শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ০১:১৯ অপরাহ্ন

নালিতাবাড়ী কি এখন ‘মগের মুল্লুক’?

নালিতাবাড়ী কি এখন ‘মগের মুল্লুক’?

– মনিরুল ইসলাম মনির –
‘মগের মুল্লুক’ অর্থাৎ যা খুশি তাই করার দেশ। বাংলায় অতীতে বিভিন্ন দেশের জলদস্যুরা আসতো চুরি ডাকাতি বা সম্পদ লুট করতে। ভয়ানক দস্যুরা আসতো মগ রাজার দেশ থেকে। এরা ছিল মূলত পর্তুগীজ নৌ-দস্যুদের রাজাকার বাহিনী। মগরা আমাদের অঞ্চলে এসে যে অরাজকতার সৃষ্টি করতো তার মাত্রা বোঝানোর জন্য বলা হতো ‘মগের মুল্লুক’ অর্থাৎ যা খুশি তাই করার দেশ।
বার্মার আরাকান জাতির মানুষ (বা তাদের বংশধর) যারা ১৫০০-১৭০০ খ্রিষ্টাব্দ নাগাদ জলদস্যু বা আরাকান রাজ্য বিস্তারের উদ্যেশ্যে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম এবং তার আশপাশের উপকূলবর্তী কিছু অংশে আক্রমণ চালায় ও স্থানীয় মানুষদের ধরে নিয়ে গিয়ে বাটাভিয়াতে (ওলন্দাজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী অধিকৃত জাকার্তা) ক্রীতদাস হিসেবে চালান করে। চালায় নির্মম অত্যাচার। সেই থেকে ‘মগের মুল্লুক’ শব্দটি ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নিয়েছে।
আর আজ আপনাদের কাছে তোলে ধরব নতুন এক ‘মগের মুল্লুকের’ কথা। যেখানে যা খুশি তাই করা সম্ভব। যেখানে নিজেদের মতো করে যা খুশি তাই করা হচ্ছে অথচ আমরা এর প্রতিকার পাচ্ছি না বা প্রতিকার করতে কেউ এগিয়ে আসছে না।
আমাদের নালিতাবাড়ী। যেখানে দীর্ঘ সময় ধরে প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের নালিতাবাড়ী জনপ্রতিনিধি হিসেবে যাঁরা শাসন করেছেন, করছেন তারা সকলেই সকল দিক থেকে প্রভাবশালী। এটা নিঃসন্দেহে আমাদের জন্য গর্বের। কিন্তু এ প্রাপ্তির পরও আমরা কিছু কিছু ক্ষেত্রে পিছিয়ে যাচ্ছি। এটা নির্ধিদ্বায় বলা যায় ‘আমাদের সরলতা’। আমাদের সরলতা-আতিথেয়তার সুযোগ নিয়ে নালিতাবাড়ী আজ যেন ‘মগের মুল্লুকে’ পরিণত হয়েছে। যেখানে বিদ্যুৎ খাতে সরকারের এতো উন্নয়ন সাধিত হওয়ার পরও দীর্ঘ সময় ধরে লোডশেডিং অথবা শার্ট-ডাউনে থাকতে হয়। তাও আবার কর্মব্যস্ত সময়ে বিনা ঘোষণায়। যখন তখন লোডশেডিংয়ের পাশাপাশি মরার উপর খাঁড়ার ঘাঁ হয়ে দাড়িয়েছে শার্ট-ডাউন। যেন-তেন কাজের কথা বলে মন চাইলেই ‘নালিতাবাড়ী অফ’। খোঁজ নিলে জানা যায়, বিদ্যুতের কাজ চলছে। এতো বেশি কাজ আমাদের করতে হয় যা অন্য উপজেলায় দেখা মেলে না। হয়ত কাজের মান খারাপ, নয়ত আমাদের বোকা বানিয়ে বিকল্প ব্যবস্থা বা সুযোগ থাকার পরও সামান্য কাজের জন্য অথবা একটি ছোট এলাকার জন্য পুরো শহরের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেওয়া হয়। বিদ্যুতের সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকলেও প্রতিমাসে গ্রাহকরা বিল হাতে পান। আর অতিরিক্ত ও ভুতুরে বিলের কথা না হয় বাদই দিলাম। এ যেন মগের মুল্লুক।
যদি আসি আইন-শৃঙ্খলায়। এখানেও দেখব ইচ্ছেমত সব চলছে। শহরে মাত্রাতিরিক্ত ব্যাটারি চালিত রিক্সা, অটোবাইক, দিনের বেলায় মালবাহী ট্রাক শহরের মাঝপথে দাড়িয়ে লোড-আনলোড, যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং, ক্ষতিকর চায়না লাইটের অবাধ ব্যবহার, দোকান গড়িয়ে রাস্তায় মালামালের পসরা, যত্রতত্র বালুর স্তুব করে চলাচলে ভোগান্তি, পাহাড় আর সমতল কেটে অবাধে অবৈধভাবে খনিজ সম্পদ লুট, রাস্তা-ঘাটে ইভটিজিং থাকার পরও প্রশাসনের নিস্ক্রিয়তা, মাধ্যমিক স্কুলপর্যায়ে এমনকি মেয়েদের শিক্ষালয়ে মাদকের ছড়াছড়ি, বাজারে ভেজাল পণ্যের সয়লাব ও ইচ্ছামাফিক পণ্যের মূল্য বসিয়ে দিলেও প্রয়োজনীয় আইন প্রয়োগ না করা- এগুলো আমাদের নিত্য-নৈমিত্তিক।
সরকারের দায়িত্বশীলরাও চলছেন যে যার মতো করে। দায়িত্বশীলতা নয়, ইচ্ছের প্রাধান্যই এখানে বেশি লক্ষ্যণীয়। ইচ্ছে বা রুচিসম্মত হলে ব্যবস্থা, নইলে পাশ কেটে থাকাটা যেন স্বভাবে পরিণত হতে চলেছে। সমাজের জঞ্জাল পরিস্কারের তুলনায় ‘লোক দেখানো সৌন্দর্য বৃদ্ধি’ও কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা মিলছে। ভিতরে কর্দমাক্ত থাকলেও খোলসটা মেকআপে চকচকে করার মাধ্যমে প্রমোশনের রাস্তা সুগম করতেও অনেকেই দক্ষতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। এসব সঙ্গত কারণেই এখানে নজরদারী বৃদ্ধি অতিজরুরী হয়ে পড়েছে। তাই সরকারের দায়িত্বশীল প্রতিনিধির সরলতা আর বিশ্বাসের সুযোগ যেন কেউ নিতে না পারে সেজন্য দায়িত্বশীলদের আমাদেরই জাগিয়ে তোলতে হবে। আসুন আমরা নিজেরা নিজেদের অধিকারের প্রতি যত্নবান হই এবং দায়িত্বশীলদের কাছে বিষয়টি তোলে ধরি। তবেই হয়ত আমরা ‘মগের মুল্লুক’ থেকে পরিত্রাণ পাব। নইলে ধীরে ধীরে এ ব্যধি আমাদের গ্রাস করে নিবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com