বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২২ অপরাহ্ন

নালিতাবাড়ীতে কৃষিমেলা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

নালিতাবাড়ীতে কৃষিমেলা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : ‘সমাজ ভিত্তিক বীজ ভান্ডার গড়ে তুলি, ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত দেশ গড়ি’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে সোমবার (১৯ নভেম্বর) দিনব্যাপি কৃষিমেলা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বিলুপ্তপ্রায় দেশীয় জাতের ধান সংরক্ষণ, উৎপাদন ও বিতরণের লক্ষ্যে উপজেলার চাটকিয়া গ্রামের সেন্টু চন্দ্র হাজং এর বাড়িতে কারিতাস ময়মনসিংহ অঞ্চলের এলআরডি প্রকল্পের সহায়তায় এ মেলার আয়োজন করা হয়। এদিন ময়মনসিংহ বিভাগের নালিতাবাড়ী, হালুয়াঘাট ও পুর্বধলা উপজেলার প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শতাধিক কৃষক-কৃষাণী অংশগ্রহণ করেন। এ সময় কৃষক-কৃষাণীরা সেন্টু চন্দ্র হাজং এর বৃডিং (শংকরায়ন) পদ্ধতিতে ট্রায়াল করা ৫শ প্লট ও তার আবিষ্কার করা দেশীয় জাতের ধানের ক্ষেত ঘুরে দেখে তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করার জন্য আলোচনা সভায় মিলিত হন।
এসময় কৃষক রতেœশ্বর চন্দ্র বর্মণের সভাতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন নালিতাবাড়ী কারিতাসের সুপারভাইজার মি. সনত দ্রং। অন্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন- কৃষক মার্চেন চিসিম, এবারসন চিরান, লাল মিয়া, আব্দুল হাকিম, সন্তোষ কুমার হাজং, রথিন্দ্রনাথ চন্দ্র বর্মণ কৃষাণী রেনিকা চিরান প্রমুখ। পরে মনোজ্ঞ সাং®কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
দেশীয় জাতের ধান আবিষ্কারক স্বল্প শিক্ষিত কৃষক সেন্টু চন্দ্র হাজং বলেন, তিনি ২০০৬ সাল থেকে কারিতাস এলারডি’র সহায়তায় এ পর্যন্ত ১৯টি নতুন দেশীয় জাতের ধান আবিষ্কার করেছেন। এগুলোর নামও রেখেছেন সেন্টু-১, সেন্টু-২, সেন্টু শাইল, মেরীগোল্ড, সেন্টুৃগোল্ড, রাণী শাইল ইত্যাদি। এছাড়াও নতুন জাত উদ্ভাবনের জন্য এ বছর ৫শটি ধানের জাতের ছোট ছোট প্লট তৈরি ট্রায়াল করে করেছেন। তিনি আরো বলেন, দেশীয় জাতের ধান সংরক্ষণ ও উদ্ভাবনে বিশেষ অবদানের জন্য ২০১৬ সালের ৬ মে ইস্টল্যান্ড ইন্সুরেন্স কোম্পানী তাকে ক্রেস্ট ও ১ লাখ টাকা পুরষ্কার দিয়েছেন। দেশীয় জাতের ধান সংরক্ষণে আজীবন কাজ করে যাবেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
– এম. সুরুজ্জামান, উপ-সম্পাদক

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com