বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন

লটকন চাষে লাভের মুখ দেখছেন নকলার কৃষকরা

লটকন চাষে লাভের মুখ দেখছেন নকলার কৃষকরা

নকলা (শেরপুর) : পুষ্টিগুনে সমৃদ্ধ ফল লটকনের চাহিদা দিনদিন বেড়ে যাওয়ায় লটকন চাষে আগ্রহ বেড়েছে শেরপুরের নকলা উপজেলার কৃষকদের। মুখরোচক ফল হিসেবে পরিচিত লটকন কম খরচে অল্প জমিতে অধিক ফলন হওয়ায় কৃষকরা এ ফল চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, উপজেলায় চলতি মৌসুমে ৩০ হেক্টর জমিতে লটকনের চাষ ও বাম্পার ফলন হয়েছে। হালফাটা, বুবি, লটকাসহ বিভিন্ন নামে পরিচিত এই ফলটি। বিগত দশ-পনের বছর আগে শুধু বসত বাড়ির আঙ্গিনায় লটকনের আবাদ হলেও বর্তমানে বাণিজ্যিকভবে লটকন চাষ হচ্ছে। ফলন ভাল হওয়ায় বেশ খুশি এই অঞ্চলের কৃষকরা। ইতিমধ্যেই আগাম জাতের লটকন বাজারে উঠেছে। এর খুচরা মূল্য প্রতিমন ৪ থেকে সাড়ে ৪ হাজার টাকা। পাইকারি মূল্য ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা।
লটকন চাষি শরিফুল ইসলাম জানান, গেল বছর ৭০ শতাংশ জমিতে রোপিত ১২০টি লটকন গাছের ফল আগাম ২ লাখ ২০ হাজার হাজার টাকায় বিক্রি করেছিলেন। এ বছর একই পরিমাণ গাছের লটকন ২ লাখ ৮০ হাজার টাকায় আগাম বিক্রি করেছেন।
কৃষি অফিসের দেয়া তথ্যমতে, এই ফল চাষের শুরুতে গাছের চারা ক্রয় ও রোপণ খরচ ছাড়া আর কোনো খরচ নেই। তেমন কোনো পরিচর্যাও করতে হয় না। এই গাছ বেলে বা বেলে-দোআঁশ মাটিতে তথা পরিত্যক্ত জমিতে বেড়ে উঠতে পারে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা পরেশ চন্দ্র দাস বলেন, বাড়ির আঙিনায় এবং যে কোনো কাঠ বা ফলের বাগানেও লটকন চাষ কার সম্ভব। ছায়াযুক্ত স্থানের লটকন মিষ্টি বেশি হয়। তাই এটা চাষ করতে বাড়তি জমির দরকার হয় না। ঝুঁকিমুক্ত এ ফলের আবাদ বাড়াতে কৃষকদের নিয়মিত পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।
– শফিউল আলম লাভলু

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!