সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১৩ পূর্বাহ্ন

অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনে ধ্বংসের পথে ভোগাই, নদী খুঁড়ে উত্তোলন হচ্ছে সাদা বালু

অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনে ধ্বংসের পথে ভোগাই, নদী খুঁড়ে উত্তোলন হচ্ছে সাদা বালু

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : অপরিকল্পিতভাবে যতযত্র শ্যালুচালিত ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু লুৎপাটের ফলে ধ্বংস হতে চলেছে নালিতাবাড়ীর প্রাণ ভোগাই নদী। ইতিমধ্যেই নদীটির বিভিন্ন অংশে মাত্রাতিরিক্ত গভীর হওয়ায় দুই তীরে ধ্বস নামতে শুরু করেছে। নদীর ভূ-গর্ভস্থ মাটি খুঁড়ে বোরিং পদ্ধতিতে খনিজ সম্পদ সাদা বালু উত্তোলনের ফলে নষ্ট হতে চলেছে নদীর প্রকৃতি। নিয়ম না মেনে তীরঘেঁষে ও ব্রিজের আশপাশ থেকে বালু উত্তোলনের ফলে নদীতীর ও ব্রিজসমূহ পড়েছে ঝুঁকিতে। এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকলে অদূর ভবিষ্যতে নদী ঘিরে স্থাপনাসমূহ ধ্বংসের পাশাপাশি প্রকৃতি ও বৈচিত্র হারাবে ভোগাই। নাব্যতা সংকটে জলবায়ুতে পড়বে বিরূপ প্রভাব।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, দীর্ঘদিন যাবত পাহাড়ি বালুর স্তর পরে ভোগাইয়ের অধিকাংশ এলাকা ভরে নাব্যতা সংকট তৈরি হয়। ফলে পাহাড়ি ঢলে আকষ্মিক বন্যা বেড়ে যায়। এমতাবস্থায় খননের মাধ্যমে নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ২০১০ সালের দিকে তৎকালীন ও বর্তমান সাংসদ সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে ভোগাই নদী খননের উদ্যোগ নেন। এরই অংশ হিসেবে নদীতে জেগে ওঠা বড় বড় চরগুলোকে শ্যালুচালিত ড্রেজারের মাধ্যমে খনন শুরু হয়। খননকৃত এ বালু অপসারণের লক্ষ্যে বালুকে নির্মাণকাজের জন্য বাণিজ্যিকভাবে গ্রহণযোগ্য করতে মতিয়া চৌধুরীর উদ্যোগে বুয়েটে পরীক্ষা করানো হয়। বুয়েট পরীক্ষায় নির্মাণ উপযোগী প্রমাণিত হলে ভোগাইয়ের লাল বালু অভিশাপ থেকে আশীর্বাদে রূপ নেয়।

