সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন

ঝিনাইগাতীতে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

ঝিনাইগাতীতে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) : শেরপুরে ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাঈম এর বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। ১৭ আগস্ট দুপুরে ঝিনাইগাতী সদরের স্থানীয় পাঠাগারে এ সংবাদ সম্মেলন করেন শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও ঝিনাইগাতী সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন চান।
এ সময় সংবাদকর্মীদের উদ্দেশ্যে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ২০১৪ সালের ৪ ডিসেম্বর সেন্ট্রাল কমিটির সদস্যদের উপস্থিতিতে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের মাধ্যমে আলহাজ্ব এসএম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাঈমকে সভাপতি ও এসএম আমিরুজ্জামান লেবুকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। আলহাজ্ব এসএম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাঈম সভাপতি হওয়ার পর তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করে এককভাবে আওয়ামী লীগ ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখার ৬৭ সদস্যের মধ্যে ৫৭ জন আওয়ামী লীগের সাবেক কমিটির নেতাকর্মীকে বঞ্চিত করেন। সাবেক কমিটি থেকে ১০ জনকে রেখে গত ২০১৭ সালের ১০ নভেম্বর ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখা আওয়ামী লীগের নতুনভাবে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন করান সভাপতি। এসব সাবেক ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দেওয়ায় গত সংসদ নির্বাচনে ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয়ভাবে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। যা এখনও চলমান রয়েছে।
তিনি বলেন, গত সংসদ নির্বাচনে দলীয়ভাবে আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার একেএম ফজলুল হক চান ২৮ ডিসেম্ব^র ঝিনাইগাতী নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নৌকা মার্কার প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ সময় সাথে ছিলেন ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আমিরুজ্জামান লেবু ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। ওইদিন রাতেই মনোনয়নপত্র জমা দেন ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাঈম।
এদিকে সভাপতি আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাঈম ও সাধারণ সম্পাদক এসএম আমিরুজ্জামান লেবু ফজলুল হক চানের সাথে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ায় জরুরীভাবে নেতাকর্মীদের ডেকে জুলগাঁও নিজস্ব অফিসে মিটিং করেন দলের সাধারণ সম্পাদক এসএম আমিরুজ্জামান লেবুর বিরুদ্ধে। এ সময় বক্তব্য দিয়ে পরদিন ঝিনাইগাতী খাদ্য মিল মালিক সমিতির ঘরে সংসদ সদস্য প্রার্থী ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগ শাখার সভাপতি এসএম আবদুল্লাহেল ওয়ারেজ নাঈম বর্ধিত সভা করেন। ওই সভায় সভাপতির পক্ষের ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের নেতাকর্মীদের স্বাক্ষর নেন। যা ওয়ার্ড ইউনিয়নের কমিটি এখনো অনুমতি প্রদান করা হয়নি। এমনকি বহিরাগতসহ ১১১ জনের স্বাক্ষরিত সাধারণ সম্পাদক এসএম আমিরুজ্জামান লেবুর বিরুদ্ধে রেজুলেশন করে অনাস্থা প্রস্তাবের সিদ্ধান্ত নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগ শেরপুর বরাবর দাখিল করেন। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তা গ্রহণ করলেও এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেননি।
কিন্তু ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম আবদুল্লাহেল ওয়ারেজ নাঈম শ্রী বিশ্বজিৎ রায়কে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বলে পরিচয় করিয়ে দেন। এমনকি বিভিন্ন সভার প্যানাতে, সমাবেশের প্রচারণায় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পদবী ব্যবহার করে আসছেন- যা দলীয়ভাবে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে। দলীয় নিয়ম মানা হচ্ছে না। গত ২৬ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এসএম আমিরুজ্জামান লেবুকে দলীয় অফিসের সামনে নির্বাচনি মিটিং করতে দেয়নি এবং সাধারণ সম্পাদক এর চেয়ারেও বসতে দেওয়া হয়নি। যা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অবগত রয়েছেন। এমতাবস্থায় আমি জেলা আওয়ামী লীগের একজন সদস্য হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের নিকট অবহিত করেছি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একজন আদর্শের সৈনিক হিসেবে দলীয় চলমান বিশৃঙ্খলায় বসে থাকতে পারি না। তাই আমি বিবেকের তাড়নায় আজকে আপনাদের মাধ্যমে জেলাসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় পর্যায়ে জানাতে চাই, আমাদের ঝিনাইগাতী শাখার আওয়ামী লীগের সভাপতির শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নাম ব্যবহারের প্রতিবাদ করছি।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- হাতীবান্ধা ইউনিয়নের প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা ও বর্তমান দলীয় ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমীন দোলা, গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান মন্টুসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com