বুধবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৯, ০১:৫১ অপরাহ্ন

নালিতাবাড়ীতে সমতল পাহাড়ি ভূমি খুঁড়ে খনিজ সম্পদ লুটের মহোৎসব : নদী ভরাট করে নাব্যতা নষ্ট করছে বালুদস্যুরা

নালিতাবাড়ীতে সমতল পাহাড়ি ভূমি খুঁড়ে খনিজ সম্পদ লুটের মহোৎসব : নদী ভরাট করে নাব্যতা নষ্ট করছে বালুদস্যুরা

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : নদী থেকে বালু উত্তোলনের নামে খুঁড়া হচ্ছে নদী তীরবর্তী সরকারী খাস খতিয়ানভুক্ত সমতল ভূমি ও পাহাড়ি বনভূমি। তোলা হচ্ছে মোটা বালি, চিকন বালি, সাদা বালি ও নুড়ির মতো মূল্যবান খনিজ সম্পদ। এসব খনিজ সম্পদ উত্তোলন করতে গিয়ে নানা হুমকী দিয়ে উচ্ছেদ করা হচ্ছে নিরীহ-অসহায় পরিবারদের। বালুর এমন স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়স্থ চেল্লাখালী নদী তীরবর্তী বাতকুচি গ্রাম। ফলে ধ্বংস হচ্ছে সামাজিক বন, ধ্বংস হচ্ছে প্রকৃতি ও পরিবেশ। বিষয়টি প্রকাশ্যে চলে এলেও যেন দেখার কেউ নেই।

৬ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সরেজিমনে গেলে দেখা যায়, পোড়াগাঁও ইউনিয়নের বারমারী বাজারের পশ্চিম পাশে পলাশিকুড়া ও বাতকুচি এ দুই গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে ভারতের মেঘালয় থেকে প্রবাহিত পাহাড়ি নদী চেল্লাখালী। নদীটির বুরুঙ্গা এলাকা থেকে নন্নী উত্তরবন্দ পর্যন্ত পৃথকভাবে দুইটি বালু মহালে বিভক্ত। কিন্তু গত কয়েক বছরে অপরিকল্পিত ও মাত্রাতিরিক্ত বালু উত্তোলনের ফলে নদীটি এখন বালুশুন্য প্রায়। নদীর উত্তরাংশে বুরুঙ্গা এলাকায় গেল বৈশাখে জেলা প্রশাসন থেকে আল-আমিন ট্রেডার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মাঝে বালু উত্তোলনের জন্য সর্বমোট প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকায় লীজ প্রদান করা হয়। অন্যদিকে দক্ষিণে পলাশিকুড়া-বাতকুচি এলাকায় দীর্ঘদিন লীজ প্রদান বন্ধ রয়েছে। এরপরও বর্তমান উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক ও শ্রমিক দল নেতা হুমায়ন কবীরের মালিকানাধীন বিএনপি আমলে নেওয়া হাইকোর্টের একটি রীট পিটিশনের দোহাই দিয়ে হাসি এন্ড মোড়ল এন্টারপ্রাইজ নামীয় ওই প্রতিষ্ঠানের প্যাডে বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা কৃষক লীগের যুগ্ম-আহবায়ক আজাদ মিয়া বালু উত্তোলনের সুযোগ দিয়ে নিয়মিত রয়েলিটি আদায় করছেন। আর এ সুযোগে নদীতে বালু না থাকলেও নদী তীরবর্তী বাতকুচি গ্রামের বিভিন্ন অংশে পাহাড়ের গা ঘেঁষে থাকা খাস জমি ও বন বিভাগের ভূমি খুঁড়ে ধ্বংস করা হচ্ছে প্রকৃতি ও পরিবেশ। ৫০-৬০ ফুট গভীর গর্ত খুঁড়ে শ্যালো চালিত ড্রেজারে ভূগর্ভে থাকা খনিজ সম্পদ মোটা বালু, চিকন বালু, সাদা বালু ও নুড়ি পাথর এমনটি ছোট ছোট পাথর সংগ্রহ করা হচ্ছে প্রকাশ্যে। এসব করতে গিয়ে সামাজিকভাবে সৃজিত বন, খাস জমিতে বসবাসরত অসহায় পরিবারগুলোকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে। ভাঙ্গনের হুমকীতে রয়েছে আশপাশের বসতবাড়িগুলো। জমির পজিশন না ছাড়লে দেওয়া হচ্ছে মামলা ও হত্যার হুমকী।

