রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৫১ পূর্বাহ্ন

বান্দরবানে ৬শ হেক্টর জমির ফসল সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত : ঋণগ্রস্ত কৃষকের মাথায় হাত

বান্দরবানে ৬শ হেক্টর জমির ফসল সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত : ঋণগ্রস্ত কৃষকের মাথায় হাত

বান্দরবান : পাহাড়ি ঢল ও বন্যায় প্লাবিত হয়ে বান্দরবান জেলায় ৬শ হেক্টর জমির ফসল সম্পুর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাড়ে ৪ হাজার কৃষক। ক্ষতিগ্রস্ত ফসলের মূল্য ৩ কোটি দুই লাখ টাকা বলে জানিয়েছে বান্দরবান কৃষি অধিদপ্তরের উপপরিচালক।
কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এ বছর বান্দরবানে ৬৬ হাজার ৪৮২ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ফসলের আবাদ করা হয়। এর মধ্যে সম্প্রতি বন্যায় ৬শ ৯ হেক্টর জমির ফসল সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। বন্যায় প্লাবিত হয়ে নষ্ট হয়ে গেছে কয়েক’শ একর কলা, পেঁপে ও শশাসহ বিভিন্ন ফল ও সবজির বাগান। অনেক চাষী ঋণ করে এসব বাগান করায় ফসল নষ্ট হয়ে যাওয়ায তারা একেবারে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে।
লেমুঝিরি এলাকার কলাচাষী উক্যানু মার্মা বলেন, আমি লোন নিয়ে ৩ একর কলা বাগান করেছি। পরিচর্যা করে গাছ বড়ও করেছি। আর কিছুদিন পর কলা বিক্রির উপযোগী হতো। কিন্তু বন্যার কারনে আমার সব কলা গাছ নষ্ট হয়ে গেছে। এখন লোনের টাকা পরিশোধ করব কিভাবে সেই চিন্তায় আছি।
সুলতানপুর এলাকার কৃষক নুরুল ইসলাম বলেন, আমার ১০ একর শশা ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। কিছুদিন পর এগুলো বিক্রি করতে পারতাম। ব্যবসায়ীর কাছ থেকে আগে টাকা নিয়ে নিয়েছি শশা দিব বলে। কিন্তু নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এখন তাকে টাকা ফেরত দিব কিভাবে?
বন্যায় সদর উপজেলার সুয়ালক, গোয়ালিয়া খোলা, কদু খোলা, ভাগ্যকুল, সুলতানপুর, ভরাখালী, লেমুঝিরি, ডলুপাড়া ও রোয়াংছড়ি উপজেলায় ১৫৫ হেক্টর ফলজ বাগান, ৮০ হেক্টর মাঠের আমন ধান, ৪৩ হেক্টর জুমের আমন ধান, ২৫ হেক্টর আউশ ধান, ২৮১ হেক্টর সবজি বাগান ও ৪৪ হেক্টর পানের বরজসহ অন্যান্য ফসলের ক্ষেত সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৪ হাজার ৫০০ কৃষক।
সাত উপজেলায় ক্ষতি হলেও সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সদর উপজেলা ও রোয়াংছড়ি উপজেলায়।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফারুক হোসেন বলেন, বন্যার কারনে সদর উপজেলায় ১০৯ হেক্টর জমির ফসল সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১ হাজার ৫০০ কৃষক। যেগুলো আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেগুলো পরিচর্যা করে সারিয়ে তোলার জন্য কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে এবং সার স্প্রে দেয়া হচ্ছে।
বান্দরবান কৃষি বিভাগের উপপরিচালক ড. একে নাজমুল হক বলেন, এবারের বন্যায় কৃষকরা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ৬০৯ হেক্টর জমির ফসল সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। এছাড়াও অনেক জমির ফসল আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমরা প্রাথমিকভাবে তাদের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপন করে সরকারের কাছে তালিকা পাঠিয়েছি। পাশাপাশি যেসব জায়গায় আংশিক ক্ষতি হয়েছে সেগুলো কিভাবে সারিয়ে তোলা যায় সে ব্যাপারে কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করছি।
– এন এ জাকির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com