1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৩৯ অপরাহ্ন

প্রসঙ্গ নালিতাবাড়ী হাসপাতাল : তিক্ততা ও দায়বদ্ধতা

প্রসঙ্গ নালিতাবাড়ী হাসপাতাল : তিক্ততা ও দায়বদ্ধতা

– মনিরুল ইসলাম মনির –
কখনও কখনও নিজেকে শান্তনা দেওয়ার ভাষা খুঁজে পাই না। বড় অসহায় মনে হয় নিজেকে। কখনও বা উৎসাহ হারিয়ে ফেলি। মনে হয়, সমাজের আত্মাদের মাঝে পরিবর্তন আসে না কেন? বৈষম্য তোলে ধরে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে আর সুপারিশ বা প্রস্তাবনা আনতে গিয়ে নিজেকে খুব হাঁপিয়ে তুলি। এরপরও স্বভাবজাত ভাবেই ফিরে আসি একই অধ্যায়ে। আবারও কোন না কোন ইস্যুতে অস্থির হয়ে পড়ি। এতে অনেকেই খুশি হলেও হয়ত কর্তাব্যক্তি আর সংশ্লিষ্ট ভোগী মহল আমার প্রতি তিক্ততা অনুভবই করে থাকেন। নিজেদের সুবিধা ভোগে অসুবিধার গন্ধ পেয়ে আবার কেউবা নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে নাখোশ হন আমার উপরই। এরপরও বেহায়া বান্দা আমি পিছু হটতে রাজি হই না। হাল ছাড়ি না। অদম্য চেষ্টা আমাকে তাড়িয়ে বেড়ায়। মুখ পোড়ার মতো বলে ফেলি, ঘার ত্যারার মতো লিখে ফেলি।
সম্প্রতি নালিতাবাড়ী হাসপাতাল নিয়ে বেশ কান্ড ঘটিয়ে যাচ্ছি। একে তো জনবল সংকট, ভিতরের পরিবেশ নোংরা, সঠিক স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত নাগরিকরা। রয়েছে লক্কড়-ঝক্কর মার্কা এ্যাম্বুলেন্স, হাসপাতাল কম্পাউন্ডে মাদকসেবীদের আনাগোনা। তারপরও ‘গোদের উপর বিষ ফোঁড়া’ হাসপাতালের দুটি গেইট। সামনে সিএনজি স্টেশন, বাস কাউন্টার, অস্থায়ী দোকানপাট আর ভাসমান পথচারী- সকলের জন্য ‘পাবলিক টয়লেট’ এ গেইট দুটি। গেইটের দুইপাশে সবসময় মল-মূত্র ত্যাগ করা, ময়লা-আবর্জনা ফেলা আর সাথে কুকুরের আনাগোনা। রোগীরা হাসপাতাল গেইটে এলেই নাক-মুখ ধরে ঢুকতে হয়। বিষয়টি নিয়ে লেখালেখি থেকে শুরু করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে মুখোমুখি একাধিকবার বৈঠক করি। শেষ পর্যন্ত ১০ সেপ্টেম্বর মাসিক আইন-শৃখলা সভায় গড়িয়ে দেই। দীর্ঘক্ষণ এ নিয়ে তুমুল আলোচনা চলে।
আমার প্রস্তাবনা ছিল, ‘যেহেতু হাসপাতালে বর্তমানে কোন নৈশ প্রহরী ও গার্ড নেই। এমন আপদকালীন সময়ের জন্য আপাতত একটি গেইট (২ নম্বর) সাময়িক বন্ধ রেখে প্রধান গেইটটি রক্ষণাবেক্ষণ করা হোক। অন্তত আমরা স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশটা ফিরিয়ে আনি।’ কিন্তু এটাতে কারও আপত্তি বাঁধল। হয়ত বেসরকারীভাবে গড়ে ওঠা প্যাথলজিগুলোতে ব্যবসা কমে যাওয়ার আশঙ্কায়।
