শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১২:২২ অপরাহ্ন

ক্ষতগুলো শুকাবার নয়, তবে এগিয়ে নেয়ার

ক্ষতগুলো শুকাবার নয়, তবে এগিয়ে নেয়ার

– মনিরুল ইসলাম মনির –
দীর্ঘ সতের বছর ধরে নগন্য সংবাদকর্মী হিসেবে লেগে আছি নানা অভিজ্ঞতা নিয়ে। অনেক প্রাপ্তির মাঝেও কিছু ক্ষত রয়ে যাচ্ছে, যা কোনদিন শুকাবার নয়। নিজেকে অনেক সফলতার মাঝে সৃষ্টি করলেও এসব ক্ষত প্রায়সই যন্ত্রণা দিয়ে বেড়ায়।
এসএসসি পাশের পর শখের সাংবাদিকতা শিখতে এসে পড়াশোনার অধ্যায় শেষ করেছি। মনের তৃপ্তির জন্য এলএলবি কোর্সটাও সেড়েছি বছর দেড়েক হলো। সরকারী-বেসরকারী বেশ কয়টি প্রশিক্ষণের পাশপাশি কাজ করতে গিয়ে মিলেছে নানা ধরণের অভিজ্ঞতা। যদিও এখনও অনেকটা অজ্ঞ এ পেশায়। তথাপিও কাচা হাতের শক্ত লেখায় পরিবর্তন আনতে পেরেছি অসংখ্য জায়গায়। বরাই করেই বলব, অন্যায়-অনিয়মের বিরুদ্ধে স্থানীয়ভাবে কেউ আমার চেয়ে বেশি লড়েছেন বলে পাঠক মনে করে না, আমি তো নই-ই। যে বয়সে কাঁপুনি হাতে কলম থাকার কথা সে বয়সে একান্তই নিজের প্রবল ইচ্ছায় নানা পাহাড় গলিয়ে আর অসংখ্য শুভাকাঙ্খীর সহযোগিতায় একটি পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক হওয়ার জায়গা নিতে পেরেছি। বিশেষত, যে উপজেলায় এর আগে কোন নিবন্ধিত সংবাদপত্র আলোর মুখ দেখেনি। অনেকটা বিশ্বাস নিয়েই বলতে পারি, ভুল-ভ্রান্তি যাই থাকুক; দেশের সর্বকনিষ্ঠ প্রকাশক ও সম্পাদকের ক্যাটাগরি তৈরি হলে আমার নামটিই লিখতে হবে। সংবাদ তৈরির কৌশলে খুব একটা পিছিয়ে থাকার কথাও নয়। অবশ্য এসব আমার অহংকারের বিষয় নয়, মনের জমাট বাধা ক্ষোভ থেকেই বেরিয়ে আসছে।
ওরা আমাকে মন থেকে দেখতে পারে না। পেশার শুরু থেকেই প্রতিনিয়ত এ প্রতিবন্ধকতায় পড়েছি। হয়ত অনেক সময় আমার কৌশলগত ভুল ছিল। কিন্তু ছোট ভাইয়ের মতো ভেবে সেগুলোকে শোধরে এগিয়ে নেওয়ার পরিবর্তে সুযোগ পেলে পেছনে বাঁশ ঠেলেছে অধিকাংশরাই। আর বরাবরই মহান আল্লাহর কৃপায় পেছনের পরিবর্তে সামনের স্থানটা দখল করে নিয়েছি। আমার অসংখ্য পাঠক আর শুভাকঙ্খী এর বড় সহায়ক।
