শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১২:২৩ অপরাহ্ন

অব্যক্ত কথা ও সমালোচকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা

অব্যক্ত কথা ও সমালোচকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা

– মনিরুল ইসলাম মনির –
কিছু কথা পাবলিক প্লেসে বলে ফেলি। তবে কিছু কথা রয়েও যায়। কিছু সমালোচককে নিয়ে নিজের প্রতিই কষ্ট হয়, কষ্ট হয় তাদের প্রতিও। তবে ঘৃণা করি না, চেষ্টা করি দূরে থাকতে। আবার কখনও কখনও কিছু সমালোচনা অন্তরের জানালা খুলে দেয়। কখনও বা অব্যক্ত কথাগুলোও বলিয়ে দেয়।
সম্প্রতি কোন এক জাতীয় দৈনিকে আমার আগের কর্মস্থল থেকে একজন গুরুদায়িত্বপূর্ণ মানুষ যোগদান করেন। তিনি কোনভাবে জানতে পারেন যে, জেলায় যিনি রয়েছেন তিনি ইনেক্টিভ। নালিতাবাড়ী উপজেলা শুন্য। তাই হয়ত আমার অজান্তেই তিনি তার অধীনস্থ কর্তৃপক্ষকে আমার বিষয়ে কথা বলেন। বলে রাখা ভালো, তার সাথে খুব বেশি পরিচয় না থাকলেও তার সাথে আমার কাজের পরিচয় ছিল বেশ। যাহোক, ওই সিনিয়রের কথামতো হঠাৎ আমাকে ফোন করা হলো। বলা হলো, ‘অমুক অফিস থেকে বলছি, আপনি কি অমুক’? আমি ‘জ্বি’ বলায় তারা বললেন, আমাদের এখানে কাজ করবেন কি না? আমি বললাম, খালি আছে কি? তারা বললেন, আছে। তবে জেলায় করবেন? নাকি উপজেলায়? আমার জানামতে, জেলায় একজন রয়েছেন (যদিও প্রায় ইনেক্টিভ)। তাই প্রতিযোগিতায় যেতে চাই না। তখন বলা হলো, তবে উপজেলায় কাজ করেন। আমি বললাম, এখানেও কি কেউ নেই? তিনি বললেন, না নেই। কিছুটা ভেবে সম্মতি দিলাম। এরপর মেইল এড্রেস মেসেজ করে পাঠিয়ে সিভি জমা দিতে বললেন। আমি পাঠালাম। দুইদিন পর ফোন এলো মানব সম্পদ বিভাগ থেকে। আপনাকে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। ভালোভাবে কাজ করবেন।
ব্যাস। এর এক সপ্তাহ পর শর্তসাপেক্ষে নিয়োগপত্র পেলাম। সেখানে যোগদান করার কথাও বলা হয়েছে। আমি একটু ভেবে নিচ্ছিলাম, যোগদান করব কি না? তাই ফেসবুকে পোস্ট দিলেও যোগদানপত্র স্বাক্ষর না করে নিজের কাছেই রেখে দিয়ে ভাবছিলাম। এরইমধ্যে একজন শুভাকাঙ্খী আমার পোস্ট এর কমেন্টস বক্সে আমাকে ঠাট্টা করেই ‘সম্পাদক থেকে উপজেলা প্রতিনিধি হলাম’ বলে মন্তব্য করে বসলেন। বিষয়টি ভাবার মতো হলেও অনেক সময় বিজ্ঞাপনসহ পেশাগত নানা কারণে জাতীয় পত্রিকা হাতে থাকতে হয় বিধায় সে সমালোচনায় তখন দৃষ্টি দেইনি।
কয়েকদিন পর অপর সহকর্মী নিজেকে ওই পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে ঘোষণা দিয়ে তার মারফত প্রকাশিত একটি সংবাদ কাটিংও ফেসবুকে পোস্ট দিলেন। বলে রাখা ভালো যে, সংবাদ প্রচার হওয়া আর নিয়োগ হাতে পাওয়ার মাঝে আকাশ-পাতাল ব্যবধান থাকে। তিনি হয়ত কিছুদিন আগে জেলা প্রতিনিধির সুপারিশ নিয়ে মফস্বল ডেস্কের সাথে যোগাযোগ রেখে আসছিলেন। যা আমি আজও করিনি। যাহোক, আমার কাছে নানাভাবে কথাটি এলো। তিনিও আমাকে সম্পাদক থেকে উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে কিছুটা সমালোচনাই করে বসেছেন। এবার ভেবে বসলাম, আমার দ্বারা তো এসব হবে না। যারা আমাকে প্রতিযোগী ভাবছেন, আসলে আমি প্রতিযোগী ভাবি না। