শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১২:৪২ অপরাহ্ন

নালিতাবাড়ী-নকলা বিএনপি’র রাজনীতি কথন

নালিতাবাড়ী-নকলা বিএনপি’র রাজনীতি কথন

– মনিরুল ইসলাম মনির –
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বা সংক্ষেপে বিএনপি। ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় রমনা রেস্তোরাঁয় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রতিষ্ঠাতা তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এক সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিক ঘোষণাপত্র পাঠের মাধ্যমে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের যাত্রা শুরু করেন। জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে তিনি ঘোষণাপত্র পাঠ ছাড়াও প্রায় দুই ঘণ্টা সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। সংবাদ সম্মেলনে নতুন দলের আহ্বায়ক কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি প্রথমে ১৮ জন সদস্যের নাম এবং ১৯ সেপ্টেম্বর ওই ১৮ জনসহ ৭৬ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন।
উল্লেখ্য, বিএনপি গঠন করার আগে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক দল (জাগদল) নামে আরেকটি দল তৎকালীন উপ-রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবদুস সাত্তারকে সভাপতি করে গঠিত হয়েছিল। ২৮ আগস্ট ১৯৭৮ সালে নতুন দল গঠন করার লক্ষ্যে জাগদলের বর্ধিত সভায় ওই দলটি বিলুপ্ত ঘোষণার মাধ্যমে দলের এবং এর অঙ্গ সংগঠনের সকল সদস্য জিয়াউর রহমান ঘোষিত নতুন দলে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
নালিতাবাড়ী-নকলা (শেরপুর-২) সংসদীয় আসন-১৪৭ এ বিএনপির যাত্রা শুরু হয় জাগদল থেকেই। কিন্তু ওই সময় আওয়ামী লীগ অধ্যুষিত এ এলাকায় বিএনপি’র ভিত্তি ছিল অত্যন্ত দূর্বল। ১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ওই সময়ের বিশিষ্ট কনস্ট্রাকশন ব্যবসায়ী পূবালী কনস্ট্রাকশন এর স্বত্তাধিকারী আলহাজ্ব জাহেদ আলী চৌধুরী নালিতাবাড়ী ও নকলা বিএনপির হাল ধরেন। প্রথম নির্বাচনে তিনি বর্তমান কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরীর সাথে বিপুল ভোটে পরাজিত হলেও হাল ছাড়েননি। যদিও বিএনপি তখন সরকার গঠন করে। ধীরে ধীরে এ দুই উপজেলা ছাড়াও গোটা শেরপুর জেলার বিএনপিতে তিনি বলিষ্ঠ নেতৃত্ব তৈরিতে ভূমিকা রাখেন। দৃঢ় মনোবল, নিরলস প্রচেষ্টা, উদার দানশীলতা আর দলের প্রতি দায়িত্ববোধ থাকায় শেরপুর জেলা বিএনপির রাজনীতিতে চমক আসতে থাকে তার হাত ধরেই। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি বিতর্কিত নির্বাচনে তিনি কয়েকদিনের জন্য সংসদ সদস্যও নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগের আন্দোলনের মুখে ওই সরকার ভেঙ্গে দেওয়ার পর পরবর্র্তী নির্বাচনে পুনরায় বেগম মতিয়া চৌধুরী বিজয়ী হন। পরাজিত হন তিনি। কিন্তু রাজনীতির হাল ছাড়েননি জাহেদ আলী চৌধুরী। আওয়ামী লীগ সরকারের শেষ সময়ে তার নেতৃত্বে সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন চলে। ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক প্রতিযোগিতা করে আলহাজ্ব জাহেদ আলী চৌধুরী বিজয়ী হন। বিএনপি সরকার গঠন করায় তিনি জাতীয় সংসদের হুইপের দায়িত্ব পান। একইসঙ্গে জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। নেতৃত্বে আসেন কেন্দ্রীয় বিএনপির। সেখানেও তিনি প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদকের পদ প্রাপ্ত হন। সবমিলে এ সময়ের মধ্যে তিনি শেরপুর জেলা বিএনপির বলিষ্ঠ নেতৃত্ব তৈরি করেন এবং বটবৃক্ষের মতো রাজনৈতিক পূর্ণতায় রূপ নেন। কিন্তু রাজনীতির ভরা যৌবনে এসে ২০১১ সালের ৪ জানুয়ারি ভোরে ঢাকাস্থ নিজ বাসায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ইহলোক ত্যাগ করেন তিনি।

