শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১২:২৬ অপরাহ্ন

দৃষ্টিভঙ্গি

দৃষ্টিভঙ্গি

– মনিরুল ইসলাম মনির –
সম্প্রতি অনেকেই খুব গুরুত্ব সহকারে আলোচনা-সমালোচনায় অংশ নিচ্ছেন- বেগম মতিয়া চৌধুরীর মন্ত্রীত্ব নিয়ে। বেশিরভাগই হতাশা এবং উপহাসে পরিণত করেছেন বিষয়টি। তবে একটি কথা ক’জনা ভেবেছেন জানি না। তা হলো, বেগম মতিয়া চৌধুরী একজন বয়োজেষ্ঠ্য নেত্রী, ৫ বার নির্বাচিত এমপি ও তিনবার একই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীত্ব করেছেন। তাঁর বয়স অনুযায়ী তিনি যদি বারবার একইভাবে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন তবে নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক ব্যক্তিদের জায়গা কোথায় হবে? শুধুমাত্র মতিয়া চৌধুরী কেন, তাঁর মতো হেভিওয়েট বহু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব মন্ত্রীসভায় নেই। তার মানে কি সবাই ব্যর্থ ও বিতর্কিত? অবশ্যই এমনটি হলে দলের মনোনয়ন তাঁদের হাতছাড়া হয়ে যেত। বিষয়টি অত্যন্ত পরিস্কার। আমার জীবনের ক্ষুদ্র সময়ে দেখা মতে, আওয়ামী লীগ বুদ্ধিভিত্তিক রাজনৈতিক চর্চা করে। যেভাবেই বিবেচনা করেন, এবারের মন্ত্রীসভা সত্যিই চমকে দেওয়ার মতো। এও বিশ্বাস করছি যে, প্রায় সবাই তাঁদের দায়িত্ব পালনে সফলতার স্বাক্ষর রাখবেন।
কথা হলো, নতুনদের জায়গা দিতে হবে। এক্ষেত্রে পুরনোদের জীবদ্দশাতেই যদি নতুনদের সুযোগ সৃষ্টি করা না হয়, তবে আওয়ামী লীগ অভিজ্ঞ রাজনৈতিক চর্চা থেকে দূরে সরে যাবে। পুরনোদের সামনেই যখন নতুনেরা দায়িত্ব পালন করবেন- সঙ্গতকারণেই পুরনোদের কাছ থেকে অভিজ্ঞতা শেয়ারের সুযোগ সৃষ্টি হবে। পুরনোরা হারিয়ে যাওয়ার আগেই তৈরি করতে হবে নতুন নেতৃত্ব। তবেই না ধারাবাহিকতা ধরে রাখা সম্ভব হবে। নইলে একসময় মাওলানা ভাষানীর দলের মতো আওয়ামী লীগেরও অস্তিত্ব বিলিন হয়ে যাবে।
আমি মনে করি, পর্যায়ক্রমে বুদ্ধিভিত্তিক রাজনৈতিক চর্চার লক্ষ্যেই এবং নতুনদের প্রতি সকলের আগ্রহ বেশি থাকায় হয়ত প্রধানমন্ত্রী এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকতে পারেন।
পাশাপাশি মনে রাখতে হবে, জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে করা দলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে যখন মতিয়া চৌধুরীকে ৭ নম্বর প্রেসিডিয়াম সদস্য থেকে ২ নম্বরে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, সঙ্গতকারণেই বিষয়টি স্পষ্ট- প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাঁর গুরুত্ব একটুও কমেনি। বরং যুগে যুগে যেন মতিয়া চৌধুরীর মতো বিদগ্ধ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব তৈরি হতে পারে- এ মন্ত্রীসভা তারই প্রতিফলন। হতে পারে মতিয়া চৌধুরী পরবর্তীতে তাঁর বয়স অনুযায়ী আরও সম্মানের স্থানে পৌছাতে পারেন। মনে রাখতে হবে, জিল্লুর রহমান, এডভোকেট আব্দুল হামিদ, সৈয়দ আশরাফ আর মতিয়া চৌধুরীর মতো নেতৃত্ব কখনও পিছিয়ে যাবে না। বয়সের কাছে তাদের পর্বটা শুধু পরিবর্তন হয়।
কাজেই যারা অতিউৎসাহী হয়ে সমালোচনায় মুগ্ধ তাদের এ উৎসাহ মূল্যহীন। অনুরূপভাবে যারা হতাশায় ভোগছেন তারাও অযথা সময় নষ্ট করছেন বলে আমার ধারণা। প্রকৃতপক্ষে, আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি সবসময় ভালোর পক্ষে হওয়া সমিচীন। এখানে মতিয়া চৌধুরীকে বাম রাজনৈতিক বলে অবজ্ঞা করার কোন অবকাশ নেই। তিনি প্রধানমন্ত্রী তথা আওয়ামী লীগের কাছে পরীক্ষিত। মন্ত্রীত্ব না থাকলেও বেগম মতিয়া চৌধুরী বাংলাদেশের রাজনীতিতে মতিয়া চৌধুরী হয়েই থাকবেন। তাঁর রাজনৈতিক দর্শন ও ব্যক্তিত্ব যুগে যুগে পরবর্তী রাজনৈতিক প্রজন্মের জন্য অনুসরণীয়-বরণীয়।
লেখক :
প্রকাশক ও সম্পাদক বাংলার কাগজ
প্রতিনিধি : চ্যানেল নাইন
Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com