সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন

প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্রের অভাবে পাহাড়ি জনপদ বিপর্যস্ত

প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্রের অভাবে পাহাড়ি জনপদ বিপর্যস্ত

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : নালিতাবাড়ীর ভারত সীমান্তবর্তী পাহাড়ি জনপদে শীতের প্রকোপ বেড়েছে। এতে দরিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী অধিবাসীরা প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্রের অভাবে অতিকষ্টে রয়েছেন। বিশেষ করে, পাহাড়ের অভ্যন্তরে ও পাদদেশে বসবাসকারী মানুষের জীবন শীতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। কনকনে ঠান্ডার কারনে কাবু এখানকার মানুষ।
উপজেলার সমেশ্চুড়া, বাতকুচি, বুরুঙ্গা, খলচান্দা, বারোমারী, আন্দারুপাড়া, কালাপানি, দাওধারা, কাটাবাড়ি, হাতিপাগার, নাকুগাঁও, কালাকুমা, তারানী, পানিহাটা ও মায়াঘাসী এলাকায় চলছে শীতের তীব্র মহড়া। দিনের বেলায় সুর্যের দেখা মিললেও শীতের তীব্রতা কিছুতেই কমছে না। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলেই এর তীব্রতা আরও বাড়ে। এসব অঞ্চলের শীতার্ত মানুষ লাকড়ি ও খরকুটা জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন। শীত নিবারণের জন্য মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষ লেপ-তোষকের দোকানে ভিড় করলেও ছিন্নমূল গরীব মানুষগুলো ভিড় করছেন পুরাতন গরম কাপড়ের দোকানে। অনেকের এ সামর্থও না থাকায় পড়েছে মহাবিপাকে। অথচ সরকারী-বেসরকারী ভাবে এখনও শীতবস্ত্র বিতরণের কোন উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। শীতার্ত এসব মানুষের পাশে দাড়াচ্ছেন না কেউই।

আন্ধারুপাড়া গ্রামের প্রদীপ জেংচাম (৪২) জানান, দিনদিন শীতের তীব্রতা বাড়ছে। এতে গারো উপজাতিরা শীতে আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। কারন এদের বসতি পাহাড়ের ঢালে।
একই গ্রামের শিক্ষক ছামাদুল হক (৪৭) বলেন, ভিতর এলাকার চেয়ে সীমান্ত বর্তী পাহাড়ি এলাকায় শীত পড়ে বেশি। সে হিসেবে এখানকার শীতার্তরা শীতবস্ত্র পাচ্ছে না।
খলচান্দা কোচপাড়া গ্রামের পরিমল কোচ (৩৮) বলেন, পর্যাপ্ত শীতবস্ত্রের অভাবে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করা হচ্ছে। কোচরা সবসময়ই সরকারী বরাদ্দের শীতবস্ত্র ঠিকমতো পায় না।
নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, এরই মধ্যে ৫ হাজার শীতবস্ত্র কম্বল উপজেলা প্রশাসনের কাছে এসে পৌছেছে। আমরা খুব শীঘ্রই তালিকা প্রস্তুত করে শীতার্তদের মাঝে এসব বিতরণ করব।
– এম সুরুজ্জামান

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com