শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:৩৪ পূর্বাহ্ন

নিজের ভেতরের দুটো মন

নিজের ভেতরের দুটো মন

– ফারুক হোসেন –

মানুষের মনের ভেতর মন থাকে। একজন মানুষ যখন দুটো মন দিয়ে কাজ করেন সেই কাজটা অনেক নির্মল, নির্মোহ এবং সুন্দর হয়। কাজ দেখলে যে কেউ বলে দিতে পারবে কাজটা কতটা আন্তরিকতার সাথে করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা না করলেই নয়। ধরুন তার সাথে আপনার অনেক দিনের বন্ধুত্ব। কখনো কোনো সাহায্য চাওয়ার প্রয়োজন অনুভব করেননি। আজ না পারতে তার দ্বারস্থ হলে।এবং হতাশ হলেন। এখানে যে কেউ একতরফা চিন্তা করবে। যে সাহায্য চাইলো সে চিন্তা করবে, এবার বোঝা গেলো বন্ধুর পরিচয়। আর যে করতে পারলো না সে আসলেই পারবে না বলেই পারলো না। কিন্তু তার প্রকাশ ভঙ্গিটা ঠিক ছিলো না।দু’জনেই নিজের ভেতরের মনটা নিয়ে কাজ করেনি বা করায়নি অথবা ভেতরের মনটি তার নিজের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। যে সাহায্য চাইলো সে যদি তার দুটো মন একত্রিত করে ভেবে নিতো যে যার কাছে সাহায্য চাইছে সে সাহায্য করতে পারবে কিনা। আর না করতে পারলে যখন সে না করবে তখন সে মেনে নিতে পারবে না।অর্থাৎ জেনে বুঝে পজিটিভ চিন্তা নিয়ে তার কাছে যাওয়া। আর যে না করলো তার হঠাৎ করে না করে দেয়ার আগে চিন্তা করা উচিৎ কিভাবে বললে অপর পক্ষ বিশ্বাস করবে। এখানেই দুটো মনের খেলা। আপনি যখন কথা বলবেন, তখন কি সত্য বলছেন নাকি মিথ্যে বলছেন তা সহজেই ধরা যায়। আর আপনি তখন অপরের মনে শ্রদ্ধার জায়গা তৈরী করেন অথবা শ্রদ্ধার জায়গাটা হারিয়ে ফেলেন। মানুষ সামাজিক জীব। সমাজের মানুষকে নিয়েই তার চলতে হবে। তাহলে লুকোছাপার দরকার কি?আপনি যা আপনি তাই। সেভাবেই নিজেকে প্রকাশ করুন। আপনি থাকবেন জামতলায়। ভাব দেখাবেন, থাকেন আম তলায়। এখানেই তো সমস্যা। এই সমস্যাগুলো বেশিরভাগ হয় শিক্ষিত মানুষের বেলায়। কারণ আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষ পাঠ্যপুস্তকে শিক্ষিত। স্বশিক্ষায় শিক্ষিত না। বর্তমান সমাজে এটা আরো বোঝা যায় যখন দেখা যায় অভিভাবকরা সন্তানের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিয়ে উচ্ছ্বসিত হন। সেইসব অভিভাবকদের কাছে আমার প্রশ্ন, একটু খেয়াল করে দেখুন তো আপনার ভালো রেজাল্ট করা সন্তানের আচরণটি কেমন। সে বড়দের শ্রদ্ধা আর ছোটদের আদর করছে কি না। ঘরের কাজের লোকটির প্রতি তার আচরণ কেমন।সৃষ্ট জীবগুলোর প্রতি তার আচরণ কেমন। রাস্তায় যেতে যেতে আপনার সন্তানটি কোনো নিরিহ কুকুর অথবা বাক-শব্দহীন গাছের পাতাটিকে কষ্ট দিচ্ছে না তো? ধরুণ আপনার সন্তান এমনটি করছে কিন্তু আপনি হাসছেন। আপনার কাছে কিছু মনে হচ্ছে না। তবে ভেবে নিন আপনি নিজে কোনোভাবেই শিক্ষিত নন। আপনার যে দুটো মন আছে সে সম্পর্কে আপনার কোনো ধারণা নেই। দুটো মনের সমন্বয়ে কাজ করলে আপনার পুরোটা দিন চলে যাবে নিজেকে এবং নিজের পরিবারকে শুধরোতে। কাছের বা দূরের মানুষের দোষ ধরার সময় কই আপনার! কোথা থেকে কোথায় চলে এলাম।বলেছিলাম বিস্তারিত আলোচনা এখনো শেষ হয়নি। তবে জোড় করে শেষ করবো।শেষ কথাটি বলে যাই। চলুন আজকে থেকে আমরা প্রত্যেকে নিজেকে নিয়ে কাজ করি। নিজের ভেতরের দুটো মন নিয়ে কাজ করি। দুটো মন একসাথে করে মানুষের সাথে কথা বলি অথবা কাছের মানুষের আচরণে কষ্ট না পেয়ে নিজের আচরণে যেন কেউ কষ্ট না পায় সেই চেষ্টা করি। শেষ কথাটাও বড় হয়ে গেলো। তবু নিজের দুটো কথা বলতে চাই। জানেন, আমাকে অনেকে না বুঝে কথা শোনায়। আমিও সাময়িক কষ্ট পাই। নিজেকে বুঝাই হয়তো সে না বুঝে বলে ফেলেছে। অথবা তার ভালোর জন্যে করা আমার কাজটায় সে না বুঝে নিজেও কষ্ট পেয়েছে, আমাকেও কষ্ট দিয়েছে।আমি ভুলে যাই। কারণ আমি তো জানি, আমি কারো খারাপ চাই না। সবচেয়ে জরুরী বিষয় কি জানেন, ”আমি কি? আমি কে? আমি কেমন?”এই ব্যাপারগুলো জানা। যে নিজেকে পড়তে পারবে সে অনেক ভালো থাকবে। কারো কষ্ট দেয়া, কারো চলে যাওয়া যেমন তাকে কাঁদাবে না। তেমনি সে যদি ইচ্ছাকৃত/অনিচ্ছাকৃতভাবে কাউকে কষ্ট দিয়েও ফেলে নিজের মুখ দিয়ে দুঃখিত কথাটা বলতে তার একটুও খারাপ লাগবে না।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!