মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৭ অপরাহ্ন

আফগানদের প্রস্তুতি ম্যাচে ‘বৃহত্তর স্বার্থ’ বাংলাদেশেরই

আফগানদের প্রস্তুতি ম্যাচে ‘বৃহত্তর স্বার্থ’ বাংলাদেশেরই

স্পোর্টস ডেস্ক : যেকোনো পূর্ণাঙ্গ সিরিজ শুরুর আগে সবসময়ই সফরকারী দলকে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সুযোগ দেয়া হয়। সেটা মূলত ঐ দেশের জলবায়ু, আবহাওয়ার সঙ্গে ধাতস্ত হওয়া এবং মাঠ-উইকেট সম্পর্কে পূর্ব ধারণা জন্মানোর জন্যই। চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে আজ রোববার থেকে আফগানরা যে দু দিনের প্রস্তুুতি ম্যাচ খেলবে, সেটাও তাই।

তবে সে ম্যাচে স্বাগতিকদের জন্যও আছে অনেক খোরাক। আসলে টেস্টে আফগানরা কেমন দল? তাদের অ্যাপ্রোচ-অ্যাপ্লিকেশন এবং পারফরমেন্স কেমন?- তার অনেকটাই অজানা। বিসিবি একাদশের সঙ্গে দু’দিনের ম্যাচেই জানা যাবে দীর্ঘ পরিসরের ফরম্যাটে আফগানরা আসলে কেমন ধরনের দল?

রোববার সকালে বন্দর নগরীর এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে সফরকারী আফগানদের প্রস্তুতি পর্ব। স্বাগতিক দলের সঙ্গে টেস্ট খেলার আগে একটি দু দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে আফগানরা। সেই খেলা শুরু আজ রোববার সকাল থেকে, ভেন্যু চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহি এম এ আজিজ স্টেডিয়াম।

আফগানরা সীমিত ওভারের ফরম্যাটে কেমন দল?- সে ধারণা কম বেশি সবারই আছে। ওয়ানডেতে চলনসই, তবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের উপযোগী দল। যাদের কিছু ‘এক্সাইটিং’ ক্রিকেটার আছেন। যারা ৫০ ওভারের চেয়েও ২০ ওভারের ম্যাচে বেশি কার্যকর। ৫০ ওভারের ম্যাচের চেয়েও টি-টোয়েন্টিতে মারকুটে দল আফগানিস্তান। ভয়-ডরহীন এবং বেশ সাহসী ও আত্মবিশ্বাসী ডাকাবুকো কয়েকজন ক্রিকেটার আছেন, যারা যেকোন উইকেটে হাত খুলে খেলার চেস্টা করেন। ভাল বল আর খারাপ বলের ‘থোরাই কেয়ার’ করেন। আর আলগা বল পেলে তো কথাই নেই। দুম করে যাকে তাকে বিগ হিট হাঁকিয়ে বসেন।

খুব উঁচু মানের কোয়ালিটি ফাস্ট বোলার না থাকলেও জোরে বল করতে পারেন কয়েকজন পেসার। রশিদ খানের মত সময়ের সেরা লেগস্পিনারও আছেন। যেখানে বল এক সুঁতোও ঘোরে না, সেখানেও বল লাটিমের মত ঘুরিয়ে ব্যাটসম্যানের নাভিশ্বাষ তুলে ছাড়েন। মোহাম্মদ নবী আর মুজিব উর রহমানরাও কম যান না। সব মিলে টি-টোয়েন্টি আর ৫০ ওভারের ফরম্যাটে আফগানরা হেলা ফেলার দল না।

কিন্তু টেস্টের আফগানিস্তান অনেকটাই অপরিচিত। টেস্টে তাদের শক্তি এখনও পরিক্ষীত হয়নি। সাকুল্যে খেলেছেই মাত্র দুইটি টেস্ট। যেখানে জয়-পরাজয় একটি করে। কাজেই আফগানরা সীমিত ওভারের ফরম্যাটের মত টেস্টেও দল হিসেবে মন্দ না- এমন কথা বলার মত অবস্থা এখনও তৈরি হয়নি।

আর সেখানে বাংলাদেশ ১৯ বছরের টেস্ট যুবা। ঠিক যতটা সুগঠিত, সু স্বাস্থ্যের অধিকারী হওয়ার কথা ছিল, ততখানি না হলেও দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে একটা পর্যায়ে পৌঁছে গেছে টাইগাররা। তাই সব হিসেবেই টেস্টে গুলবাদিন, নবী, রশিদ খানদের চেয়ে সাকিব, মুশফিকরা সমৃদ্ধ, পরিণত, অভিজ্ঞ এবং সর্বোপরি ফেবারিট।

স্বাভাবিক হিসেবে আফগানদের সঙ্গে বাংলাদেশের টেস্ট জয়টাই প্রত্যাশিত। এককথায় টেস্টে আফগানদের সঙ্গে বাংলাদেশের জেতাটাই স্বাভাবিক ঘটনা বলে পরিগণিত হবে। বিপরীতে হার বা ড্র’ই হতে পারে বড় ঘটনা। সেটা বরং ব্যর্থতা বলেই ধরা হবে।

আসলে আফগানরা টেস্টে বা দীর্ঘ পরিসরের ফরম্যাটে কেমন দল? তাদের ব্যাটিং অ্যাপ্রোচটা কেমন? সীমিত ওভারের মতই মারকুটে নাকি টেস্টের চিরায়ত ধারা অনুযায়ী? তাদের পেস বোলাররা দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেট উপযোগী বোলিং বিশেষ করে অফস্টাম্পের আশপাশে ভাল লেন্থে বল ফেলে প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের ধৈর্য্য পরীক্ষা নিতে পারেন কি-না? সীমিত ওভারের খেলার পুরোটা জুড়েই ব্যাটসম্যানদের রান করার তাড়া থাকে। যে কারণে ঝুঁকি নিয়ে হলেও শটস খেলার প্রবণতা থাকে বেশি।

এছাড়া আফগান স্পিনাররা সীমিত ওভারের ক্রিকেটের মত টাইট বোলিং করে উইকেট নেয়ায় দক্ষ। কিন্তু টেস্টে তো প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের অমন তেড়েফুঁড়ে শটস খেলা আর রান করার তাড়া থাকে না। সেখানে দীর্ঘ স্পেলে ব্যাটসম্যানের রক্ষণাত্মক ও সতর্ক-সাবধানি অ্যাপ্রোচ ভেদ করে আফগান বোলাররা কতটা কার্যকর ও পারদর্শি- তা অনেকটাই অজানা ও অদেখা।

আজ বিসিবি একাদশের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচেই সে সম্পর্কে পূর্ব ধারণা জন্মাবে। আর সে কারণেই বিসিবি একাদশের বিপক্ষে এই দু দিনের ম্যাচটি পাখির চোখে পরখ করতে আগে ভাগে চট্টগ্রাম গেছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। আফগানরা আসলে টেস্টে কেমন দল? ব্যাটিং অ্যাপ্রোচ কেমন? সত্যিকার টেস্ট মেজাজের ব্যাটসম্যান আছেন কজন? বোলিং শক্তি কতটা কার্যকর- এসব ধারণা মিলবে এই দু দিনের ম্যাচেই।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com