1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:১৪ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীতে সামাজিক রাস্তা দখল, মিথ্যা অভিযোগে হয়রানী

নালিতাবাড়ীতে সামাজিক রাস্তা দখল, মিথ্যা অভিযোগে হয়রানী

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে একটি সামাজিক কাঁচা রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণ ও বৃক্ষ রোপনের অভিযোগ উঠেছে। একই সঙ্গে দখলদার কর্তৃক যাতায়াতকারী প্রতিবেশিদের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ রয়েছে।
জানা গেছে, উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়নস্থ আন্দারুপাড়া-বাইগরপাড়া গ্রামের আবুল হাশেম এর বাড়ি সংলগ্ন কিছু জমি দিয়ে সামনের পাকা সড়ক থেকে পূর্বদিকের তোফাজ্জল হোসেন এর বাড়ি পর্যন্ত একটি কাঁচা রাস্তা রয়েছে। রাস্তার দুই পাশে থাকা বেশকিছু পরিবারের যাতায়াত ছাড়াও অন্যান্য গ্রামের পথচারীরা পথ সংক্ষেপ করার জন্য ব্যবহার করে থাকে এ রাস্তাটি। এছাড়াও ঈদগাহ মাঠেও যাতায়াত করেন মুসল্লীরা। কিন্তু আবুল হাশেম গ্রামের বাড়ি না থাকায় তার সন্তানেরা রাস্তাটি সংকোচন করে কিছুদিন আগে একপাশে একটি টিনসেড ঘর উঠায়। এখানেই থেমে থাকেনি তারা। রাস্তার অপর কিছু অংশজুড়ে সীমানা পেরিয়ে আকাশমনিসহ বেশকিছু প্রকৃতি বিনষ্টকারী বৃক্ষ রোপন করে তার পাশে জিগার গাছের ডাল পুতে বাঁশের চেলা দিয়ে বেড়া তৈরি করে রাস্তা সংকোচন করেছে তারা।
এদিকে গত ৮ আগস্ট বৃহস্পতিবার পূর্ব বিরোধের জেরে আবুল হাশেম এর ছেলে ওমর ফারুক তারই মামা তোফাজ্জল হোসেনের বাড়িভিটার সীমানা ছেটে কৃষিজমির পানি সরবরাহের ড্রেন তৈরি করে। এতে তোফাজ্জল হোসেন ক্ষিপ্ত হয়ে পরদিন ৯ আগস্ট শুক্রবার ভাগ্নের দেওয়া বাঁশের চেলাগুলো খোলে নিচে ফেলে রাখেন। এ ঘটনায় ওমর ফারুক বাদী হয়ে মামা তোফাজ্জল হোসেন ছাড়াও মামাতো ভাই আবুল কালাম, অপর প্রতিবেশি ও মামা সিরাজুল ইসলাম, মামাতো ভাই মুকুল এবং ঢাকায় বসবাসকারী মামাতো ভাই মেলিম আহম্মেদকে অভিযুক্ত করে গাছের চারা ও বেড়া ভাঙ্গার অভিযোগ এনে নালিতাবাড়ী থানায় সাধারণ ডায়েরি করে।

সরেজমিনে গেলে স্থানীয় বাসিন্দা নুরুজ্জামান বাদল (৪৮) জানান, সেলিম এখানে থাকে না। ঈদ করতে শনিবার এলো। তবে শুক্রবার বেড়া ও গাছ ভাঙলো কিভাবে? আর গাছতো ঠিকই আছে।
স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল ইসলাম (৬৫) জানান, ওমর ফারুক নিজের সীমানা পেরিয়ে রাস্তার ওপর গাছ লাগিয়ে সীমানা ঠেলে রাস্তার উপর এনেছে। তাছাড়াও কোন গাছও সেদিন ভাঙ্গা হয়নি। শুধু বেড়াগুলো খুলে ফেলা হয়েছে।
এলাকাবাসী আরও জানান, কিছুদিন আগে একটি টিনসেড ঘর রাস্তার কিছু অংশজুড়ে উঠায় ফারুকরা। এর ফলে এখন রাস্তাটি সরু হয়ে গেছে। তারা আরও জানান, মামা তোফাজ্জলের সাথে দীর্ঘদিন ধরেই ওমর ফারুক ও তার ভাইয়েরা জমিজমা নিয়ে পারবারিক দ্বন্দ্বে জড়িয়ে আছে। এ নিয়ে বারবার গ্রাম্য শালিশ-দরবারও হয়েছে। তবু ফারুকরা মানতে চায় না। এর আগে একবার ওমর ফারুক পেছন থেকে তারা মামা তোফাজ্জলের মাথায় আঘাত করে ১৪টি সেলাই লাগিয়েছিল। ওই ঘটনায় এখনও ২৬ ধারার মামলা চলমান।
তোফাজ্জল হোসেন জানান, আমার মাথায় আঘাত করা ছাড়াও একবার অনেকগুলো গাছের চারা কেটে ফেলেছিল। জমির আইল নিয়ে প্রায়ই ঠেলাঠেলি করে। রাস্তার সীমানা চাপিয়ে এনেছে। কত সইব? এ কারণে রাস্তার উপর একপাশে দেওয়া ওর বাঁশের চেলার বেড়া খুলে রেখেছি।
ওমর ফারুক অন্য একটি মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামী হওয়ায় তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার বড় ভাই ফজলুর রহমান খোকন জানান, তার মামা তোফাজ্জল সবসময় তাদের সাথে সীমানা নিয়ে বিরোধ করেন। সাথে অন্য মামা ও ভাইয়েররাও সহযোগিতা করেন। এ কারণেই সবার নামেই জিডি করা হয়েছে। তবে বেড়া ভাঙ্গায় মামা তোফাজ্জল ছাড়া কেউ ছিল না বলেও স্বীকার করেন তিনি।
এদিকে সাধারণ ডায়েরির তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সবুর উদ্দিন জানান, বাঁশের বেড়া তোফাজ্জল ভেঙ্গেছে। অন্য কেউ এতে জড়িত নেই। তাছাড়া কোন গাছও ভাঙ্গা পাইনি। এ বিষয়ে মামলা হয়নি। আদালতে সাধারণ ডায়েরির তদন্ত প্রতিবেদন পাঠাব।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!