পরবর্তীতে স্থানীয় সংসদ সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী নিজের অনুকূলে বরাদ্দকৃত অর্থ দিয়ে স্থানীয় একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের নামে ভোগাই নদীর বিভিন্ন এলাকা বালু মহাল হিসেবে ইজারা নেওয়া শুরু করেন এবং তা বিনা রয়েলিটিতে বালু উত্তোলনের জন্য উন্মুক্ত করে দেন। এরপর বাণিজ্যিকভাবে বালু উত্তোলন শুরু হয়। তবে তখন প্রকৃতি রক্ষায় বছরের নির্দিষ্ট কিছু সময় বালু উত্তোলন প্রশাসনিকভাবে বন্ধ রাখা হতো।
চলতি বৈশাখে শহরের ছিটপাড়া (তারাগঞ্জ পাইলট স্কুল এলাকা) মৌজা থেকে উপজেলার ফুলপুর মৌজা (নয়াবিল-ঘাকপাড়া খেয়াঘাট) পর্যন্ত প্রায় ২৭ একর পরিমাণ বালু মহালটি ৩১ লাখ ২৫ হাজার টাকায় নালিতাবাড়ীর প্রতিষ্ঠান মেসার্স আল আমিন ট্রেডার্স ইজারা নেয়। এরপর রয়েলিটির মাধ্যমে ভোগাইজুড়ে বালু উত্তোলনে ড্রেজার মালিকদের অনুমোদন শুরু করে। কয়েক বছর যাবত অতিরিক্ত বালু উত্তোলনের ফলে সম্প্রতি নালিতাবাড়ী শহর রক্ষা বাঁধ ঝুঁকিয়ে পড়ে। এমতাবস্থায় বাঁধ রক্ষায় শহরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করা হয়। এর প্রেক্ষিতে শহরের ছিটপাড়া ও গড়কান্দা মৌজায় প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকায় বালু উত্তোলন নিষিদ্ধ করে স্থানীয় প্রশাসন। এতে ইজারাদার কর্তৃপক্ষ বন্ধ হওয়া তফসিলভুক্ত এলাকার পরিবর্তে নতুন এলাকা বালু মহালের অন্তর্ভূক্ত করতে জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদন করে। আবেদনের প্রেক্ষিতে ১নং খতিয়ানভুক্ত মন্ডলিয়াপাড়ায় ১ নং দাগে ২.৫০ একর, তন্তরে ১নং দাগে ২.৫১ একর, হাতিপাগারে ৯৯, ৬৬৮ ও ২০২৩ নং দাগে ৪.৪৫ একর, কালাকুমায় ১৫১০ দাগে ১.২৫ একর ও নাকুগাঁওয়ে ৫৭৮ দাগে ২.২২ একর জায়গা নতুন বালু মহাল হিসেবে ইজারায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়। গত ২৬ আগস্ট নতুন এসব এলাকা বালু মহালে অন্তর্ভূক্ত করে পত্র প্রেরণ করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ তোফায়েল আহমেদ। তবে বালু মহাল সংক্রান্ত বিধি-বিধান অনুযায়ী নতুন বালু মহাল ঘোষণা, বন্ধ ও সম্প্রসারণ ইত্যাদি বিভাগীয় কমিশনার ব্যতীত অন্য কারও এখতিয়ার নেই।

এদিকে গত কয়েক বছর ধরে ভোগাই নদীতে বালু উত্তোলনের নামে চলে আসছে বালুদস্যুতা। কোন নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই ভোগাই নদীকে করা হয়েছে ক্ষতবিক্ষত। সম্প্রতি উন্মুক্ত ইজারা প্রদান করায় এ পরিস্থিতি যেন আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। কার্যত ভোগাই নদীর বেশিরভাগ স্থানে পর্যাপ্ত বালু না থাকায় একপ্রকার বালুশুন্য করে সব শোষে নেওয়ার প্রতিযোগিতা চলছে। কোথাও কোথাও বালুর মজুদ শেষ হওয়ায় নদীর তলদেশের মাটি ১৫-২০ ফুট পর্যন্ত গভীর বোরিং করে নিচ থেকে খনিজ সম্পদ সাদা বালু উত্তোলন শুরু হয়েছে। এতেকরে নাব্যতা সংকটের পাশাপাশি নদীভাঙ্গনের ঝুঁকি বাড়ছে। শুস্ক মৌসুমে বালুশুন্য প্রায় নদীটি পানিশুন্য হয়ে প্রকৃতি ও জীব-বৈচিত্রের ভারসাম্য নষ্টের আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
পরিবেশ ও নদী সংশ্লিষ্টদের মতে, নদীর নাব্যতা ফেরাতে যেমনি বালু অপসারণের মাধ্যমে ড্রেজিং প্রয়োজন, তেমনি নাব্যতা তথা নদীর প্রকৃতি ধরে রাখতে পরিমাণ মতো বালুও প্রয়োজন। নদীতে একেবারে বালু না থাকলে পানি ধারণ ক্ষমতা কমে যায়। ফলে নাব্যতা সংকটের পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনে মারাত্মক ভূমিকা রাখে।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, আমরা প্রায়সই মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছি। খুব শীঘ্রই আরও কঠোরভাবে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com