শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:০৬ পূর্বাহ্ন

বৈধতার প্রশ্নে শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত

বৈধতার প্রশ্নে শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত

– মনিরুল ইসলাম মনির –
অনেক আগেই পাঠকদের বলে রেখেছি, মাঝেমধ্যে কলমটা না চালালে হাত চুলকায়। ১৯ মে সন্ধ্যা থেকে ফেসবুকজুড়ে শুধু প্রত্যাহার-বিলুপ্ত-বহিস্কার ইত্যাদির রাজনীতি। যেন চোখে আর কিছু পড়ার সুযোগ নেই। কেউ কেউ আবার ‘বাঁশের চেয়ে কইঞ্চা বড়’ ‘বার হাত বাঙ্গির তের হাত বিচি’ ইত্যাদি নানা শ্লোগানে ফেসবুক মাতিয়ে রেখেছে। রাজনীতির চর্চা যেন এখন ফেসবুক কেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছে। পাল্টাপাল্টি মন্তব্য, বক্তব্য ইত্যাদি নিয়ে ফেসবুক রীতিমত গরম। অবশ্য ফোনেও কম আসছে না। কিন্তু যাই হোক এর শেষ কোথায়? এসবের বৈধতাই বা কতটুকু? শেষ পর্যন্ত কার তরি ডুবছে? কে টিকে থাকবে? ইত্যাদি প্রশ্ন সাধারণ মানুষের মাঝে। আওয়ামী লীগারদের মনে তো আছেই।
একদিকে কারণ দর্শানোর জবাব না দেওয়ায় জেলা কমিটি দুই উপজেলার তিন নেতাকে দল থেকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নিলেন। জেলা কমিটি থেকে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিলেন কৃষিমন্ত্রী ও বর্তমান সাংসদ মতিয়া চৌধুরীকে। বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নিলেন অপর সাংসদ প্রকৌশলী আলহাজ্ব ফজলুল হককে। আবার নালিতাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি বিলুপ্তির সিদ্ধান্তও নেওয়া হলো জেলা কমিটির সভায়।
পক্ষান্তরে, পরদিন ২০ মে রোববার হুমায়ন কবীর রুমানের নেতৃত্বাধীন জেলা আওয়ামী লীগের অপর একটি অংশ হুইপ আতিক সমর্থিতদের সিদ্ধান্তে প্রতিবাদে কর্মসূচী দিয়েছে। শহরে অনুষ্ঠিত হয়েছে ঝাড়– মিছিল। নকলা ও নালিতাবাড়ী উপজেলা থেকেও ওই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ হয়েছে। এদিকে জেলা কমিটি রিভিউ করতে কেন্দ্রে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে অনেক আগেই। সবমিলে এসবের শেষ কোথায়?
প্রথমত, জেলা আওয়ামী লীগ হয়ত সঙ্গত কারণ দেখিয়েই সিদ্ধান্তগুলো নিয়েছেন। কিন্তু তা কতটুকু যুক্তিসঙ্গত? কতটুকু কারণ ঘটলে এমন সিদ্ধান্তে পৌছা যায়? আদৌ এসব সিদ্ধান্ত বিধিসম্মত হলো কি না? জেলা কমিটির এসব সিদ্ধান্তে পৌছার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। কিন্তু তাই বলে এ সিদ্ধান্তই যে চূড়ান্ত- তা ভাবার বিন্দুমাত্র সুযোগ আছে বলে মনে করি না। জেলা কমিটির তাদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন কেন্দ্র জেলা কমিটির ওই সিদ্ধান্তকে বিবেচনা করবে। বিবেচনায় সঠিক মনে হলে যদি কেন্দ্র তাতে অনুমোদন দেয় তবেই না জেলা কমিটির সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গৃহীত হবে। তা না হলে নয়। কাজেই শুধুমাত্র জেলা কমিটি প্রতিহিংসা মূলক সিদ্ধান্ত নিলেই যে তা চূড়ান্ত হয়ে গেল তা ভাবার কোন অবকাশ নেই।
দ্বিতীয়ত, গত ২০১৭ সালের ১ মার্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক জনাব ওবায়দুল কাদের সাহেব পরিস্কারভাবে তাঁর স্বাক্ষরিত পত্রে জানিয়ে দিয়েছেন যে, “বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের অনুমতি ব্যতীত কোন ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌর, থানা, উপজেলা ও জেলা কমিটি ভাঙা বা বিলুপ্ত করা যাবে না।” আরও বলা হয়েছে, “কাউকে বহিস্কার করার এখতিয়ার একমাত্র কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের।” একইসঙ্গে এসব সিদ্ধান্তকে “দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্তের সম্পূর্ণ পরিপন্থি বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।
উপরোক্ত সিদ্ধান্তের আলোকে পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, জেলা কমিটি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা সম্পূর্ণ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্তের পরিপন্থি। বলে রাখা ভালো, কৃষিমন্ত্রীর মতো প্রেসিডিয়াম সদস্য যেখানে রয়েছেন সেখানে জেলা কমিটির এ সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র কিভাবে নিতে পারে তা সহজেই অনুমেয়। আমার তো মনে হয়, পেছনে অন্য কোন খেলাও থাকতে পারে। রাজনীতির ঘোড়া কখন কোনদিকে চলে তা বলা মুশকিল হলেও আপাতত ধরেই নেয়া যায় জেলা কমিটির এ সিদ্ধান্তের ফলে সাময়িক বিশৃংখলা ও ভুল বুঝাবুঝি ছাড়া কিছুই উপহার দিবে না। কৃষিমন্ত্রী যতোদিন আছেন ততোদিন তার মতো করেই সব চলবে- এটা নির্ধিদ্বায় বলা যায়। কাজেই এসব প্রচার-প্রপাগান্ডায় গড্ডালিকা প্রবাহে গা ভাসানো যুক্তিসঙ্গত বলে আপাতত মনে হচ্ছে না। আমার মতে, এমতাবস্থায় সকলের অপেক্ষা ও পর্যবেক্ষণ করা উচিত। যে ঢেউ রাজনীতির জলে উঠতে শুরু করেছে, হতে পারে তা বেশিদিন টিকবে না।
কথাগুলো কেউ কেউ কারও পক্ষপাতিত্ব মনে করতে পারেন। তবে আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র সঠিকভাবে ঘাটাঘাটি করলে আশা করি এমনটাই ব্যাখ্যা পাওয়া যাবে।

লেখক : প্রকাশক ও সম্পাদক- বাংলার কাগজ

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!