শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১২:৫২ অপরাহ্ন

প্রাথমিক শিক্ষার ইতিহাস

প্রাথমিক শিক্ষার ইতিহাস

– ফরিদ আহাম্মদ –
প্রাথমিক শিক্ষা অবিভক্ত ভারতবর্ষের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের ভৌগোলিক সীমারেখার মধ্যে প্রচলিত প্রাথমিক শিক্ষার আনুষ্ঠানিক প্রচলন কখন কোথায় প্রথম শুরু হয় তা বলা বেশ কঠিন। ঋগবেদ রচিত হওয়ার কালে, অর্থাৎ আনুমানিক ৩০০০ বছরেরও পূর্বে এ উপমহাদেশে আনুষ্ঠানিক শিক্ষার বীজ রোপিত হয় যা কালের আবর্তনে পরিবর্তিত হয়ে বর্তমান অবস্থায় উপনীত হয়েছে। আনুষ্ঠানিক শিক্ষা প্রচলনের প্রথম পর্যায়ে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের মাঝে কোনো সুস্পষ্ট সীমারেখা ছিল না। তাই আলাদাভাবে সে সময়ের প্রাথমিক শিক্ষার বর্ণনা করা খুবই কঠিন হলেও প্রাসঙ্গিক বিভিন্ন তথ্যের ওপর ভিত্তি করে উপমহাদেশের প্রাথমিক শিক্ষার ঐতিহাসিক পটভূমি নির্মাণ করা সম্ভব।
প্রাচীন যুগে শিক্ষার মূল লক্ষ্য ছিল আত্মার উন্নতি সাধন। যার জন্য প্রয়োজন হতো সাধনা, চিন্তা ও আত্মসংযম। ঐতিহাসিকদের মতে বৈদিক যুগে এদেশে বিশেষ এক ধরণের প্রাথমিক শিক্ষার প্রচলন ছিল। এ ধারণা অনুসারে প্রাক বৈদিক যুগেও শিক্ষার প্রচলন ছিল তবে তা ছিল একান্তই মন্দির কেন্দ্রিক। সেখানে পুরোহিতদেরই শুধু জ্ঞান চর্চার অধিকার ছিল এবং তারা পূজা-অর্চনার বিষয়েই মূলত শিক্ষা গ্রহণ করত।
মধ্যযুগে হযরত মুহাম্মদ (স.)-এর নবুয়ত প্রাপ্তি এবং ইসলাম ধর্মের প্রচার সাত শতকে আরবদের মাঝে এক নবজাগরণের সূচনা করে যার ফলশ্রুতিতে পরবর্তী ১০০ বছরে আরব সভ্যতা বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর প্রেরণা পায়। খ্রিস্টীয় আট শতকে সিন্ধুরাজ দাহিরকে পরাজিত করে মোহাম্মদ বিন কাশিমের সিন্ধু বিজয়ের মাধ্যমে ভারতভূমিতে প্রথম মুসলিমদের আগমন ঘটে। উত্তর-পশ্চিম ভারতে মোহাম্মদ বিন কাশিম কর্তৃক মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠিত হলেও বাংলাদেশে মুসলিম শাসন শুরু হয় ১২০৪ খ্রিস্টাব্দে বখতিয়ার খলজী কর্তৃক নদীয়া জয়ের মাধ্যমে। সে সময়ে বখতিয়ার খলজী দেশের বিভিন্ন স্থানে মসজিদ, মক্তব ও মাদ্রাসা স্থাপন করেন। বখতিয়ার খলজীর পরবর্তী মুসলিম শাসকগণও মসজিদ, মক্তব ও মাদ্রাসার মাধ্যমে শিক্ষাবিস্তারের এই পদ্ধতি অনুসরণ করেন।
ইংরেজ শাসনামলে অবিভক্ত ভারত দু’ভাগে বিভক্ত ছিল। প্রথম ভাগে শাসন পরিচালনা করে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এবং দ্বিতীয় ভাগে ইংরেজ সরকার সরাসরি শাসন পরিচালনা করেন। ইংরেজ শাসনামলের প্রথম দিকে বিশেষ করে ইস্ট-ইন্ডিয়া কোম্পানির আমলে এদেশে প্রাথমিক শিক্ষাক্ষেত্রে তেমন কোনো অগ্রগতি সাধিত হয়নি। তখন প্রাথমিক শিক্ষা বিস্তারের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে তেমন কোনো আর্থিক বরাদ্দও ছিল না। শিক্ষার জন্য যে বরাদ্দ হতো তার সিংহভাগই ব্যয় হতো মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে। প্রাথমিক শিক্ষার দায়িত্ব অর্পিত ছিল স্থানীয় স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলির উপর।
