এ সময় ‘সিরাজুল হক ক্রীড়া চক্র’এরও আবির্ভাব ঘটে। সাম্প্রতিককালে ‘চন্দ্রকোণা সংগীত ও চারুকলা একাডেমী’ স্থাপিত হয়। চন্দ্রকোণা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাজু সাঈদ সিদ্দিকী সভাপতি ও চন্দ্রখোণা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জয়ন্ত কুমার দেব এপল সাদারণ সম্পাদক এবং কবি ও গীতিকার এমদাদুল হক রিপন সহ-সভাপতি নির্বচিত হন।
রাজনীতির পাশাপাশি জন প্রতিনিধিত্ব করেছেন চন্দ্রকোণা ইউনিয়ন পরিষদের প্রেসিডেন্ট ছিলেন নরীব উদ্দিন সরকার, মমতাজ উদ্দিন আহমেদ (প্রেসিডেন্ট ও চেয়ারম্যান), মোবারক আলী, বদিয়ার রহমান (বদু), সিরাজুল হক (বাজু মিয়া), মকবুল হোসেন, মোঃ মাহমুদুলহক (দুলাল), সাজু সাঈদ সিদ্দিকী এবং গোলাম রব্বানী (চর অষ্টধর), উমর আলী মোল্লা (রৌহা, শেরপুর), মমিনুল হক মমিন (তুলশীরচর,জামালপুর) চেয়ারম্যান হিসাবে সুনাম অর্জন করেন। এছাড়াও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়ে স্মরণীয় হয়ে আছেন- একেএম ফয়েজুর রহমান, জরিপউদ্দিন, চানু চৌধুরী, রসুল উদ্দিন মেম্বার প্রমুখ। রাজনীতিতে যাদের নাম পাওয়া যায়, তাদের মাঝে আনছার আলী (ছনেমিয়া), জামালউদ্দিন, সাঙ্কু চৌধুরী, আতিয়ার রহমান মাষ্টার, মাহমুদুল হক (দুলাল), মুখলেছুর রহমান, কামরুজ্জামান গেন্দু, হামিদুল হক মিন্টু, মুকশেদুল হক (শিবলু) প্রমুখ।
চন্দ্রকোণায় বেশ ক’জন সাংবাদিকের জন্ম হয়েছে। তন্মধ্যে বিগত শতাব্দির ষাটের দশকে অসিত কুমার দেব দৈনিক সংবাদ পত্রিকার বার্তা বিভাগে কর্মরত ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। এই নিবন্ধের লেখক (তালাত মাহমুদ) স্বাধীনতা পরবর্তীকাল থেকে অদ্যাবধি পর্যায়ক্রমে দৈনিক দেশবাংলা’র সাব-এডিটর,সাপ্তাহিক জনকন্ঠ’র প্রধান সহকারি সম্পাদক এবং সাপ্তাহিক পূর্বকথা’র প্রধান সম্পাদক ও সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি ছিলেন। বর্তমানে তিনি দৈনিক ঢাকা রিপোর্ট পত্রিকার প্রধান সহকারি সম্পাদক হিসেবে কর্মরত। বিভিন্ন প্রিন্ট মিডিয়া ও নিউজ পোর্টালে নিয়মিত কলাম লিখছেন। তিনি ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে সাহিত্য ও সাংবাদিকতায় সাড়া জাগানো ‘জিলবাংলা সাহিত্য পুরস্কার’ লাভ করেন এবং জাতীয় লেখক, কবি ও শিল্পী সংগঠন ‘লেকশি’ এবং ‘কবি সংঘ বাংলাদেশ’এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।
নকলা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মরহুম আনিছুর রহমান বাচ্চু সাপ্তাহিক জনকন্ঠ ও সাপ্তাহিক পূর্বকথা’র আশির দশক থেকে শূন্য দশক পর্যন্ত প্রায় ৩০ বছর শেরপুর জেরার সাংবাদিক ছিলেন।এছাড়া সাপ্তাহিক পাঞ্জেরী ও অপরাধ তথ্যচিত্রে সাংবাদিক হিসেবে কর্মরত আছেন আলহাজ্ব মাহবুবর রহমান। পেশাজীবী সংগঠনের মধ্যে ঢাকা মহানগর ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব ছিলেন একেএম মঞ্জুর কাদির,নকলা উপজেলা প্রথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ছিলেন আব্দুর রহমান (বড় খোকা) ও আমজাদ হোসেন।