অন্যদিকে তীরবর্তী এলাকা থেকে গর্ত খুঁড়ে উত্তোলিত বালুর বর্জ ফেলে ভরাট করে নষ্ট করা হচ্ছে চেল্লাখালী নদীর নাব্যতা। শুধু তাই নয়, নদীর মাঝখানে অপরিকল্পিতভাবে গভীর গর্ত খুঁড়েও তোলা হচ্ছে মূল্যবান খনিজ সম্পদ। প্রতিদিন নদীর এ পয়েন্টে অন্তত ১০-১২টি করে শ্যালো চালিত ড্রেজার চলছে দিনরাত। এলাকাবাসী কেউ এসবের প্রতিবাদ করতে এলে তাকে দেওয়া হচ্ছে নানা ধরণের হুমকী। ফলে কেউ মুখ খোলতে সাহস পান না।
এদিকে, এর আগে গেল তিন বছরে পলাশিকুড়া গ্রামের নদী তীরবর্তী অন্তত আধা কিলোমিটার দীর্ঘ সমতল ভূমি ও বুরুঙ্গা গ্রামের নদী তীরবর্তী আরও প্রায় আধা কিলোমিটার সমতল ভূমিতে একইভাবে ধ্বংসযজ্ঞ চালায় চেয়ারম্যানের ছত্রছায়ায় থাকা বালুদস্যুরা। বুরুঙ্গায় অবাধে বালু উত্তোলনের ফলে সীমান্ত সড়কের প্রায় ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত বুরুঙ্গা ব্রিজ হুমকীর মুখে পড়ে। ফলে ব্রিজটি রক্ষায় স্থানীয় সংসদ সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী টিআর এর টাকায় প্যালাসাইডিং করে নদী তীরে বাঁধ তৈরি করে দেন।

বাতকুচি গ্রামের বিধবা রহিমা বেগম (৭০) বুকফাটা আর্ত্মনাদ করে জানান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের ছত্রছায়ায় থাকা বালু ব্যবসায়ীরা তাকে নদী তীরবর্তী বসতভিটা থেকে জোরপূর্বক উচ্ছেদ করে ও নির্জন পাহাড়ে পাঠিয়ে দেয়। অনেক জায়গায় ঘুরাঘুরি করেও তিনি ন্যায় বিচার পাননি। উল্টো তাকে হত্যা করে বস্তায় ভরে নদীতে পুঁতে রাখার হুমকী দেওয়া হয়েছে।
একই গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, তার পিতার কাছ থেকেও জোরপূর্বক তাদের দখলে থাকা নদী তীরবর্তী সামাজিক বনায়ন করা জমি জোর করে বালু উত্তোলনের জন্য লীজ নিয়েছে স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী আব্দুছ ছালাম।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় বাসিন্দারা আরও জানান, আমরা মুখ খুলতে পারি না। মুখ খুললেই চেয়ারম্যানের লোকজন হত্যার হুমকী দেয়, মামলার হুমকী দেয়। তার লোকেদের অত্যাচারে আমরা অতীষ্ঠ। এটা আজাদ চেয়ারম্যানের রাজত্ব। তারা যা ইচ্ছা তাই করে। তাই কিছু বলতে মানা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া জানান, কে কোথায় বালু তুলল সে বিষয়ে আমি কিছু জানি না। বালু উত্তোলনের সাথে আমি জড়িত নই, আমি বালুর ব্যবসা করি না। আমি শুধু রয়েলিটি আদায় করে থাকি।
বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমানকে অবহিত করা হলে তিনি আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com