১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্তির ফলে পাকিস্তান ও ভারত নামে দুইটি রাষ্ট্রের জন্ম হয় এবং বর্তমান বাংলাদেশ তখন পূর্ববঙ্গ নামে পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়। ১৯৪৮ সালে কেন্দ্রীয় সরকার ফজলুর রহমান শিক্ষা উপদেষ্টা কমিটির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে পূর্ববঙ্গে (বাংলাদেশ) প্রাথমিক শিক্ষা চার বছরের পরিবর্তে পাঁচ বছরে অর্থাৎ পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত উন্নীত করে এবং অবৈতনিক বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা প্রবর্তনের উদ্দেশ্যে একটি দশ বছর মেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করে। পরবর্তীকালে ১৯৫২ সাল থেকে পঞ্চম শ্রেণিতে ‘প্রাথমিক বৃত্তি’ পরীক্ষারও ব্যবস্থা করা হয়।
বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর গঠিত ১৯৭২ সালের সংবিধানে শিক্ষাকে নাগরিকদের মৌলিক অধিকার হিসেবে উল্লেখ করা হয়। সংবিধানের ১৫ (ক), ১৭ এবং ২৮ (৩) নং আর্টিকেলে বাংলাদেশের নাগরিকদের শিক্ষার প্রতি রাষ্ট্রীয় দায়িত্বসমূহ বর্ণনা করা হয়েছে। দেশের উন্নয়ন পরিকল্পনায়, বাংলাদেশ সরকার সে সময়ে প্রাথমিক শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দেয়। প্রাচীন শিক্ষাব্যবস্থার পরিবর্তন এবং স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের উপযোগী সমাজগঠনমূলক একটি সার্বিক শিক্ষাব্যবস্থার রূপরেখা প্রণয়নের উদ্দেশ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক গৃহীত প্রস্তাব অনুযায়ী ১৯৭২ সালের ২৬ জুলাই প্রখ্যাত বিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদ ড. কুদরাত-এ খুদাকে সভাপতি করে শিক্ষা কমিশন গঠনের জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয় যা ১৯৭৪ সালের মে মাসে ‘বাংলাদেশ শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট’ নামে প্রকাশিত হয়। এটি পরবর্তীকালে ড. কুদরাত-এ-খুদার নামানুসারে ‘ড. কুদরাত-এ-খুদা শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট’ নাম রাখা হয়। এই কমিশনে প্রাথমিক শিক্ষাকে ১৯৭৬ সাল থেকে ক্রমধারায় ১৯৮৩ সালের মধ্যে প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত বাধ্যতামূলক করার সুপারিশ করা হয়
১৯৮১ সালে প্রাথমিক শিক্ষাক্ষেত্রে একটি আইন প্রণয়ন করা হয় যা ‘প্রাথমিক শিক্ষা আইন-১৯৮১’ নামে পরিচিত। এই আইনের অধীনে মহকুমা পর্যায়ে স্থানীয় শিক্ষা কর্তৃপক্ষ (Local Education Authority) গঠন করা হয় এবং প্রাথমিক শিক্ষায় পরিচালনা, নিয়ন্ত্রণ, প্রশাসন ও তত্ত্বাবধান স্থানীয় শিক্ষা কর্তৃপক্ষের উপর ন্যস্ত করা হয়। তবে দুর্ভাগ্যবশতঃ আইনটি বাস্তবায়নের পূর্বেই বাতিল হয়ে যায়। ১৯৮২ সালে প্রশাসনিক পুনর্গঠন ও বিকেন্দ্রীকরণ অর্ডিন্যান্স জারির ফলে ১৯৮৩ সালে মহকুমা বিলোপ করে থানাকে উপজেলা পর্যায়ে উন্নীত করা হয় এবং উপজেলা প্রশাসন বিকেন্দ্রীকরণের ভিত্তিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রশাসনিক আদেশ বলে দেশের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব উপজেলা পরিষদের হাতে ন্যস্ত করে। তখন উপজেলা প্রশাসনের অধীনে প্রাথমিক শিক্ষার প্রশাসন, কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে উপজেলা পরিষদের নিয়ন্ত্রণে প্রেরণ করা হয়।