স্বাধীনতা সংগ্রামে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ও সর্বশান্ত ব্যক্তিদের মাঝে সিরাজুল হক বাজুমিয়া (আওয়ামীলীগ নেতা), বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মনিরুজ্জামান, মকবুল হোসেন, সাদেক আলী মেম্বার ও গোলাম মাওলা। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ নেওয়ায় হানাদার পাকবাহিনী চন্দ্রকোণা বাজারে আক্রমণ চালায় এবং অগ্নিসংযোগ করে তাদের গুদাম, বসতবাড়ি ও মালামাল সম্পূর্ণ ভস্মিভূত করে দেয়। তারা অনেকেই চন্দ্রকোণা রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেনএবং এলাকার সম্মানিত ব্যক্তি ছিলেন।
এছাড়াও সিনিয়র শিক্ষক মোতাহার হোসেন, মাজিদুল হক বকুল, আসাদুজ্জামান বাদশা, কৃষিব্যংকের এজিএম মোঃ হামিদুল হক মিন্টু, শেরপুর মডেল গার্লস কলেজের ইংরেজির সাবেক প্রভাষক রাশেদুল হাসান শ্যামল, উপাধ্যক্ষ আলতাব আলী, সিনিয়র সহকারী সচিব বাবুলাল রবিদাস, কবি ও গীতিকার এমদাদুল হক রিপন, ব্যবসায়ী মোঃ শফিকুল ইসলাম সুখন, কবি ও প্রভাষক এটিএম জাফরুল্লাহ শ্যামল, প্রভাষক জয়ন্ত কুমার দেব, প্রভাষক আলহাজ্ব রহুল আমিন, স্কুল জীবনে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তিপ্রাপ্ত এবং ড্যাফোডিল ইন্টারনেশনাল ইউনিভার্সিটিতে কম্পিউটার সায়েন্স এ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এর শিক্ষার্থী তামান্না মাহমুদ মনীষা সহ আরও অনেকে চন্দ্রকোণা রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন।
স্বনামে খ্যাত ছিলেন ডাঃ আলফাজউদ্দিন, ডাঃ ইন্তাজউদ্দিন, ডাঃ সোহরাব আলী, আব্দুস সালাম সরকার, আব্দুল কুদ্দুস সরকার, ইউনুছ আলী সরকার. আম্বাজ মিয়া, জামেদ আলী মেম্বার, মিসির আলী মেম্বার প্রমূখ। ঐতিহ্যবাহী চন্দ্রকোণা বাজারের বর্তমান ব্যবসায়ীদের মধ্যে আলহাজ্ব ওয়াহিদ মুরাদ, আলহাজ্ব মজিবুর রহমান, শামীম মিয়া, মুনিলাল চৌহান, শওকত হোসেন, বাচ্চু মিয়া, নুরুল ইসলাম সহ অনেক ব্যবসায়ী চন্দ্রকোণা রাজলক্ষ্মী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন।
চন্দ্রকোণার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করতে চাই। তাঁরা হলেন- মোঃ আকরাম হোসাইন, মোঃ মাহমুদুল হক দুলাল, মোঃ এনামুল হক, মোঃ আমিনুল হক, মুকুল চৌধুরী, মোঃ বেলায়েত হোসেন, লিয়াকাত আলী, আজাদ্জ্জুামান লেবু, মোঃ তোফাজ্জল হোসেন, মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, মোঃ আব্দুল মালেক, মোঃ জমশেদ আলী (জঙ্গু পাগলা) প্রমুখ। (অসমাপ্ত)।
লেখক চন্দ্রকোণা হাইস্কুলের শিক্ষার্থী ছিলেন। মোবাইল : ০১৭১৫৯৬০৩৮২।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!