বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২২ অপরাহ্ন

ঝিনাইগাতি সীমান্তে অপরাধমূলক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় বিট কর্মকর্তাকে মারধর করে হাতকড়া পড়িয়ে রশিতে বাধল বিজিবি

ঝিনাইগাতি সীমান্তে অপরাধমূলক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় বিট কর্মকর্তাকে মারধর করে হাতকড়া পড়িয়ে রশিতে বাধল বিজিবি

ঝিনাইগাতি (শেরপুর) : শেরপুরের ঝিনাইগাতি সীমান্তের গজনী বিট এলাকায় বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি। স্থানীয় চোরাকারবারীদের অপরাধমূলক কর্মকান্ডে সহায়তা, হরিণ শিকার ও বনের কাঠ সংগ্রহের প্রতিবাদ করায় বন বিভাগের উপর চড়াও হয়েছে তারা। বন বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মারধর এমনকি হাতকড়া লাগিয়ে ক্যাম্পে আটকে রাখার মতো ঘটনাও তারা ঘটিয়েছে।
২৬ জুলাই বৃহস্পতিবার বন বিভাগের সাথে বিজিবি’র এমন এক ঘটনার প্রেক্ষিতে ২৭ জুলাই শুক্রবার অনুসন্ধানে গেলে উঠে আসে বিজিবি’র অপরাধ মূলক কর্মকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়টি।
অনুসন্ধানে জানা যায়, নকশি বিজিবি ক্যাম্পে কর্মরত বিজিবি সদস্যের সীমান্তে চোরাকারবারীদের সাথে যোগসাজশ রয়েছে। বিশেষ করে সীমান্তের ঝিরি ও নদীপথে গরু পাচার, মাদক পাচার এবং কাঠচোরদের সাথে রয়েছে তাদের সখ্যতা। সম্প্রতি ওই ক্যাম্পের কতিপয় সদস্য জ্বালানির জন্য গজনী বিট কর্মকর্তার কাছে জ্বালানি কাঠ চান। এসময় বিট কর্মকর্তা আব্দুর রফিক জ্বালানি কাঠ নেই বলে জানিয়ে দেন। পরবর্তীতে ওই ক্যাম্প কমান্ডার বিট কর্মকর্তার কাছে জ্বালানি কাঠ চাইলে তাকেও মানা করা হয়। একপর্যায়ে তারা মরে যাওয়া গাছ কাটার অনুমোতি চাইলে বিট কর্মকর্তা এতেও অসম্মতি জানান। এর কয়েকদিন পরই সীমান্তের গহীনে টহল দেওয়ার সময় একটি বন্য হরিণ সামনে পড়লে সেটিকে শিকার করে বিজিবি সদস্যরা। পরে তা ক্যাম্পে নিয়ে জবাই করে খেয়ে ফেলে। বিষয়টি জানার পর বিট কর্মকর্তা আব্দুর রফিক বিজিবি সদস্যদের এমন আচরণে অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং বন্যপ্রাণী শিকার করতে মানা করেন। এসব কারণে বিজিবি সদস্যরা বিট কর্মকর্তার উপর প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য পরিকল্পনা করে।
এদিকে আব্দুর রফিক বিট কর্মকর্তা হিসেবে গজনী বিটে যোগদানের প্রায় তিন বছরে স্থানীয় কাঠচোরদের নামে বিভিন্ন সময় ৩২টির মতো বন আইনে মামলা দায়ের করেন। এ নিয়ে স্থানীয় কাঠ চোরেরাও তার উপর ক্ষিপ্ত ছিল। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় চোরাকারবারী ও বিজিবি সদস্যরা ষড়যন্ত্রের জাল ফেলে। তারই অংশ হিসেবে ২৫ জুলাই মঙ্গলবার রাতের কোন এক সময় বন বিভাগের সংরক্ষিত বনাঞ্চলের তিনটি বড় আকারের গজারি গাছ কেটে ফেলে দূর্বৃত্তরা। ২৬ জুলাই বুধবার সকালে বিষয়টি প্রকাশ হলে বিট কর্মকর্তা আব্দুর রফিকসহ বন বিভাগের অন্যান্য কর্মচারীরা দুপুর নাগাদ ঘটনাস্থলে যান এবং কেটে ফেলা কাঠ জব্দ করে বিট অফিসে আনার প্রস্তুতি নেন। এসময় নকশি বিজিবি ক্যাম্পে কর্মরত কয়েকজন বিজিবি সদস্য ওই কাঠ জব্দ করতে বন বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়ায়। কিন্তু বন বিভাগ জব্দকৃত কাঠগুলো বিজিবি’র জিম্মায় না দিলে আকস্মিক বিজিবি সদস্যরা বিট কর্মকর্তা রফিককে মারধর শুরু করে। এসময় ফেরাতে এলে বন মালি মমতাজ আলীকে মরধর করে বুকে রাইফেল তাক করে দাড় করিয়ে রাখে। একপর্যায়ে বিট কর্মকর্তা রফিককে মরধর করে হাতে হাতকড়া পড়ায় এবং নকশি বিজিবি ক্যাম্পে নিয়ে রশি দিয়ে বেধে রাখে।

