বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:০৯ অপরাহ্ন

একজন শিক্ষকের গল্প : যে বিদ্যালয়ের পাঠ চলে সন্ধ্যা পর্যন্ত!

একজন শিক্ষকের গল্প : যে বিদ্যালয়ের পাঠ চলে সন্ধ্যা পর্যন্ত!

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : সন্ধ্যা সোয়া পাঁচটা। চারদিকে দিনের আলো নিভে রাতের আঁধার স্পষ্ট হয়ে উঠছে। নীড়ে ফিরছে পাখ-পাখালিরাও। মসজিদ থেকে ভেসে আসছে আজানের সুর। বিদ্যালয়ের সবক’টি কক্ষ তালাবদ্ধ। একটিমাত্র কক্ষ থেকে ফাঁকা মাঠে সামান্য আওয়াজ শিক্ষক-শিক্ষার্থীর। ভেতরে উঁকি দিতেই দেখা গেল প্রৌঢ়ত্বে পা দেওয়া একজন শিক্ষক পায়চারী করে বুঝাচ্ছেন শিক্ষার্থীদের। আধো আলো আধো আঁধারে বইপত্র নিয়ে বেঞ্চে বসে পাঠে মনযোগ ২৫জন শিক্ষার্থীর। দরজায় পা বাড়াতেই সবাই দাড়িয়ে সালাম জানাল। উত্তর নিয়ে শিক্ষার্থীদের বসে পড়ার অনুমোতি দিতেই চুপচাপ বসে গেল সবাই। শিক্ষকও যেন কিছুক্ষণ নিশ্চুপ। তিনি বুঝতেই পারছেন না, এই অবেলায় সংবাদকর্মীরা এখানে কেন? তারপর কথা হলো।
শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা গেল এর রহস্য! গত প্রায় ৯ বছর এ বিদ্যালয়ে প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় পাশের হার শতভাগ। এর আগ পর্যন্ত বিদ্যালয়টির ফলাফল ছিল হতাশ করার মতো। এলাকায় শিক্ষার আলো ছিল না বললেই চলে। তাই শুধুমাত্র প্রধান শিক্ষক নিজ উদ্যোগে বিদ্যালয় ছুটি ঘোষণার পর পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার মনোন্নয়নে বিনা খরচে অতিরিক্ত ক্লাস নিয়ে থাকেন। ২০০১ সালে যোগদানের পর বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ফলাফল হতাশাজনক দেখে গত ৯ বছর যাব তিনি সমাপনি পরীক্ষা ঘনিয়ে এলে অন্তত দুই মাস এভাবেই সন্ধ্যা পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়ান। ‘চাকুরী’ শেষ করে সব শিক্ষক বাড়ি ফিরলেও ‘শিক্ষকতা’ করতে তিনি রয়ে যান বিদ্যালয়ে। বাড়ি ফেরা হয় সন্ধ্যারাতে। যে বিষয়ে অপেক্ষাকৃত দূর্বল; বিশেষ করে, ইংরেজি ও গণিতে ক্লাস নিয়ে থাকেন তিনি। প্রয়োজন হলে অন্যান্য বিষয়ও শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে দেন। এতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরাও খুশি।
প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষার্থী ও এই ক্লাসের শিক্ষার্থী নিগার সুলতানা ছোঁয়া জানায়, এই স্যারের কাছে ক্লাস করে তাদের ভালো লাগে। স্যার তাদের ভালোভাবে বুঝিয়ে দেন।
সাজিত ইসলাম জানায়, স্যার এ জন্য কোন টাকা-পয়সা নেন না। পরীক্ষার সময় ঘনিয়ে এলে এভাবেই সবসময় তাদের ক্লাস নিয়ে থাকেন। এ জন্য তারা ভালো ফলাফল করতে পারে।
রাবিয়া খাতুন জানায়, গত দুই মাস যাবত স্যার তাদের ক্লাস নিচ্ছেন। সব স্যার-মেডাম চলে গেলেও এ স্যার তাদের বাড়তি ক্লাস নিয়ে থাকেন। এতে তাদের পড়াশোনা আরও ভালো হয়।
নির্মোহ এ শিক্ষক বিনয়ের সাথে জানান, এখানকার ছাত্র-ছাত্রীরা পড়ালেখায় দূর্বল। আমরা যদি একটু শ্রম না দেই তবে তারা ভালো রেজাল্ট করবে কিভাবে? ভালো রেজাল্ট করানো ও সবাইকে পাশ করানো আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য। আমি শুধুমাত্র দায়িত্ব পালন করি।

বলছিলাম, শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার যোগানিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হক এর কথা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইসলামের ইতিহাস বিষয়ে ফাস্ট ক্লাস থার্ড হয়ে এমএ উত্তীর্ণ হন তিনি। ১৯৯৪ সালে চাকুরী হয় প্রাথমিক শিক্ষক হিসেবে। হয়ত ইচ্ছের জোর বেশি থাকলে অনেক দূর এগুতে পারতেন। কিন্তু অনগ্রর এলাকার শিশুদের পাঠদানেই আত্মনিয়োগ করেন এ শিক্ষক। জীবনে কোথাও না তাকিয়ে নিরলসভাবে চাকুরী নয়, শিক্ষকতার মতো মহান পেশাকে তিনি বেছে নেন ব্রত হিসেবে। তাই তো মাত্র কয়েক বছরে বিদ্যালয় এলাকার চিত্র পাল্টাতে শুরু করেছেন তিনি। প্রতিবছর সরকার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচন করেন। সেবার ব্রতে আত্মনিয়োগকারী এ শিক্ষক কখনও নিজেকে সেরা বা শ্রেষ্ঠ হওয়ার প্রতিযোগিতায়ও দাড় করান না। নিরবে-নিভৃতে ভাঙ্গা-চোড়া রাস্তা পাড়ি দিয়ে প্রতিনিয়ত শিক্ষার আলো ছড়িয়ে যাচ্ছেন তিনি।

– মনিরুল ইসলাম মনির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com