রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৪৬ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীতে সরকারীভাবে ধান সংগ্রহে দালালদের দৌরাত্ম, হয়রাণীতে কৃষক

নালিতাবাড়ীতে সরকারীভাবে ধান সংগ্রহে দালালদের দৌরাত্ম, হয়রাণীতে কৃষক

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ী খাদ্যগুদামে সরকার নির্ধারিত মূল্যে ধান বিক্রি করতে এসে অসহনীয় দূর্ভোগে পড়ছেন বোরো ধান চাষীরা। দিনের পর দিন ট্রলিভর্তি ধান সড়কে লাইনে দাড়িয়ে থেকে নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে দৌড়াতে হচ্ছে দালাল সিন্ডিকেটের পেছনে। মোটা অংশের ঘুষ দিয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে পরিশ্রমে ফলানো সোনার ফসল। প্রকাশ্যেই চলছে কৃষক হয়রাণী ও ঘুষ বাণিজ্য।
সূত্রমতে, প্রথম দফায় সরকারীভাবে ৫৭২ মেট্টিকটন ধান মণপ্রতি ১ হাজার ৪০ টাকা দরে কেনার জন্য লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। পরবর্তীতে এ লক্ষ্যমাত্রা বৃদ্ধি করে দ্বিতীয় দফায় মোট লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ১ হাজার ৫শ মেট্টিকটন। এরমধ্যে ধান কেনা হয়েছে প্রায় ১ হাজার মেট্টিকটনের কাছাকাছি।
অভিযোগ রয়েছে, ইতিমধ্যেই লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেকের বেশি ধান কেনা সম্পন্ন হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত অধিকাংশ কৃষক তাদের ধান বিক্রি করতে পারেননি। যারা করছেন তাদের হয়রাণীর মাত্রাটাও অত্যন্ত বেশি। খাদ্য গুদামের সামনে ট্রলিভর্তি ধান নিয়ে তিন দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে কৃষকদের। গুদাম কর্তৃপক্ষ ধান কেনায় টালবাহানা করে সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে দালাল সিন্ডিকেটের হাতে। এরপর রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থাকা ওই দালাল সিন্ডিকেটের হাতে প্রতি ১শ মণে ১২-১৪ হাজার করে আগাম ঘুষ নিয়ে অথবা মণপ্রতি ১শ থেকে দেড়’শ টাকা ঘুষ নিয়ে বিক্রেতার তালিকায় নাম উঠাচ্ছেন চাষীরা।
হয়রানীর এখানেই শেষ নয়, গুদামে ধান দিতে গেলে ট্রলি থেকে নামিয়ে সরকারী বস্তায় ভর্তি করার জন্য শ্রমিকদের দিতে হচ্ছে মণপ্রতি ৩০ টাকা করে। ওজন দেওয়ার সময় প্রতিমণ ধান নেওয়া হচ্ছে ৪০ কেজির স্থলে ৪৩-৪৫ কেজি। ফলে মণপ্রতি কৃষকের ঘাটতি দাড়াচ্ছে ৩-৫ কেজি।
অভিযোগ রয়েছে, কতিপয় ধান ব্যবসায়ী সাধারণ চাষীদের হাতে সামান্য টাকা ধরিয়ে দিয়ে ওই চাষীর কার্ড নিজেরা নিয়ে নিচ্ছেন। পরবর্তীতে নিজেরা ধান সংগ্রহ করে ওই চাষীর নামে গুদামে বিক্রি করছেন। এতে করে লাভের অংশটুকু সরাসরি চাষীর পকেটে না গিয়ে পড়ছে ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের পকেটে।
ভোক্তভোগীরা জানান, সকাল থেকে ধান সংগ্রহের কথা থাকলেও দুপুর পর্যন্ত তাদের লাইনে রাখা হয়। ফলে খাদ্যগুদামের সামনে ট্রলি, ভটভটি ও ঠেলা গাড়ির জ্যাম লেগে জনসাধারণের চলাচলে মারাত্মক ভোগান্তি সৃষ্টি হয়।
গতকাল (১৮ জুলাই) বৃহস্পতিবার সকাল দশটা থেকে বেলা একটা পর্যন্ত খাদ্যগুদামে অবস্থান করে দেখা গেছে, চাষীদের কাছ থেকে কৃষি কার্ড সংগ্রহ করে নাম তালিকাভুক্ত করা হলেও গুদামে ধান নেওয়া শুরু হয়নি। একপর্যায়ে চাষীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে।
নিচপাড়া গ্রামের চাষী দাউদ (২৫) জানান, তিন দিন যাবত ধান নিয়ে এসেছেন তিনি। তার কাছে লেবার খরচ বাবদ মণপ্রতি ৩০ টাকা এবং ঘুষ বাবদ মণপ্রতি একশ টাকা দাবী করা হয়েছে।
যোগানিয়া গ্রামের চাষী আব্দুস সাত্তার জানান, তিনি ধান বিক্রির পর ওজন দিতে গেলে মণপ্রতি ৪৩ কেজি করে নেওয়া হয়েছে। এতে তিনি মণপ্রতি ৩ কেজি করে ঘাটতিতে পড়েছেন।
একই গ্রামের অপর চাষী জানান, তিনি ধান আনলেও তার ধান কেনার উপযুক্ত নয় বলে বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমাদের ধান নেয় না। যারা ব্যসায়ী তাদের কাছ থেকে ঠিকই ধান নিচ্ছে।
এসব অভিযোগ অস্বীকার করে খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু সম্রাট খান জানান, আদ্রতা ও চিটা থাকায় এবং বস্তার ওজন বাদ দেওয়ার ফলে এক-দুই কেজি ধান বেশি নেওয়া হয়। রাত বরোটা পর্যন্ত ধান কেনা হচ্ছে। তবে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে চাষীর সংখ্যা বেশি। তাই হিমশিম খেতে হচ্ছে আমাদের। এছাড়া দালালদের বিষয়ে তিনি জানান, আগে বিষয়টি আমাদের নজরে আসেনি। গতকাল (বৃহস্পতিবার) নজরে আসার পরপরই দালালদের গুদাম এলাকা থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com