1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২২ পূর্বাহ্ন

প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে বেতন বৈষম্য

প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে বেতন বৈষম্য

– ফরিদ আহাম্মদ –

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দীর্ঘ দিনের দাবির প্রেক্ষিতে ২০১৪ সালের ৯ মার্চ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান শিক্ষকদের পদ-মর্যাদা দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করার ঘোষণা দেন। পরবর্তীতে সরকারের পক্ষ হতে প্রধান শিক্ষকদেরকে নন-গেজেটেড দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদা দেয়া হয়েছে বলে জানানাে হয়। যা নাম মাত্রদ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদা, বাস্তবে এর কোন কার্যকারিতা নেই। ৮ম পে-স্কেলের গেজেট প্রকাশের মাধ্যমে সরকার শ্রেণি প্রথা বিলুপ্ত করে গ্রেডিং পদ্ধতি চালু করে। পে-স্কেলের গেজেটে কোথাও কর্মকর্তা শব্দ ব্যবহার করা হয়নি। বর্তমানে সকল চাকরিজীবী প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। একজন সরকারি চাকরিজীবীর মান নির্ধারণ হবে তার চাকরির গ্রেড অনুযায়ী। ৮ম পে-স্কেলের গেজেট প্রকাশের পর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র প্রধান শিক্ষকরা তাদেরকে করসপন্ডিং সুবিধা দেয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে আসছে।করেসপন্ডিং সুবিধা পেলে তিনটি টাইমস্কেল প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের বেতন স্কেল নির্ধারিত হবে ২৩০০০ টাকায় এবং গ্রেড উন্নীত ৮ম স্থানে। অর্থাৎ প্রথম টাইম স্কেল প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের স্কেল হবে ১৬০০০ টাকা ও গ্রেড হবে ১০ম, দ্বিতীয় টাইম স্কেল প্রাপ্তদের স্কেল হবে ২২০০০ টাকা ও গ্রেড হবে ৯ম এবং তৃতীয় টাইম স্কেল প্রাপ্তদের স্কেল নির্ধারিত হবে ২৩০০০ টাকায় এবং গ্রেড উন্নীত হবে ৮ম স্থানে। উপরে উল্লেখিত হিসাব অনুযায়ী করসপন্ডিং সুবিধা বাস্তবায়ন হলে তৃতীয় টাইম স্কেল প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের সাথে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার, প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের বেতন ও গ্রেড বৈষম্য হবে ব্যাপক। নিম্নে করসপন্ডিং সুবিধা পাওয়া ( তিনটি টাইমস্কেল প্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষকদের সাথে স্কেল ও গ্রেড বৈষম্যের বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরা হল।

সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের বর্তমান প্রারম্ভিক স্কেল ১৬০০০ টাকা, গ্রেড ১০ম। স্কেল বৈষম্য: ২৩০০০-১৬০০০ = ৭০০০ টাকা। গ্রেড বৈষম্য: প্রধান শিক্ষকের চেয়ে ২ ধাপ নিচে। অর্থাৎ প্রধান শিক্ষক ৮ম এবং এইউইও ১০ম।

টাইমস্কেল বিহীন প্রধান শিক্ষকদের (প্রশিক্ষণ) বর্তমান প্রারম্ভিক স্কেল ১২৫০০ টাকা, গ্রেড ১১তম। স্কেল বৈষম্য: ২৩০০০-১২৫০০= ১০৫০০ টাকা। গ্রেড বৈষম্য: ৩ ধাপ নিচে।

প্রশিক্ষণ বিহীন প্রধান শিক্ষকদের বর্তমান প্রারম্ভিক স্কেল ১১৩০০ টাকা, গ্রেড ১২তম। স্কেল বৈষম্য: ২৩০০০-১১৩০০= ১১৭০০ টাকা। গ্রেড বৈষম্য: ৪ ধাপ নিচে।

টাইমস্কেল বিহীন সহকারী শিক্ষকদের (প্রশিক্ষণ) বর্তমান প্রারম্ভিক স্কেল ১০২০০ টাকা, গ্রেড ১৪তম। স্কেল বৈষম্য: ২৩০০০-১০২০০= ১২৮০০ টাকা। গ্রেড বৈষম্য: ৬ ধাপ নিচে।

প্রশিক্ষণ বিহীন সহকারী শিক্ষকদের বর্তমান প্রারম্ভিক স্কেল ৯৭০০ টাকা, গ্রেড ১৫তম। স্কেল বৈষম্য: ২৩০০০-৯৭০০= ১৩৩০০ টাকা। গ্রেড বৈষম্য: ৭ ধাপ নিচে। প্রধান শিক্ষকদেরকে করসপন্ডিং সুবিধা দেয়া হলে তিনটি টাইমস্কেল প্রাপ্তদের বেতন স্কেল নির্ধারণ হবে ২৩০০০ টাকায়। এতে সহকারী শিক্ষকদের সাথে সর্বোচ্চ স্কেল বৈষম্য হবে ১৩৩০০ টাকা এবং গ্রেড বৈষম্য হবে ৭ ধাপ।

শুধু তাই নয়, সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী ২০১৬ সালের জুলাই থেকে ২৩০০০ টাকা স্কেলের সাথে অন্যান্য সুযোগ সুবিধা যুক্ত হলে বেতন পার্থক্য হবে আকাশ-পাতাল। সহকারী শিক্ষকরা করসপন্ডিং এর বিরুদ্ধে নয়। কিন্তু তাদের দীর্ঘ দিনের দাবি প্রধান শিক্ষকদের সাথে বেতন বৈষম্য নিরসন না করে করসপন্ডিং সুবিধা দিয়ে বৈষম্য আরো বাড়িয়ে দিলে তা হবে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য আত্মঘাতী।

পরিশেষে বলব, সহকারী শিক্ষকরা হচ্ছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাণ। বিদ্যালয়ে পাঠদান থেকে শুরু করে অফিসিয়াল যাবতীয় কাজসহ প্রত্যেকটি কার্যক্রমে সহকারী শিক্ষকদের ভূমিকা অনস্বীকার্য।

তাই উপরোক্ত বিষয়াদি সুবিবেচনাপূর্বক প্রধান শিক্ষকদের করসপন্ডিং সুবিধা দেয়ার পাশাপাশি সহকারী শিক্ষকদের ব্যাপক বেতন বৈষম্য নিরসনের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সম্মানিত মহাপরিচালক ড. মোঃ আবু হেনা মোস্তফা কামাল মহোদয় স্যারকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য বিনীতভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।

লেখকঃ সহকারি শিক্ষক- গোজাকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

নালিতাবাড়ী, শেরপুর।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!