ততক্ষণে বিষয়টি বিভাগীয় বন কর্মকর্তা পর্যন্ত গড়ালে বিকেলে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) ড. প্রান্তোষ চন্দ্র রায়, ঝিনাইগাতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। ততক্ষণে বিজিবি সদস্যরা যুদ্ধসাজে ক্যাম্পে অবস্থান করছিল বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। এরপর বিজিবি’র কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল আনিসুর রহমানও আসেন নকশি বিজিবি ক্যাম্পে। পরে উভয়পক্ষকে শান্তনা দিয়ে মিলিয়ে দেওয়া হয় এবং আটক বিট কর্মকর্তা আব্দুর রফিককে ছাড়িয়ে আনা হয়।
এদিকে বাংলার কাগজ অনুসন্ধানী টিম একটি অডিও রেকর্ড সংগ্রহ করেছে। যেখানে মোবাইল ফোনে কোন এক কাঠ চোরাকারবারী স্থানীয় একজন সংবাদকর্মীকে মোবাইলে ফোন করে বিজিবি’র সাথে আগে থেকেই পরিকল্পনা করে বিট কর্মকর্তাকে এ পরিস্থিতিতে ফেলা হয়েছে বলে উল্লেখ করেছে।
বিষয়টি নিয়ে রাংটিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা আব্দুল আল মামুন জানান, বিভিন্ন সময় বিজিবি সদস্যদের অন্যায় আবদার রক্ষা না করায় এবং অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় তারা আমার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপর চড়াও হয়েছে। বর্তমানে বিজিবি ও চোরাকারবারীরা সখ্যতা গড়ে তোলে বন বিভাগের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে নেমেছে। ফলে বন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা বনে টহল দিতে সাহস পাচ্ছেন না। এমতাবস্থা চলতে থাকলে বন অরক্ষিত হয়ে পড়বে। কাজেই বিষয়টি নিয়ে এখনই ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।
বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ড. প্রান্তোষ চন্দ্র রায় জানান, বিষয়টি ওই সময় আপোষ-মিমাংসায় যাওয়া হয়। কিন্তু বিষয়টি প্রকাশ হয়ে পড়ায় এখন বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংগঠন থেকে প্রতিবাদ হচ্ছে। তারা আইনী ব্যবস্থার কথা বলছেন। বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মতে পরবর্তী পদক্ষেপ হাতে নেওয়া হবে।
তিনি আরও বলেন, এর প্রতিকার হওয়া উচিত। নয়তো বনাঞ্চল অরক্ষিত হয়ে পড়বে। ভবিষ্যতে এমন ঘটনার আবারও পুনরাবৃত্তি ঘটবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে নকশি বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার শাহজাহানের ব্যবহৃত ব্যক্তিগত ও অফিসিয়াল দুটো মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ জানান, বিষয়টি অবশ্যই ন্যাক্কারজনক। কোন ভুল বুঝাবুঝি হয়ে থাকলেও উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো উচিত ছিল। উভয়পক্ষের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ উপস্থিত থেকে ভবিষ্যতে যেন এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে এ ধরণেই একটি সমাধান হয়েছে।
– মনিরুল ইসলাম মনির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com