১৯৯০ সালে জাতীয় সংসদ কর্তৃক ‘প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক আইন’ গৃহীত হয় এবং ঐ বছর ১৩ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতির সম্মতি লাভের মাধ্যমে বাংলাদেশ গেজেটের এক অতিরিক্ত সংখ্যায় বিজ্ঞাপিত হয়। ১৯৯২ সালে ১ জানুয়ারি থেকে সারা দেশের ৬৮টি থানায় বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা প্রবর্তন করা হয়। এছাড়া ১৯৯০ সালে বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা আইনটির বাস্তবায়ন ও মনিটরিং ইউনিট (Compulsary Primary Education Implementation Monitoring Unit-CPEIM) গঠিত হয়। প্রাথমিক শিক্ষার কাঠামোকে শক্তিশালী করা, সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিতকরণ এবং নিরক্ষরতা দূরীকরণের লক্ষ্যে ১৯৯২ সালের আগস্টে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগ (Primary and Mass Education Division-PMED) নামে একটি নতুন বিভাগ গঠিত হয়।
২০০৩ সালে ‘প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগ’ মন্ত্রণালয়ে পরিবর্তিত হয়ে ‘প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়’ (Ministry of Primary and Mass Education- MOPME) এ পরিণত করা হয়। এই মন্ত্রণালয়ের প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সরকারের সচিব।
বাংলাদেশে এ পর্যন্ত গঠিত অধিকাংশ জাতীয় শিক্ষা কমিশন ও জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন কমিটি ৫ বছরের স্থলে ৮ বছর মেয়াদী প্রাথমিক শিক্ষা প্রবর্তনের সুপারিশ করে আসছে। এছাড়াও জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এ প্রাথমিক শিক্ষার উপরে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেন যেখানে ৮ বছর মেয়াদী প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হয়।
তাদের মতে, প্রাথমিক শিক্ষা দেশের বিরাট সংখ্যক শিক্ষার্থীর জন্য সমাপনী স্তর। এই স্তরের উপযোগী শিক্ষা গ্রহণের পর বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীকে জীবন ও জীবিকার জন্য বিভিন্ন পেশা গ্রহণসহ শ্রমবাজারে প্রবেশের চিন্তা করতে হয়। ফলে ৮ বছর মেয়াদী প্রাথমিক শিক্ষা তাদের জীবনে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যায়। তবে দেশিয় সম্পদের সীমাবদ্ধতা এবং ব্যবস্থাপনাগত অসুবিধা ইত্যাদি বিবেচনায় রেখে বাংলাদেশে আপাতত সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়কে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত উন্নীত করা সম্ভব না হলেও প্রতিটি উপজেলায় কিছু বিদ্যালয়কে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত চালু করা হয়েছে।
আশাকরি, একটি যৌক্তিক সময়ের মধ্যেই দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়কে ৮ম শ্রেণিতে উন্নীত করা হবে। তথ সংগ্রহঃ বাংলাপিডিয়া
লেখকঃ সহকারি শিক্ষক
গোজাকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নালিতাবাড়ী, শেরপুর।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com