যখন যেখানে তাদের মাধ্যমে কোন কর্মসূচীর আমন্ত্রণ হয়েছে তা আমার অগোচরে রয়ে গেছে। যেখানে সংবাদ করে তোলপাড় করেছি, সেখানে পেছন থেকে ইন্ধন দিয়ে আমাকে ঝামেলায় জড়ানোর অপচেষ্টা করা হয়েছে। বিশেষ কোন ইভেন্টে যোগদান করলে নানা কৌশলে আমাকে আড়াল করে রাখা হয়েছে, আজও হচ্ছে। পেশাগত কাজে গিয়ে আমার উপর হামলা হলে তারা আড়ালে হেসেছে। একটি সংবাদ পর্যন্ত তাদের কাছে আজও প্রত্যাশা করতে পারিনি। সুযোগ পেলে প্রশাসন এমনকি রাজনৈতিক নেতাদের কাছে আমাকে ছোট করে উপস্থাপন করা হয়েছে। যতবার সম্মান করে নিজের মনের শ্রদ্ধাঘরে জায়গা দিয়েছি, তারপরই অজান্তে হোচট খেয়েছি। প্রয়োজনের সময় সংবাদ দিয়ে যতোদিন সহযোগিতা করেছি, প্রয়োজন ফুরালে আমাকে পাশ কেটে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। সামনে এলে একজন বলিষ্ঠ সংবাদকর্মীর তক্বমা লাগিয়ে প্রশংসা করলেও পেছনে নিছক একজন বালক ব্যতীত কিছুই নয় তাদের কাছে। বাংলার কাগজ নিবন্ধনের সময় প্রশাসনের কাছে গিয়ে আমার নামে যথেষ্ট বদনাম করা হলো, পদে পদে বাধা দেওয়া হলো। ফলাফল হলো, ষড়যন্ত্রকারীরা শুন্য আমার খাতায় পরিপূর্ণ।
গেল বছর পৌরসভার উদ্যোগে ভলিবল টূর্ণামেন্ট সম্পন্ন হলো। ফাইনাল খেলার দিন আমার অফিসের সামনেই যখন আয়োজন চলছিল তখন মেয়র সাহেব আমাকে খেলায় থাকার কথা বললেন। আমি বললাম, আমি তো আমন্ত্রণই পাইনি। কারণটা ছিল, ওই খেলার ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে ওইসব মহান ব্যক্তিরাই ছিলেন। শুরুর দিকে কোন এক সময় একজন সিনিয়রের সঙ্গে এনডিসি’র বাসভবনে গিয়েছিলাম। আমার পরিচয় জানতে চাইলে জনাব সিনিয়র আমার পরিচয় গোপন করে পাশ কেটে যান। পরে অন্যজন প্রকাশ করেন। কোন এক সময় বয়সে সিনিয়রদের সাথে তাদেরই পরামর্শে একটি ঘটনাস্থলে গিয়ে অনাকাঙ্খিত হামলার শিকার হই। পালিয়ে তারা বেঁচে গেলেও আমার খোঁজ তো দূরের কথা, পরদিন সংবাদপত্রে একটি সংবাদ লিখতেও তাদের কলমের কালি শেষ হয়ে গিয়েছিল। এভাবে বহু ঘটনার ক্ষত মনের গভীরে না শুকিয়ে যন্ত্রণা দেয়।
সবশেষ আজ শুক্রবার (২৮ সেপ্টেম্বর)। যদিও আগে থেকেই সংবাদ পেয়েছিলাম, আমাদের নালিতাবাড়ীর গর্ব নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব আব্দুস সামাদ ফারুক আসছেন। কিন্তু প্রপার ওয়েতে বিষয়টি না জানায় আগ্রহ নেই। আমি আবার এসব বিষয়ে আগ বাড়িয়ে উৎসাহী নই। একজন সংবাদকর্মীর এসবে উৎসাহ থাকতে নেই। থাকবে সম্ভাবনা আর সমস্যার ক্ষেত্রে। কোন ইভেন্ট বা কোন নেতা-আমলার পরিদর্শন/সফরে বেশি আগ্রহটা সাংবাদিকতার ছোট একটা অংশ হতে পারে; জরুরী নয়। তাই আমলে নেইনি। দুপুরে জনাব আব্দুস সামাদ সাহেবের কোন এক ঘনিষ্ঠ সূত্র আমাকে সন্ধ্যায় তার মতবিনিময়ে থাকার অনুরোধ করলেন। বললেন, ‘তারা তো তোমায় জানাবে না। আমি জানালাম। তুমি ওতে থাকবে।’ আমি শুধুমাত্র কথা রাখতে সন্ধ্যায় জরুরী কাজ থাকা সত্ত্বেও উপজেলা পরিষদের হলরুমে গিয়ে ঘন্টা খানেকের মতো সময় অংশ নেই। পরে শেষ না করেই চলেও আসি। মনে হচ্ছিল, ব্যক্তি বিশেষ আমার উপস্থিতি নিয়ে মনে মনে যথেষ্ঠ জল্পনা আঁকছিলেন।
নালিতাবাড়িতে প্রেসক্লাব নিয়ে যে বিভাজন, তাও ব্যক্তি বিশেষের জন্যই। পাছে নেতৃত্ব হারানোর ভয় তাড়িয়ে বেড়ায় কি না। আজ সিনিয়ররা থাকার পরও আমরা জুনিয়ররা চার ভাগে বিভক্ত। আবার ওইসবের মাঝেও রয়েছে একাধিক বিভক্তি। যা আমাদের পেশার জন্য কখনই সুখকর নয়।
তবে এতসবের মাঝে আবার আনন্দের খোড়াকও আছে। অনেকেই বয়সে সিনিয়র হওয়ায় পেশাগতভাবেই সিনিয়র হওয়ার প্রচারে আর ভাবে আছেন। আমিও তাদের সে সম্মান দিয়েই বেড়াই। কেন নয়, তারা এতে বেশ আগ্রহী।
আমি জানি, আমার এ লেখায় কারও কারও গায়ে কাঁটা ফুটবে। অবশ্য এতে আমার আসে যায় না। কথায় আছে, ‘ছায়াকে যা দেখানো হয় ছায়া তাই রিপ্লাই করে’। আজ আমরা তাদের কাছে শিখছি। হয়তো সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন ইতিহাস তাদের মুছে ফেলবে। চতূরতা করে সাময়িক নিজেকে উপরে উঠালেও খুব অল্প সময়েই সেটা ‘তৈলাক্ত বাঁশ বেয়ে উপরে উঠা বানর’ এর মতোই হয়
আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, চতূরতা আর সংকীর্ণতা কখনই কাউকে স্থায়িত্ব এনে দেয় না। সকল সংকীর্ণতার উর্ধে উঠে যারা অন্যের জন্য পথ প্রশস্ত করে দেন তারাই একমাত্র ইতিহাসের পাতায় মিশে থাকেন। আমাদের মনে রাখতে হবে, অনুজদের জন্য এক সময় পথ ছেড়ে দিতে হয়। এর বাইরে যে মহানুভবতা তা মহানুভবতা নয়, মহানুভবতার লেবাস মাত্র। আর এ কারণেই আমি তাদের দ্বারা বেদনাহত হলেও আশাহত হই না। ক্ষত না শুকালেও সে ক্ষত একদিন সফলতার সিঁড়িতে আমাকেই পৌছাবে, তাদের নয়। ইতিহাস বরই নির্মম।
আমি জানি, এগুলো বলে কোন লাভ নেই। মনের গভীরটা হালকা করলাম মাত্র। যে যার অবস্থানে চিরকালই থাকবেন। আমরা মূল স্বভাব থেকে কখনও বেড়িয়ে আসতে পারি না, পারবও না। আল্লাহ যেন আমাকে ওইসব সংকীর্ণতার উর্ধে রাখেন- এমন প্রত্যাশা করি।

লেখক- প্রকাশক ও সম্পাদক, বাংলার কাগজ
প্রধান নির্বাহী- চ্যানেল বাংলা, জেলা প্রতিনিধি- চ্যানেল নাইন

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com