বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৫০ পূর্বাহ্ন

বান্দরবানে পর্যটকদের আকর্ষিত করছে দেবতা কুম, শীলবান্ধা ঝর্ণা

বান্দরবানে পর্যটকদের আকর্ষিত করছে দেবতা কুম, শীলবান্ধা ঝর্ণা

বান্দরবান : প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি বান্দরবান। প্রকৃতির অপার মহিমায় এখানে রয়েছে অসংখ্য পাহাড় ঝিরি ঝর্ণা। রিঝুক, নাফাখুম, রেমাক্রী, শৈলপ্রপাত ও অমিয়াকুম ঝর্ণার সৌন্দর্য দেখতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার প্রকৃতিপ্রেমী ছুটে আসেন বান্দরবানে। এসব পাহাড় ও ঝর্ণাপ্রেমীদের জন্য বান্দরবান পর্যটনে যোগ হলো নতুন মাত্রা। বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলায় আবিষ্কৃত হয়েছে নতুন পর্যটন স্পট শীলবান্ধা ঝর্ণা ও দেবতা কুম (স্থানীয় নাম-নাইঅইং)। প্রতিদিন শতশত পর্যটক ছুটে যাচ্ছে শীলবান্ধা ঝর্ণা ও দেবতা কুমের সৌন্দর্য দেখতে। শুধু পর্যটক নয়, এর সৌন্দর্য দেখতে পর্যটকের পাশাপাশি স্থানীয়রাও ছুটে যাচ্ছেন সেখানে।

বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার কচ্ছপতলী ইউনিয়নে এ পর্যটন স্পটটি অবস্থিত। নাফাখুম ও রেমাক্রীর চেয়ে দূরত্বও কম। অল্প সময়ে সহজে যাওয়া যায় এ পর্যটন স্পটে। দূরত্ব কম ও যাতায়াত ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় প্রতিদিন শতশত মানুষ ছুটে যাচ্ছে শীলবান্ধা ঝর্ণা ও দেবতা কুমের সৌন্দর্য দেখতে।
বান্দরবান থেকে মাত্র ২০ কিলোমিটার দূরে রোয়াংছড়ি উপজেলা। রোয়াংছড়ি থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে কচ্ছপতলী ইউনিয়ন। সেখান থেকে প্রায় ২ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা পায়ে হেটে গেলেই চোখে পড়বে শীলবান্ধা পাড়া। এই পাড়া থেকে ১০ মিনিটের হাটার পথ গেলে শীলবান্ধা ঝর্ণা। শীলবান্ধা ঝর্ণা থেকে বের হয়ে তারাছা খালের পাড় ধরে ১৫ মিনিট হেটে গেলেই চোখে পরবে দেবতা কুমের প্রথম অংশের। সেখান থেকে স্থানীয় গাইডের তৈরি বাঁশের ভেলা বা নৌকা দিয়ে রওয়ানা দিতে হবে দেবতা কুমের মূল জায়গাটাতে। খাড়া পাহাড়ের উচুঁ খাঁদ আর পাথরের গায়ে বাহাড়ি বুনো ফুল, ছোট ছোট ঝর্ণা ও পানির শব্দ দেবতা কুম দিয়ে খাল পাড় হওয়ার দৃশ্যগুলো মন কেড়ে নেবে সবার।

কিভাবে যাবেন : বান্দরবান সদর থেকে বাসে করে অথবা রিজার্ভ গাড়ি নিয়ে যেতে হবে রোয়াংছড়ি। সময় লাগবে ১ ঘন্টা। বাসে জনপ্রতি ভাড়া ৮০ টাকা। সেখান থেকে সিএনজি অথবা চাঁদের গাড়িতে করে ৩০ মিনিট সময় লাগবে কচ্ছপতলী পৌঁছাতে। জনপ্রতি ভাড়া নিবে ৩০ টাকা। রিজার্ভ নিলে ৫০০ টাকা। অথবা চাঁদের গাড়ি রিজার্ভ নিয়ে বান্দরবান থেকে সরাসরি কচছপতলি যেতে পারেন। সেক্ষেত্রে আসা যাওয়ার ভাড়া নিবে ২ হাজার ৫০০ টাকা। তবে মোটরসাইকেলেও যাওয়া যায়। সেক্ষেত্রে বান্দরবান থেকে কচ্ছপতলী পর্যন্ত জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ১৫০ টাকা। কচ্ছপতলী থেকে ১ ঘন্টা কাঁচা রাস্তা পায়ে হেটে গেলে পৌঁছে যাবেন শীলবান্ধা ঝর্ণা ও দেবতা কুমে। দূর্গম এলাকা হওয়ায় পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য সেখানে রয়েছে কমিউনিটি পুলিশের সদস্যরা। পর্যটকরা যাতে নিরাপদে ভ্রমন করতে পারেন সেজন্য রয়েছে স্থানীয় গাইডের ব্যবস্থা। এছাড়া পর্যটকদের নাম এন্ট্রির মাধ্যমে রয়েছে সেনাবাহিনীর তদারকি। তাই পর্যটকদের নিরাপত্তা নিয়েও নেই কোন শঙ্কা।
– এন.এ জাকির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!