সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১৪ পূর্বাহ্ন

সিয়াম ও ঈদ

সিয়াম ও ঈদ

– মনিরুল ইসলাম মনির –
রোজার পুণ্যময় মাস যেন একটি স্বচ্ছ-সলিল সরোবর। যার জলের নির্মলতায় মানুষের অভ্যন্তরীণ যাবতীয় কাম-ক্রোধ, লোভ-লালসা, হিংসা-বিদ্বেষ ও বিভেদের সব কালিমা ধুয়ে-মুছে সাফ হয়ে যায়। মুসলমানগণ পুণ্যস্নাত ঈদের মধ্যদিয়ে সমর্পিত হয়, সেই নির্মলতার সীমানায় উত্তীর্ণ হয়। কামাচার, পানাহার, পাপাচার ও মিথ্যাচার থেকে বিরত থেকে মাহে রমজানে সম্পূর্ণ দিবাভাগে অর্থাৎ সুবহে সাদিকের পূর্বক্ষণ থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত রোজাদার আত্মশুদ্ধির প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হন। যা তার জীবন-চেতনায় বয়ে আনে পরিশীলিত অনুভূতি। পুরো এক মাস সিয়াম সাধনার পর আনন্দ ও উৎসবমুখর পরিবেশে সারাদেশে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর পালিত হয়। রমজান মাসে সংযম ও আত্মশুদ্ধি অনুশীলনের পর ঈদ-উল-ফিতর ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে সকল শ্রেণীর মানুষকে আরও ঘনিষ্ঠ বন্ধনে আবদ্ধ করে, গড়ে তোলে সবার মধ্যে সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য ও ঐক্যের মেলবন্ধন।
এক মাস সংযম সাধনার মাধ্যমে আত্মশুদ্ধির যে নিরলস প্রচেষ্টা বিশ্বাসীগণ চালান, ঈদ-উল-ফিতর এরই পূর্ণতার সুসংবাদ। নবী করিম (সা) সানন্দে ঘোষণা করেছেন, ‘প্রত্যেক জাতিরই নিজস্ব আনন্দ-উৎসব রয়েছে, আমাদের আনন্দ-উৎসব হচ্ছে এই ঈদ।’ (বুখারী ও মুসলিম)
ঈদ মানবসমাজের ধনী-গরিব ব্যবধান ভুলিয়ে দেয়ার একটি দিন। মসজিদে-ময়দানে ঈদের নামাজে বিপুল সংখ্যক ধর্মপ্রাণ মুসলিমের সমাগম হয়ে থাকে। সবাই সুশৃঙ্খলভাবে কাতারবদ্ধ হয়ে ধনী-গরিব, বাদশা-ফকির, মালিক-শ্রমিক নির্বিশেষে সব মুসলমান এক কাতারে ঈদের নামাজ আদায় ও একে অপরের সঙ্গে আলিঙ্গন করে সাম্যের জয়ধ্বনি করেন। হাদিস শরিফে বর্ণিত আছে, ‘যারা ঈদের নামাজ আদায় করার জন্য ময়দানে একত্রিত হয়, আল্লাহ তা’আলা তাদের সম্পর্কে ফেরেশতাদের জিজ্ঞাসা করেন, যারা স্বেচ্ছায় দায়িত্ব পালন করে আজ এখানে উপস্থিত হয়েছে তাদের কি প্রতিদান দেওয়া উচিত? ফেরেশতারা বলেন, তাদের পুণ্যময় কাজের সম্পূর্ণ পারিশ্রমিক দেওয়া উচিত। তখন আল্লাহ তা’আলা তাঁর মর্যাদার শপথ করে বলেন, অবশ্যই তিনি তাদের প্রার্থনা কবুল করবেন। এরপর আল্লাহ তা’আলা ঈদের নামাজ সমাপনকারী তাঁর নেক বান্দাদের উদ্দেশ্যে ঘোষণা করেন, আমি তোমাদের ক্ষমা করে দিয়েছি। আর তোমাদের কৃত অতীত পাপকে পুণ্যে পরিণত করে দিয়েছি।’
ঈদ সকলের মাঝে আনন্দ বিতরণের ঐশী বাণীরূপে মুসলমানের জীবনে ফিরে আসে। বস্তুগত জাগতিক প্রাচুর্য, ঐশ্বর্য ও ধন-সম্পদের মোহ থেকে যথাসম্ভব মুক্ত রেখে মানুষের অন্তরকে বিকশিত নির্মল উজ্জ্বল ও সুন্দর করে তোলাই সিয়াম সাধনার উদ্দেশ্য আর ঈদ-উৎসবের মাহাত্ম্য। ঈদ মানুষের মধ্যে ইসলামের সাম্য ও মৈত্রীর বন্ধন সৃষ্টি করে। ভেদাভেদহীন সমাজ তৈরির বিষয়টি পবিত্র ঈদ উৎসবের মধ্যে নিহিত রয়েছে। মাহে রমজানের একটি মাস ধরে কঠোর সংযমব্রত পালনের পর যখন ঈদ আসে তখন সেটা তো মহাআনন্দের ফল্গুধারা হয়ে দেখা দেয়। প্রকৃতপক্ষে, যারা রোজার যাবতীয় হক আদায় করেছে, তাদের জন্য ঈদ-উল-ফিতরের দিনটি মহাসম্মানের, আনন্দের, অভিনন্দনের, শান্তির, ক্ষমার এবং মহাপুরস্কারের দিন।
ইসলামের মর্মবাণী সামাজিক ঐক্য, সাম্য, মৈত্রী, সৌহার্দ্য, সহমর্মিতা প্রকাশ ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠা এবং মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর রহমত, মাগফিরাত ও নাজাত সম্পর্কে সুগভীর উপলব্ধি। ঈদ উৎসব পালন একটি নিছক আনন্দ-বিনোদনের পর্ব নয়, এরমধ্যে নিহিত আছে সামাজিক দায়িত্ব-কর্তব্য পালন ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য উদযাপনের তাগিদ। মাহে রমজানের সিয়াম সাধনার যথার্থ সমাপনান্তে ঈদের আনন্দ প্রকৃত রূপ লাভ করে, সাদাকাতুল ফিতর ও জাকাত আদায়ের মাধ্যমে নিজের আনন্দ পরের তরে বিলিয়ে দেয়ার আসমানি তাগিদ পালনের সুবর্ণ সুযোগ মিলে। মানবজীবনের সুখ-দুঃখ-সঙ্কট ও আনন্দ-বেদনার ভেতর দিয়ে ঈদ-উল-ফিতর মুসলমানদের জন্য ভালবাসা ও কলুষমুক্ত নতুন জীবনের উপলব্ধি নিয়ে আসে। ধনী-দরিদ্র, আমির-ফকির, সাদা-কালো, উঁচু-নিচু সবশ্রেণীর মানুষ মিলে একই আনন্দ-অনুভবে, একই খুশির জোয়ারে মহাঐক্যের মিলন মোহনায় এসে সম্মিলিত হওয়ার এক অনন্য ব্যবস্থা এই পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com