সোমবার, ২৪ Jun ২০১৯, ০৮:০২ অপরাহ্ন

বান্দরবানে সীমের বাম্পার ফলনেও ন্যায্য দাম না পাওয়ায় লোকসানে কৃষকরা

বান্দরবানে সীমের বাম্পার ফলনেও ন্যায্য দাম না পাওয়ায় লোকসানে কৃষকরা

বান্দরবান : চলতি মৌসুমে পার্বত্য জেলা বান্দরবানে সীমের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলন ভাল হলেও ন্যায্য দাম না পাওয়ায় লোকসানে কৃষকরা। দেরীতে চাষাবাদ শুরু করায় সীমের ন্যায্য দাম থেকে কৃষকরা বঞ্চিত হচ্ছে বলে জানান কৃষি বিভাগ।
পার্বত্য জেলা বান্দরবানে ২ যুগেরও বেশি সময় ধরে নদীর চরাঞ্চলসহ উর্বর ধানী জমিতে তামাক চাষ হয়ে আসছে। ইদানিং তামাক চাষে লোকশান ও ক্ষতিকারক জেনে এবং কৃষি বিভাগের নিরুৎসাহিতকরণ প্রচারণার ফলে কৃষকরা মৌসুমি সবজি¦ চাষে ঝুঁকছেন। সীমসহ মৌসুমী ফসল চাষ লাভজনক হওয়ায় গত কয়েক বছর ধরে নদীর চরাঞ্চলসহ উর্বর জমিতে সীম চাষ করে আসছেন কৃষকরা। সীম চাষে লাভবান হওয়ায় অন্যান্য বছরের মতো এ বছরও জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ব্যাপক হারে সীম চাষ হয়েছে। বান্দরবান সদর উপজেলায় চলতি বছর ১৯২ হেক্টর জমিতে সীমের আবাদ হয়েছে। গত বছর হেক্টর প্রতি ১৮ মেট্রিকটন ফলন হলেও পোকা-মাকড়ের আক্রমন কম হওয়ায় এ বছর হেক্টর প্রতি ২০ মেট্রিকটন ফলন হবে বলে আশাবাদ কৃষি বিভাগের।
তবে ফলন ভাল হলেও ন্যায্য দাম না পাওয়ায় লোকসান গুনতে হচ্ছে কৃষকদের। সুয়ালক ইউনিয়নের সীম চাষী মিতালী চাকমা জানান, এ বছর সীমের ভাল ফলন হয়েছে। তবে যে পরিমাণ খরচ হয়েছে, বিক্রি করে তা উঠানো কষ্ট হয়ে যাবে। কারণ ব্যবসায়ীরা সীমের দাম দিচ্ছেন খুবই কম। কেজি প্রতি মাত্র ১০ টাকা। তাই ফলন ভাল হলেও দাম কম হওয়ায় লাভের মুখ দেখছি না।

অপর চাষী সেলিম উদ্দীন জানান, সীমের বাজার দর কম থাকায় এবং চাষাবাদে মুজুরী বেশি হওয়ায় সীম চাষ করে এ বছর লাভবান হতে পারছেন না তারা।
অপরদিকে ব্যবসায়ীরা জানান, তারা এই সীম ১০ টাকা দরে কিনে পরিবহন করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নিয়ে যান এবং কেজি ২০ টাকার কম দামে বিক্রি করেন। সীম পরিবহন করতে গিয়ে তাদের কয়েক দফায় ট্যাক্স ও চাঁদা দিতে হয়। ফলে মাঠপর্যায়ে কৃষকদের কাছ থেকে কম দামে সীম সংগ্রহ করতে হয়। তবে কৃষি বিশেষজ্ঞরা জানান, সীমের ফুল আসার সময় বৃষ্টি হওয়ার কারণে ফুল ঝরে যাওয়ায় সীমের ফলন দেরীতে আসে। ফলে বাজারে সীমের দরে ধ্বস নামে। বাজার দর না থাকায় কৃষকরা আশানুরুপ দাম পাচ্ছে না।

এদিকে চাষাবাদে লেবারের মজুরী বেশি হওয়ার কারণে পাহাড়ি জনগোষ্ঠির অধিকাংশ স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থী এখন ব্যস্ত সময় পার করছে সীম তোলার কাজে।
সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ওমর ফারুক জানান, গত বছর আগাম সীমের আবাদ করায় কৃষকরা ভাল দাম পেয়েছে। এ বছর একটু দেরীতে সীমের আবাদ করায় তুলনামূলক দাম কম পাচ্ছে কৃষকরা। তবে গত বছরের তুলনায় এবছর সীমের ভাল ফলন হয়েছে। হেক্টর প্রতি প্রায় ২ মেট্রিক টন উৎপাদন বেড়েছে।
– এন এ জাকির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com