মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০১৯, ০৪:২৮ অপরাহ্ন

ঝিনাইগাতীতে পাহাড়ি ঢলে ২০ গ্রামের মানুষ পানিবন্দি

ঝিনাইগাতীতে পাহাড়ি ঢলে ২০ গ্রামের মানুষ পানিবন্দি

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) : শেরপুরের সীমান্তবর্তী ঝিনাইগাতী উপজেলায় টানা বর্ষণ ও সীমান্তের ওপার থেকে আসা গত চার দিনের পাহাড়ি পাহাড়ি ঢলে পাঁচ ইউনিয়নের নিম্নাচলের প্রায় ২০ গ্রামের পানিব›িী হয়ে পড়েছে। প্লাবিত গ্রামগুলোর কাঁচা ঘর-বাড়ি, রাস্তাঘাট, রোপা আমন ধানের বীজতলা, সবজি ও পুকুরের মাছ পানিতে তলিয়ে গেছে।
বৃহস্পতিবার সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন চাঁন বলেন, গত চার দিন ধরে থেমে থেমে ও মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে। সেই সঙ্গে উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢলে ঝিনাইগাতী সদর, ধানশাইল, মালিঝিকান্দা, হাতিবান্দা ও গৌরিপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের প্রায় দশ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এসব গ্রামের রোপা-আমন বীজতলা, সবজি ও পুকুরের মাছ পানিতে তলিয়ে গেছে।
ধানশাইল ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল, গৌরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান মন্টু ও মালিঝিকান্দা ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম তোতা জানান, তাদের ইউনিয়নগুলোর প্রায় ২০টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে আমন ধানের বীজতলা ও পুকুরের মাছ পানিতে তলিয়ে গেছে। পানিবন্দি হয়েছে কয়েক হাজার পরিবার।
৬ নং হাতিবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন দোলা জানান, হাতিবান্ধায় অনেক পুকুর তলিয়ে গেছে।
সদর ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামের গৃহবধু রৌশনারা বেগম জানান, দুই দিন ধরে ঘরের মেঝে ও চুলায় পানি উঠেছে। তাই রান্না-বান্নাও করতে পারছি না। পোলাপান নিয়ে শুকনো খাবার খেয়ে বেঁচে আছি। গৃহপালিত পশুগুলোও শুকনো খড় ছাড়া অন্য কোন খাদ্য পায়নি। অথচ এখনও পর্যন্ত প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে কোন খোঁজ-খবর নেয়া হয়নি।
সারিকালিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সোমাইয়া ও ফয়সাল জানায়, বৃষ্টি ও ঢলের পানির জন্য গত তিন ধরে বিদ্যালয়ে যেতে পারছেন না তারা।
সড়িকালিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা স্বপ্না বেগম বলেন, তার বিদ্যালয়ে পানি প্রবেশ করায় বিদ্যালয়ের কার্যক্রম বৃহস্পতিবার বন্ধ ছিল।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির বলেন, ঢলের পানিতে ১৫ হেক্টর জমির সবজি ও ২৫ হেক্টর রোপা-আমন ধানের বীজতলা নিমজ্জিত হয়েছে। আজকের মধ্যে পানি নেমে না গেলে ক্ষতির আশঙ্কা বেশি।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবু সিরাজুস সালেহীন বলেন, ১০ থেকে ১৫ হেক্টর জমির ৫০ থেকে ৬০টি মাছের প্রজেক্ট পানিতে তলিয়ে গেছে। বৃষ্টির পরিমাণ বেড়ে গেলে ক্ষতির পরিমাণ বাড়বে বলে জানান এ কর্মকর্তা।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ বলেন, আনুমানিক ৫ হাজার পরিবার পানিবন্দি রয়েছে। তবে আজকের মধ্যে পানি নেমে গেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএমএ আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাইম বলেন, আমি বেশকিছু এলাকা পরিদর্শন করেছি। অবস্থার উন্নতি না হলে বন্যার্তদের মাঝে শুকনো খাবারসহ তাদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
– মোহাম্মদ দুদু মল্লিক

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com