তবে মজার বিষয় হলো, আমার প্রস্তাবনা ‘মাথা ব্যথার জন্য মাথা কাটা’র পর্যায়ে চলে গেল। দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা হলো। হাসপাতালের দুটি গেইট চালু রেখে লাইট, মাটি ভরাট ও গাছ রোপন করে সজ্জিতকরণ, পাবলিক টয়লেট স্থাপন ইত্যাদি উঠে এলো আলোচনায়। নিঃসন্দেহে এসব উত্তম পন্থা। উদ্যোক্তা ও প্রস্তাবকারীদের জন্য প্রশংসনীয়। কিন্তু এগুলোতে সময় লাগবে বেশি। পাবলিক টয়লেটের জন্য স্থান নির্বাচন, বাজেট প্রণয়ন, ঠিকাদার নিয়োগ, নির্মাণ, ইজারা প্রদান ইত্যাদি অনেক বিষয় এতে জড়িয়ে। তাই আপদকালীন হিসেবে ক্ষণিকের জন্য ২ নং গেইটটা বন্ধ রেখে নতুন নতুন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করলে হয়তো আমরা তাৎক্ষণিক ফলাফলটা পেতাম। কিন্তু ব্যাখ্যা হলো, ‘তরিৎ সিদ্ধান্ত ভালো হয় না’। মানলাম।
এবার আমরা একটু আশপাশে লক্ষ্য করি। শেরপুর সদর হাসপাতাল ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট। এর দুইটি গেইট থাকলেও প্রধান গেইট সবসময় উন্মুক্ত। দ্বিতীয় গেইটটি বন্ধ রাখা হয়। শ্রীবরদী ৫০ শয্যা হাসপাতালের প্রধান গেইট খোলা রেখে দ্বিতীয়টি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ৫০ শয্যার নকলা ও ৩১ শয্যার ঝিনাইগাতিতে একটিমাত্র গেইট। আমাদেরটাও কিছুদিন আগে বন্ধ ছিল। পরবর্তী সময়ে অদৃশ্য শক্তির বলে খুলে যায়। তো কথা হলো, অন্যদের বেলায় যদি একটি মাত্র গেইটি দিয়ে যাতায়াত চলতে পারে, আমাদের উপজেলা পরিষদের এতগুলো দপ্তরের জন্য যদি একটি গেইট যথেষ্ট হয়; তবে আমাদের হাসপাতালে দীর্ঘমেয়াদী কাজ বাস্তবায়নের পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত একটি গেইট বন্ধ রাখলে কি এমন মহাভারত অশুদ্ধ হয়- তা আমার মতো নির্বোধের বোধগম্য নয়। সময় নিয়ে সিদ্ধান্তে পৌছা উত্তম হলেও সবক্ষেত্রেই সময় নেওয়া কতোটা যুক্তিযুক্ত? প্রকৃতপক্ষে, কাজের ধরণের উপর নির্ধারিত হতে পারে তা দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার আওতায় আসবে, নাকি তরিৎ সিদ্ধান্তের আওতায়।
আমি জানি, আমার এ লেখনিতে অনেকেই নাখোশ হবেন। শুধু জেনে রাখা ভালো যে, আমি বা সংবাদকর্মীরা নিজেদের লাভের জন্য এসব বলি না বা লিখি না। নিজেদের পেশাগত দায়বদ্ধতা থেকেই লিখি বা বলি।
কিন্তু একটা কথা আমরা মানতেই পারি, প্রত্যেকটা দীর্ঘমেয়াদী ও টেকসই কাজ বাস্তবায়নের পাশাপাশি আপদকালীন পরিকল্পনাও হয়ত বোকার কাজ নয়। তাই এ লেখায় কেউ মনে কষ্ট না নিয়ে- আমাদের প্রায় পৌণে তিন লাখ লোকের স্বাস্থ্যসেবার কথা ভেবে সিদ্ধান্ত যাই হোক, দ্রুত বাস্তবায়ন জরুরী। আমরা আশাবাদী কর্তৃপক্ষ বিষয়টি সু-দৃষ্টিতে দেখবেন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!