শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

বিশ্বকাপ উন্মাদনা : ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

বিশ্বকাপ উন্মাদনা : ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

– মনিরুল ইসলাম মনির-
গত কয়েকদিনে বিশ্বকাপের উন্মাদনা একটু বেশিই হয়ে গেল। “যার মেয়ে তার জামাই, পাড়া-পড়শির হাল কামাই।” অনেকটাই এমন প্রবাদের শামিল। যেন গোটা দেশটাই ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনা এই দুই শিবিরে বিভক্ত হয়ে গিয়েছিল। দুই শিবিরে কাঁদা ছুঁড়াছুঁড়িও হয়েছে হতাশাজনকভাবে। নিজের দেশ নিয়েও এমন মাতামাতি কম হতে দেখি। সাপোর্ট করা ভালো, তবে সাপোর্টের একটা ধরণ থাকা চাই। ভক্ত হতে গিয়ে অন্ধভক্তে পরিণত হওয়াটা নিশ্চই উত্তম কোন উপায় নয়। তেমনি অন্ধের মতো কাঁদা ছুঁড়ে নিজেদের গায়ে ময়লা জড়ানোর মতো বেমানান কাজই বা কি হতে পারে?
অথচ গত কয়েকদিনে বাংলাদেশ কি-ই না দেখল। কতো কান্ডই না ঘটে গেল। আবার আত্মহননের মতো ঘটনাও শোনা গেছে। এখনও কম হচ্ছে না। আর্জেন্টিনা সমর্থকরা ব্রাজিলের বিপক্ষে আর ব্রাজিল সমর্থকেরা আর্জেন্টাইনদের বিপক্ষ দলে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। যদিও এখন দুই দলই বিশ্বকাপ মাঠের বাইরে। তথাপিও আর্জেন্টাইনরা বিকল্প দল বেছে নিয়ে হতাশার মাঝেও মিথ্যে শ্বান্তনা খোঁজছেন। আবার বিশ্বকাপ মাঠের বাইরে ছিটকে পড়া ব্রাজিল সমর্থকেরা অধিকাংশই বিকল্প দল বেছে না নিলেও আপাতত কাউন্টার এটাক নিয়েই ব্যস্ত। অবশ্য আমিও এর বাইরে নয়।
ছোটবেলা থেকেই প্রচন্ডভাবে ফুটবল খেলেছি। কৈশরে গোলকিপার হিসেবে ভালই খেলেছি। তবে একথা সত্য যে, কোন দলে বা ম্যাচে খেলা হয়নি। পড়াশোনার পড় বলাচলে দিনের একটা উল্লেখযোগ্য সময় প্রতিদিন ফুটবলের পেছনে কাটাতাম। পুরনো গরুহাটি ও তারাগঞ্জ মাঠ ছিল অন্যতম জায়গা। বর্ষায় কাঁদা আর শুকনো মওসুমে গরুহাটিতে খেলতে গিয়ে হাঁটুর চাট ঘাঁ কখনও সাড়েনি। একবার ছাল উঠে শুকানোর আগেই আবারও ছিলে রক্তাক্ত হত। লীগ এর খেলা শুরু হলে দুপুরের পর থেকেই মাঠে গিয়ে জায়গা দখল করতাম খেলা দেখতে। বিদ্যালয়ের ছাদেও উঠা হয়েছে। এসব এখন বাল্যস্মৃতি। আর এখন তো খেলার নিয়ম-কানুনই ভুলে গেছি।
এবারের বিশ্বকাপে কোন দল সাপোর্ট করিনি। বিশ্বকাপ নিয়ে কোন উত্তেজনাও কাজ করেনি মনে। সবাই বিশ্বকাপ নিয়ে টিভি স্ক্রিনে ব্যস্ত থাকলেও আমি অফিসে কাজের ফাঁকে ব্যস্ত থাকতাম ক্রাইম প্রেটোল বা এ জাতীয় অনুষ্ঠানে। তথাপিও একজন ভদ্র ও ভালো খেলোয়ার হিসেবে মেসিকে সমর্থন করতাম। প্রথম রাউন্ডে আর্জেন্টিনার শেষ খেলাটি অফিসে বসে কাজের ফাঁকে দেখছিলাম। এরই মধ্যে মেসি একটি গোল করে বসল। অনেকটা আবেগেই মেসিকে নিয়ে ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাস লিখে দিলাম। যাতে কোন দলের সমর্থন বা দলের বিরুদ্ধে মন্তব্য ছিল না। শুধুই মেসিকে ভালো লাগার অনুভুতির প্রকাশ।
