বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:০৮ অপরাহ্ন

প্রবাসীর প্রভাবে অবরুদ্ধ ঝিনাইগাতির ৪ পরিবার, মিথ্যা মামলায় হয়রানী

প্রবাসীর প্রভাবে অবরুদ্ধ ঝিনাইগাতির ৪ পরিবার, মিথ্যা মামলায় হয়রানী

ঝিনাইগাতি (শেরপুর) : প্রভাবশালী আবুধাবী প্রবাসী ও ব্যবসায়ী তাজুল ইসলাম আবু’র প্রভাবে পৈত্রিক ভিটায় থেকেও অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে শেরপুরের ঝিনাইগাতি উপজেলার ৪টি পরিবার। ইটের প্রাচীর, বাড়ির চারপাশ ঘিরে মাটির স্তুব আর মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রাণীর অভিযোগও ওঠেছে ওই প্রবাসী ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে।
সম্প্রতি সরেজমিনে গিয়ে দেখায় যায়, শেরপুরের ঝিনাইগাতি উপজেলাধীন কাঁঠালতলী গ্রামস্থ শেরপুর-নালিতাবাড়ী মহাসড়কের পাশে বসবাস করে আসছিলেন মৃত হাজী আব্দুল গণি সরকার। তার সম্পত্তি সন্তানদের মধ্যে ভাগ-বাটোয়ারা না হলেও আবুধাবী প্রবাসী ও বর্তমানে প্রভাবশালী ব্যবসায়ী তাজুল ইসলাম আবু পৈত্রিক সম্পতি ও ক্রয়কৃত সম্পত্তি নিয়ে তার ভাই এবং ভাতিজাদের মালিকানাধীন বসতবাড়ির চারপাশে ২-৩ ফুট উঁচু করে মাটি ভরাট করে রেখেছেন। এতে করে সামান্য বৃষ্টি হলেই ভাই রহুল আমীন ও অপর ভাই আলী হোসেনের ৩ ছেলেসহ মোট ৪টি পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়ে। এসময় থাকার ঘরসহ সবকিছু পানিতে হাবুডুবু খায় ও মানবিকভাবে নির্যাতনের শিকার হয় ওই চারটি পরিবার। শুধু তাই নয়, পৈত্রিক ওই ভিটার চারপাশে ইটের প্রাচীর ও উপরে কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে অত্যন্ত সুরক্ষিতভাবে নির্মাণ করা হয়েছে সীমানা প্রাচীর। ফলে প্রবাসী তাজুল ইসলামের ব্যক্তিগত গেইট ব্যতীত তাদের চলাচলের কোন পথ খোলা নেই। গেইটের রক্ষীদের মর্জি মতোই চলাফেরা করতে হয় অবরুদ্ধ এসব পরিবারের। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার দেনদরবার হলেও কোন সুরাহা মিলছে না বলে দাবী ভোক্তভোগী পরিবারগুলোর।

ভোক্তভোগী ও প্রবাসীর ভাই রহুল আমীন বলেন, আমাদের যে পৈত্রিক সম্পত্তি এটা ভোগ-দখলের সুযোগ নেই। জোর করে দখল করে নিচ্ছে। জোর করে দেয়াল তোলছে। জোর করে বাড়ির চারপাশে মাটি কেটে ভরাট করে ফেলছে। পুকুর ভরাট করে ফেলছে। আমরা বাড়িতে ঢুকব, বের হব, এটাও আমাদের ইচ্ছামত হয় না।
ভোক্তভোগী ভাতিজা জাহিদুল হক লেবু জানান, বাড়ির চারপাশে মাটি দিয়ে উচু করে ফেলায় বৃষ্টি হলে বাড়ি-ঘরে পানি উঠে যায়। আমাদের উচ্ছেদ করতে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে।
ভোক্তভোগী গৃহবধু আইজল খাতুন বলেন, চারপাশে মাটি কেটে আমাদের নিচে ফেলে রেখেছে। বৃষ্টি হলে আমরা হাবুডুবু খাই। অতিরিক্ত অত্যাচারে আমরা যেন এ ভিটা থেকে বের হয়ে চলে যাই এ জন্য এসব করছে।
ভোক্তভোগী স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ভাই নুরুল ইসলাম তোতা জানান, এটা পৈত্রিক সম্পত্তি। এখনও ভাগ করা হয়নি। আমিও দখল পাইনি। যার ফলে প্রায় ১৫ বছর আগে আমার অংশটুকু দলিল করে দিতে বাধ্য হয়েছি। বর্তমানে চারটি পরিবার এখানে বসবাস করছে। এ জমিটুকু গ্রাস করার জন্য বিভিন্ন সময় মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে আবুধাবী প্রসাবী তাজুল ইসলাম এর ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তিনি মাটি ভরাট ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কথা স্বীকার করে জানান, আমি আমার জায়গার ভিতরে করেছি। আমার যতটুকু না ততটুকুতে করিনি। বিষয়টি অমানবিক কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখানে মানবিক-অমানবিকের কিছু নাই।
ঝিনাইগাতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলে তিনি অফিসিয়ালি কিছু বলতে চাননি। তবে বিষয় যে অমানবিক তার সাথে একমত পোষণ করেন এবং এ বিষয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ থাকলে ভোক্তভোগীদের দূর্ভোগ লাঘবে উদ্যোগের সদিচ্ছাও প্রকাশ করেন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com