বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:০২ অপরাহ্ন

হতে চেয়েছিলাম রাখাল, হয়ে গেলাম শিক্ষক

হতে চেয়েছিলাম রাখাল, হয়ে গেলাম শিক্ষক

মৌখিক পরীক্ষার শেষে সম্ভবত এক/দেড় মাস পর আমাদের গ্রামে ওয়ার্ল্ড ভিশন অফিসে বসে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিচ্ছিলাম। এমন সময় আমার এক প্রতিবেশি মামা আব্দুর রহমান আমার কাছে দৌড়ে গেল। আমি তার দৌড় দেখে ভয় পেয়ে গেলাম। জিজ্ঞেস করলাম, “কি হয়ে হয়েছে?” সে হাপাতে হাপাতে উত্তর দিল, “মামা আপনার চাকরি হয়েছে। আপনার এক বন্ধু আপনাদের বাড়ীতে খবর নিয়ে এসেছে।”
আব্দুর রহমান আমার চেয়ে বয়সে ছোট। সে বর্তমানে ঢাকা ইউনিভার্সিটি হতে স্নাতকোত্তর শেষ করে চাকরির চেষ্টা করছে। আশাকরি, তার একটি ভালো চাকরি হবে।
যাই হোক, রহমানের সাথেই বাড়ীতে গেলাম। বাড়ীতে গিয়ে দেখি, আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু জমির মিষ্টি নিয়ে এসেছে। তাঁর কাছ থেকেই আব্বা আম্মা সবার আগে আমার চাকরি হওয়ার খবর পেলেন। সেদিন আমার মনে হয়েছিল, সন্তান জন্মের কথা শোনে বাবা মা যে আনন্দ পান, সন্তানের চাকরি হওয়ার কথা শোনেও তার চেয়ে বেশি আনন্দ পান।
২০০৩ সালের ৪ জুন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক হিসেবে যোগদান করলাম। আমার পোস্টিং হল আমাদের বাসা হতে প্রায় ১৪ কিঃ মিঃ দূরে পাহাড়ি অঞ্চল বেলতৈল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। প্রথম দিন স্কুলে গেলাম, আব্বা ও আমার বন্ধু জমিরের সাথে রিক্সা দিয়ে। দ্বিতীয় দিন প্রচন্ড গরমের মধ্যে সাইকেল দিয়ে ১৪ কিঃ মিঃ রাস্তা অতিক্রম করে স্কুলে গিয়ে কিছুটা অসুস্থ হয়ে গেলাম। আমার এ্যালার্জির সমস্যা আছে। তাই স্কুলে শেষে বাসায় ফিরে দেখি, আমার সারা শরীর লাল হয়ে গেছে। কয়েক দিন এভাবে কষ্ট করে যাওয়া-আসা করলাম। কিন্তু আমার জন্য এটা ছিল খুবই কষ্টকর। তাই বাধ্য হয়েই আব্বাকে বললাম, আমাকে মটরসাইকেল (বাইক) কিনে না দিলে প্রতিদিন সাইকেল চালিয়ে এভাবে স্কুলে যাওয়া সম্ভব নয়। আব্বা হয়তো ভেবেছিল, আমি এমনিতেই বলেছি। কিন্তু দুই দিন স্কুলে না গিয়ে যখন বাসায় বসে থাকলাম তখন আব্বা হয়তো বুঝতে পেরেছিলেন, বাইক কিনে না দিলে কাজ হবে না। তাই তৃতীয় দিন বাইক কিনে দিলেন এবং আমি নতুন গাড়ী নিয়ে চতুর্থ দিন স্কুলে গিয়ে তিন দিনের নৈমিত্তিক ছুটি নিয়ে নিলাম। এক সপ্তাহ পরেই আমাকে বগাইচাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডেপুটেশন দেয়া হলো। সেখানে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে পেলাম আব্বার বন্ধু মতিউর স্যারকে। তিনি একজন অমায়িক মানুষ। তিনি আমাকে এতই আপন করে নিয়েছিলেন তা কখনো ভুলার নয়। আমি যাওয়ার তিন মাস পরেই মতিউর স্যার অবসরে চলে গেলেন। তখন বগাইচাপুর স্কুলে আর নিজস্ব কোন শিক্ষক ছিল না। ডেপুটেশন প্রাপ্ত আমি একমাত্র শিক্ষক হিসেবে একটি বিদ্যালয় পরিচালনা করা কত কঠিন তা আমি হারে হারে টের পেয়েছি। এভাবেই এক বছর পার করলাম। এর মধ্যেই হাফিজুর রহমান স্যার পদোন্নতি পেয়ে বগাইচাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করলেন। তাঁর কাছে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে আমার মূল স্কুলে বেলতৈল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পুনরায় যোগদান করলাম। সেখানে কিছুদিন চাকরি করার পর আবার আমাকে ডেপুটেশন দেয়া হলো বন্ধধরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। সেখানে তিন মাস শিক্ষকতা করার পর জামালপুর পিটিআইতে সিইনএড প্রশিক্ষণে চলে গেলাম। ২০০৫-০৬ শিক্ষা বর্ষে সিইনএড প্রশিক্ষণ শেষ করে পুনরায় বেলতৈল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করলাম। সেখানে প্রায় দেড় বছর চাকরি করার পর ২০০৮ সালে আমার বাসা হতে ৫ কিঃ মিঃ দূরে গোজাকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন পদ সৃষ্টি (পদ সমন্বয়) করে বদলী হয়ে চলে আসলাম। বর্তমানে আমি এই স্কুলেই কর্মরত আছি।
২০১৪ সালে প্রথম বিভাগে বিএড এবং ২০১৭ সালে প্রথম বিভাগে এমএড কোর্স সম্পন্ন করেছি। এখন শিক্ষকতা পেশাকে আমি মনে-প্রাণে গ্রহণ করেছি। এটাই আমার ধ্যান-জ্ঞান।
নালিতাবাড়ী উপজেলায় আমাদের পরিবার শিক্ষক পরিবার হিসেবে সুপরিচিত। আমার আব্বা একজন অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। আমরা তিন ভাই এক বোন। আমার ইমিডিয়েট ছোট ভাই জাফর আহাম্মদ একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে। তার ছোট জোবায়ের আহাম্মদ গাছগড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। ছোট বোন জান্নাতুন নাঈম সেও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। আমার স্ত্রী সানজিদা বেগম গোজাকুড়া হাতেমিয়া সরকারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। আমার স্ত্রীর একমাত্র ছোট বোন সালমা জাহান বড়ডুবি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। আমার নিকট আত্মীয়-স্বজনের মধ্যে ৩৪ জন শিক্ষকতা পেশার সাথে জড়িত।
পরিশেষে বলব, আমার আব্বা একেএম আব্দুল গণি ছিলেন একজন আদর্শ শিক্ষক।আমি তাঁকে অনুসরণ করি। জীবনের বাকী দিনগুলো যেন একজন আদর্শ শিক্ষক হিসেবে অতিবাহিত করতে পারি, সবার কাছে দোয়া চাই।
লেখক : সহকারি শিক্ষক
গোজাকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নালিতাবাড়ী, শেরপুর।
Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com