বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন

বিদ্যালয়ের পলেস্তারা খসে পড়ে মাথার উপর, আতঙ্কে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

বিদ্যালয়ের পলেস্তারা খসে পড়ে মাথার উপর, আতঙ্কে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : নির্মাণের মাত্র ২৫ বছরেই ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে বিদ্যালয় ভবন। যে সময় মাথার উপর খসে পড়ে ছাদের পলেস্তারা। শ্রেণিকক্ষের জন্য বিকল্প কোন ভবনও নেই। কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেও কাজ হচ্ছে না। তাই সর্বদা আতঙ্ক-উৎকণ্ঠা নিয়ে ক্লাস করছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এমন অবস্থা শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার নামাছিটপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের।
জানা গেছে, শিক্ষায় পিছিয়ে পড়া শিশুদের বাধ্যতামূলক শিক্ষার আওতায় আনতে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ১৯৭৩ সালে ৩৩ শতক জমির উপর প্রতিষ্ঠিত করা হয় নামা ছিটপাড়া বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। ১৯৯৪ সালে প্রথম এ বিদ্যালয়ে চার কক্ষ বিশিষ্ট একতলা ভবন নির্মাণ করে সরকার। এরপর ২০১৩ সালে এটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হয়। ২০১৪ সালে বিদ্যালয়ের চাহিদার প্রেক্ষিতে এর পরিসর বড় করতে তিনতলা ফাউন্ডেশন দিয়ে ২ কক্ষ বিশিষ্ট একতলা ভবন নির্মাণ করে সরকার। বর্তমানে এ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৫২জন আর শিক্ষক রয়েছেন ৫ জন।
সরেজমিনে দেখা যায়, পুরনো ভবনটিতে থাকা চারটি কক্ষের মধ্যে একটিতে চলে অফিসিয়াল কার্যক্রম। বাকী তিন কক্ষে যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণির ক্লাস চলে। অন্য ভবনটির দুটি শ্রেণিকক্ষে চলে প্রাক-প্রাথমিক ও পঞ্চম শ্রেণির কার্যক্রম।

কিন্তু ২০১৫ সাল থেকে পুরনো চার কক্ষ বিশিষ্ট ভবনটির বিভিন্ন অংশের পলেস্তারা খসে পড়া শুরু হয়। ফলে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে বিদ্যালয় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তারা পাঠদানের বিকল্প পদক্ষেপ নিতে নতুন ভবনের জন্য গেল বছরের সেপ্টেম্বরে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর আবেদন করেন। এরপর উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় থেকে ভবনটি পরিদর্শন করা হয়। তবে নতুন ভবন নির্মাণের কোন উদ্যোগ আজও দেখা যায়নি। ফলে প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করছে কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরা।
বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, ক্লাস চলাকালে অনেক সময় মাথার উপর থেকে পলেস্তারা খসে পড়ে। কখনও বা রাতে খসে বিদ্যালয়ের ফ্লোর নোংরা হয়ে থাকে। এতেকরে সবসময় আমরা আতঙ্কে থাকি।
বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোশারফ হোসেন জানান, একদিন মা সমাবেশ চলাকালে আমাদের টিও (উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা) মেডামের উপস্থিতিতেই আমার মাথায় পলেস্তারা খসে পড়ে।
প্রধান শিক্ষক জানান, কিছুদিন আগে মা সমাবেশ চলাকালে একজন শিক্ষকের উপর পলেস্তারা খসে পড়ে। এভাবে প্রায়সই পলেস্তারা খসে পড়ার ঘটনা ঘটছে। ফলে কোমলমতি শিশুদের নিয়ে ভয়ে থাকতে হয়। শিশুদের বিদ্যালয়ে পাঠিয়ে অভিভাবকরাও দুঃশ্চিন্তায় থাকেন।
এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফজিলাতুন্নেছা জানান, ইতিমধ্যেই বিদ্যালয় পরিদর্শন করে ভবনটি মেরামতের জন্য বরাদ্দ চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। যেহেতু এখনও পলেস্তারা খসে পড়ছে। তাই আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) আবারও উপজেলা প্রকৌশলীকে নিয়ে পরিদর্শনে যাব। প্রয়োজন হলে ভবনটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে নতুন ভবনের প্রস্তাবনা পাঠানো হবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!