1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

প্রস্তাবিত বাজেট ধনীক শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষা করবে : বাংলাদেশ ন্যাপ

প্রস্তাবিত বাজেট ধনীক শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষা করবে : বাংলাদেশ ন্যাপ

ঢাকা : আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রস্তাবিত বাজেটে লুটপাটের বন্দোবস্ত করা হয়েছে এবং ধনীক শ্রেনীর স্বার্থ রক্ষার বাজেট বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

বৃহস্পতিবার বাজেট উপস্থাপনের পর তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, ঘোষিত বাজেটে গরিব জনগণের অর্থনৈতিক মুক্তির কোনো দিকনির্দেশনা নেই। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির খাতে বিশাল অংকের অর্থ বরাদ্দ করে কাবিখা, টি.আর ও কর্মসৃজন প্রকল্পের নামে সরকার দলীয় লোকদের প্রস্তাবিত বাজেটের লুটপাটের বন্দোবস্ত করা হয়েছে। দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কথা চিন্তা না করে প্রস্তাবিত বাজেটে ধনীক শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষার প্রচেষ্টা বিদ্যমান। তাই এই ধরনের বাজেট সাধারণ জনগনের কোন উপকারে আসবে না।

নেতৃদ্বয় বলেন, সরকার অবাস্তব ও গরীব ধ্বংসের বাজেট ঘোষণা করেছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গিয়ে বিগত নয় বছরে দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করে দিয়েছে। তাদের দলীয় নেতাকর্মীদের চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, দখলবাজির কারণে অর্থনৈতিক পরিস্থিতিকে চরম সংকটের দিকে ঠেলে দিয়েছে। দেশ পরিচালনায় উন্নয়ন ও উৎপাদনে ব্যর্থ হয়েছে। শেয়ারবাজার কেলেংকারীর মাধ্যমে দেশের অর্থ বিদেশে পাচার ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছে। ফলে দেশের অর্থনীতি ও কোটি কোটি মধ্যমিত্ত বিনিয়োগকারীর অর্থনীতি ও জানমালের নিরাপত্তা দিতে সরকার চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে। দেশের অর্থনীতি ও আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভেঙ্গে পড়েছে। দ্রব্যমূল্য, বিদ্যুৎ,গ্যাস ও পানিসহ জনগণের সমস্যা সমাধানে সরকার কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি।

তারা বলেন, সাধারণ মানুষের ওপর বিভিন্ন কায়দায় ট্যাক্স-ভ্যাট-করের বোঝা কমানো হয় নাই। বরং একচেটিয়া বড় পুঁজির জন্য নতুন নতুন সুযোগ ও ছাড় দিয়ে জনগণের ওপর লুটপাটের মাত্রাকে আরও তীব্র করার পথ সুগম করা হয়েছে। এর মাধ্যমে জনগণের সম্পদ ধনীদের ঘরে কেন্দ্রীভূত করার যে প্রক্রিয়া চলছে তা আরও প্রকট হবে।

বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় আরো বলেন, বিশাল অংকের এই বাজেটে ট্যাক্সের খাঁচার পুরে গরিব-মধ্যবিত্তকে তীব্র শোষণ করার পথ করা হয়েছে। পাশাপাশি সমস্ত দ্রবের মূল্য বৃদ্ধির যাঁতাকলে মানুষ আটকে যাবে। অন্যদিকে গ্রাম-শহরের গরিব মানুষের জন্য রেশনিং, বেকারদের সারাবছর কাজের নিশ্চয়তা ও কমংসংস্থান সৃষ্টি, গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জন্য বিভিন্ন প্রকল্প, সমস্ত বয়স্ক ও অক্ষম নারী-পুরুষের বার্ধক্য ভাতা চালু করার দাবি সম্পূর্ণ উপক্ষো করা হয়েছে।

তারা বলেন, প্রস্তাবিত বাজেট শিল্প বিকাশ ও কর্মসংস্থানের প্রশ্নে দিশাহীন। এ বাজেটে কৃষির ওপর নির্ভরশীল বিরাট সংখ্যক গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জন্য সামান্যতম রাষ্ট্রীয় সহায়তা নেই। সেচের ডিজেল-বিদ্যুৎ, সার-বীজের ওপর প্রত্যক্ষ ভর্তুকি নেই। উৎপন্ন ফসলের জন্য মূল্য সহায়তা নেই। একইভাবে দেশের শ্রমিক জনগোষ্ঠীর জন্য কোনো সহায়তা, কর্মপ্রত্যাশীদের জন্য কোনো পদক্ষেপের কথা বলা হয়নি। পাচার হওয়া হাজার হাজার মানুষের জন্যও কোনো সহায়তার কথা বলা হয়নি।

– সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!