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট পত্রিকার অফিসিয়াল জটিলতা আর সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধির ব্যর্থতা। আমি বারবার জানার চেষ্টা করেও ওই পত্রিকা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পদটি শুন্য বলে জানানো তাদেরই ব্যর্থতা। এখানে আমার কার্পন্যতা বা প্রতিযোগিতা করার বিষয় নেই। প্রতিযোগিতা তো তখন করেছিলাম, যখন হাতে কোন জাতীয় পত্রিকা ছিল না। পেশার শুরুতে দুই বছর প্রতিযোগিতা করে আমার দেশ-এ প্রথম নিয়োগ পেয়েছিলাম। একটি চ্যানেলে দুই বছর প্রতিযোগিতা করে শেষমেস ৫০ হাজার টাকা ঘুষ চাওয়ায় পিছিয়ে এসেছি। এরপর থেকে জীবনে কোন জাতীয় সংবাদপত্র বা টিভি চ্যানেলে প্রতিযোগিতা লাগেনি ইনশাআল্লাহ। সিভি জমা দিয়ে ইন্টারভিউ দিয়েছি, আর নিয়োগ হয়ে গেছে। এরমধ্যে অর্ধেকই আবার অফিস থেকে যোগাযোগ করে সিভি চাওয়া হয়েছে আর বিনা ইন্টারভিউয়ে আমাকে নির্বাচন করা হয়েছে। তাও আবার জেলা পর্যায়ে।
কাজেই একটি নিবন্ধিত সংবাদপত্রের প্রকাশক ও সম্পাদক হওয়ার পাশাপাশি একটি প্রতিষ্ঠিত জাতীয় টিভি চ্যানেলে তাদের প্রদানকৃত মাসিক সুযোগ-সুবিধা নিয়ে চাকুরী করার পর আর আগ্রহ থাকার কথাও নয়। শুধুমাত্র পত্রিকা কর্তৃপক্ষের প্রস্তাবে এবং কখনও কখনও প্রয়োজন পড়ে বিধায় সম্মত হয়েছিলাম। কারও সাথে যোগাযোগ না করে ঘরে বসেই নিয়োগপত্র হাতে এসেছে। যেখানে যোগদান পর্যন্ত এখনও করিনি। সেখানে যখন কেউ আমাকে প্রতিযোগী ভাবেন, সেটাই লজ্জার!
আমি জানি, যেহেতু নিয়োগপত্র কর্তৃপক্ষ দিয়েছেন, কাজেই কাজের সুযোগ অবশ্যই রয়েছে। যে যাই বলুক। নিয়োগপত্র হাতে থাকার ফলে ইচ্ছা করলে ওই পত্রিকা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অধিকারের মামলায়ও যেতে পারি। কিন্তু কেন? একটি পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি হতে? যারা প্রতিযোগী নয়, তাদের সাথে প্রতিযোগিতা করতে? অসম্ভব! যার কারণে কথাটি শোনামাত্রই নিজের প্রতিই ঘৃণার জন্ম নিয়েছে! আমি এখনও ওইসব সহকর্মীর সাথে প্রতিযোগিতা করব? তাৎক্ষণিক অফিসে ফোন করে আমার যোগদানের অসম্মতি জানিয়ে দিয়েছি। আর ভাবছি, যেভাবেই বলা হোক, সমালোচকরা ভালোই বলেছেন। এ নিয়োগটাই আমার জন্য লজ্জাজনক! যেখানে আজ পর্যন্ত চারটি জাতীয় দৈনিকে জেলা প্রািতনিধি হিসেবে কাজের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছিল। সেখানে উপজেলা তো সত্যিই বেমানান! আশাকরি, পরবর্তী সময়ে আরও কোন ভালো পত্রিকা বের হলে একইভাবে ডেকে নিয়েই কাজ দিবেন কর্তৃপক্ষ। সকলের দোয়ায় ইনশাআল্লাহ এতটুকু অর্জন তো করতেই পেরেছি। সবশেষে সমালোচকদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আর বলে রাখছি, আমাকে প্রতিযোগী ভাবার কারন নেই। এ বিষয়ে অফিসে কথা বলে নিলে ভালো হয়।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com