মূলত এরপর থেকেই জেলা বিএনপি কিছুটা দূর্বল হয়ে পড়ে। কার্যত অচল হয়ে পড়ে নালিতাবাড়ী ও নকলা উপজেলা বিএনপি’র রাজনীতি। চরম হাতাশার মাঝে দলের নেতৃবৃন্দের দাবীর মুখে জাহেদ আলী চৌধুরীর পত্নী ফরিদা চৌধুরী রাজনীতিতে না এসে নেতৃবৃন্দের হাতে তোলে দেওয়া হয় তারই পুত্র সফটওয়ার প্রকৌশলী ফাহিম চৌধুরীকে। কিন্তু পিতার অবর্তমানে ব্যবসা-বাণিজ্যের ঘানি টানতে গিয়ে আর সরকারের কৌশলের কাছে তার রাজনৈতিক দূরদর্শিতার ঘাটতি দেখা দেয়। পূর্ব রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা না থাকায় দল এবং নেতৃবৃন্দ থেকে দূরে চলে যান তিনি। পিতার বদৌলতে তার প্রতি দলের নেতাকর্মীদের অগাধ বিশ্বাস-আস্থা ও ভালোবাসা থাকার পরও কেবলমাত্র তার যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতায় দল মাঝিবিহীন নৌকার মতো এপাড়ে ওপাড়ে ঘুরতে থাকে। এক কথায় অভিভাবকহীন হয়ে পড়ে বিএনপি’র স্থানীয় রাজনীতি। এরপরও স্থানীয়ভাবে কিছুটা যোগাযোগ অন্তত দলের প্রাণটা কোনমতে বাঁচিয়ে রাখেন তিনি।
এদিকে, ২০১৪ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের আভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে দলীয় প্রার্থী ব্যতিরেকে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে তৎকালীন নন্নী ইউপি চেয়ারম্যান একেএম মুখলেছুর রহমান রিপনকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিতে বাধ্য করা হয়। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি পাশও করেন হেভিওয়েট প্রার্থীদের ভরাডুবি নিশ্চিত করে। কিন্তু পাশের পর রাজনৈতিক প্রতিকূলতা আর নিজে থেকে দূরত্ব বজায় রাখায় দলের নেতাকর্মীরা তার প্রতিও অসন্তুষ্ট হন। দূরত্ব বাড়ে নেতাকর্মীদের সাথে। ফলে বিএনপি অনেকটা নেতৃত্ব শুন্যই রয়ে যায়।
এর আগে থেকেই আবার চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মো. হায়দার আলী জাহেদ আলী চৌধুরী জীবিত থাকাবস্থায়ই নালিতাবাড়ী-নকলার হাল ধরতে চেষ্টা করেন। কিন্তু রাজনৈতিক যোগাযোগে পরিপক্কতার অভাবে তিনি পুরোপুরি রাজনীতি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। মূল ধারার নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগের পরিবর্তে দলছুট কিছু নেতাকর্মী নিয়ে জেলা ও কেন্দ্রীয় বিএনপির অনুমোতি ও সুপারিশ ছাড়া ব্যক্তিগতভাবে নিজেই একটি কমিটি ঘোষণা দেন বৈধ কমিটি থাকার পরও। এ থেকে তার রাজনৈতিক অদূরদর্শিতা স্পষ্ট হয়ে ওঠে। আমলাতান্ত্রিক অধিক সরলতা ও আর মূল ধারার যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতায় মাঝে-মধ্যে তার কয়েকজন অনুসারী নিয়ে ছোটখাট বৈঠক করলেও তা প্রশাসনের নজর পর্যন্ত কাড়তে সক্ষম হয়নি।
অন্যদিকে ফাহিম চৌধুরী নেতৃবৃন্দের সাথে কার্যকরী যোগাযোগ না রাখার পরও নকলাস্থ নিজ বাসায় উপস্থিতি বা শেরপুরের কোন হোটেলে উপস্থিতিও প্রশাসনের ঘুম হারাম করে দিচ্ছিল। ফলে প্রশাসন তার বিষয়ে সবসময় তৎপর থাকত। এর একমাত্র কারণ তার পিতার হাতে তৈরি রাজনৈতিক ভিত আর একই কারণে সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের তার প্রতি অগাধ ভালোবাসা।
বর্তমানে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে তিনজন প্রার্থীকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হলেও ব্যারিস্টার হায়দার আলীর সঙ্গে ছিটকে পড়া কয়েকজন নেতাকর্মীর দেখা মেলে। মুখলেছুর রহমান রিপনের সঙ্গে আত্মীয়-স্বজন ও তার এলাকার স্থানীয় নেতাকর্মীরা থাকলেও অধিকাংশ নেতাকর্মী মুখ ফিরিয়ে রেখেছেন। দলের প্রধান স্রোত এখনও ফাহিম চৌধুরীকে পেতে মরিয়া। এমনকি ফাহিম চৌধুরী ব্যতীত অন্য কোন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হলে মূল ধারার রাজনীতিবিদরা দলীয় প্রার্থীর নির্বাচন বর্জনসহ গণপদত্যাগের হুমকীও দিয়েছেন।
ভোটারদের মাঝেও আলোচনা একটাই। তা হলো, ফাহিম চৌধুরী নির্বাচনে এলে প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগকে নির্বাচন করতে হবে। অন্য কেউ বিএনপি’র প্রার্থী হলে আওয়ামী লীগ নির্বাচন না করেও ঘরে বসেই বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে।
হতাশার কথা হলো, সকল প্রার্থীই এখানে নেতাকর্মী বিচ্ছিন্ন। তবে কম-বেশি। শুধুমাত্র কার্যকারী যোগাযোগ রক্ষা করে চললে আজ ফাহিম চৌধুরীকে মনোনয়ন পেতে কোন বেগ পেতে হতো না। বিএনপি এতোটা দূর্বল অবস্থানে চলে আসতো না। শুধুমাত্র অভিভাবক শুন্যতাই আজ বিএনপিকে প্রান্তিক পর্যায়ে ঠেলে দিয়েছে। তবে এতসবের মাঝেও আশার আলো মরহুম আলহাজ্ব জাহেদ আলী চৌধুরীর পরিবারের প্রতিই দেখতে পাচ্ছেন নেতাকর্মীরা।

লেখক : প্রকাশক ও সম্পাদক- বাংলার কাগজ
জেলা প্রতিনিধি- চ্যানেল নাইন

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com