কিন্তু ওই লেখাটা যেন ব্রাজিলিয়ানদের গায়ে কাঁটা দিল। কোন কোন শিক্ষিত নামের বেয়াদব ‘শিয়াল’ বলতেও দ্বিধা করল না। এমনসব মন্তব্য যে, নিজের প্রতি ঘিন্না লাগছিল। বাধ্য হয়ে আনফ্রেন্ডও করেছি। আমার ভালো লাগা আমি প্রকাশ করতেই পারি, তা অন্য কারও ভালো নাও লাগতে পারে। তাই বলে অন্যের ভালো লাগায় তীর্যক মন্তব্য কোন ধরণের সভ্যতা তা আমার বোধগম্য নয়।
এটা শুধু আমার বেলায়ই নয়; অনেক আর্জেন্টাইনের বেলায়ও হয়েছে। এটা কোন সভ্যতার দিশারী হতে পারে না। একপর্যায়ে আর্জেন্টিনা দ্বিতীয় রাউন্ডে নকআউট পদ্ধতি থেকে বিদায় নিলে তা আরও ভয়াবহ রূপ নেয়। ব্রাজিলিয়ানদের চাপাবাজি আর উপহাসে ফেসবুক একাকার। কেউ কেউ ‘আরজিতেনা’ ‘এক হালি ডিম’ ইত্যাদি লিখে ফেসবুকটাকে উপহাসের পাতা বানিয়ে ফেলল।
কোন দলের সাপোর্টার হলেই অন্য দলকে নিয়ে কাঁদা ছুঁড়াছুঁড়ি করতে হবে- এ কথায় আমি বিশ্বাসী নই। কিন্তু রক্ত-মাংসে গড়া মানুষ আমিও। নিজের ভদ্রতাকে বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারিনি। বিশেষ করে, শিক্ষিত লোকেরাও যখন আমার পছন্দ নিয়ে কটাক্ষ করে বসে। বাধ্য হয়ে ওইসব শিক্ষিতদের জবাব দিতে ৬ জুলাই ব্রাজিলের হারের পর ব্রাজিলিয়ানদের উদ্দেশ্য করে একটি কটুক্তিমূলক জবাব দেই। তোরাও বুঝে দেখ, এখন কেমন লাগে?
কিন্তু অনেকেই এটাকে ‘ব্রাজিল দলকে গালি দিয়েছি’ ভেবে নিয়ে আমার মন্তব্যে আপত্তি করেছেন। যারা করেছেন তাদের স্যালুট জানাই। আপনাদের আপত্তি যথাযথ। আমার মুখে ওমন শব্দ মানায় না। এটা পোস্ট করার আগে আমিও ভেবে নিয়েছি। কিন্তু গত কয়েকদিনে ব্রাজিলিয়ানদের অত্যাচারে অতীষ্ট হয়েই ওই মন্তব্য আমার মুখ থেকে ফেসবুকে। তাই ভদ্র বন্ধুরা ওই মন্তব্যে নাখোস না হলে নিজেকে ধন্য মনে করব।
খেলা হবে, সমর্থনও থাকবে। যে যার মতো করে পছন্দ করবে- এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু নিজেদের খেলার অগ্রগতি নিয়ে না ভেবে অন্য দেশের সমর্থনে কাঁদা ছুঁড়াছুঁড়ি করে নিজেকে অভদ্র হিসেবে পরিচয় করিয়ে অন্যদের ভদ্রতার বাইরে নিয়ে না আসাই উত্তম। বারবার জুলুম করা হলে একজন নির্যাতিত-অসহায়ও প্রতিবাদ করে বসে। ওই প্রতিবাদ অনেক সময় ভয়ানকও হতে পারে। তাই বিশ্বকাপ নিয়ে পরস্পর উপহাস-দ্বন্দ্বের রেখা না টেনে শালীনতার মাধ্যমে সমর্থনই কি উত্তম হতে পারে না?

সম্পাদক ও প্রকাশক : বাংলার কাগজ
জেলা প্রতিনিধি- চ্যানেল নাইন

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!