বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ১০:১৪ পূর্বাহ্ন

“কষ্টের পাহাড় বুকে চেপে বেদনার ছয় মাস”

“কষ্টের পাহাড় বুকে চেপে বেদনার ছয় মাস”

– মনিরুল ইসলাম মনির –
কষ্টের বিশাল পাহাড় মাথায় নিয়ে দিন, মাস, অতঃপর ছয় মাস কেটে যাচ্ছে। প্রতিটি দিনই যেন আসে কষ্টগুলো মনে করিয়ে দিতে। ব্যস্ততার জীবনে তবু কষ্টগুলো বুকে চেপে কাজ করে যাচ্ছি। চলতে হয়, তাই চলছি। কন্যাটি না থাকলে হয়ত সন্যাস জীবন কাটাতে পারতাম। সুযোগ নেই বলে মিথ্যে জগৎ-সংসারী হওয়ার চেষ্টা করে চলেছি অবিরাম। কষ্টের পাহাড়টি মাঝে মাঝে এতো ভারি হয়, মনে হয় বুকে চাপ লাগছে। ভালোবাসার গভীরতা কতো হতে পারে তা আজ বুঝতে পারি।
২০০৭ সালের ডিসেম্বরে উন্যাস লিখি বলে লেখিকা হিসেবে ফোনে পরিচয় তার সাথে। এরপর কোন প্রেম-ভালোবাসা ছাড়া শুধু পরিচয়ের সূত্র ধরে অভিভাবকদের খোঁজ-খবর নেওয়া শুরু। কয়েকদিন পরই বিয়ের কথা পাকাপাকি। কোনরূপ পাত্রী না দেখেই কেবলমাত্র ফোনে বায়োডাটা নিয়ে পারিবারিকভাবে ২০০৮ সালের ১৬ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে দু’জনই বিয়ের পিড়িতে বসি।
বিয়ের প্রথম প্রথম হাতে টাকাকড়ি বলতে কিছুই ছিল না। ঋণ-ধার করে বিয়ের পর সহধর্মীনির জন্য সামান্য খরচের মতো সামর্থ ছিল না আমার। এরমধ্যে টানতে হয়েছে সংসারের ঘানি। আয়ের পথ বলতে দৈনিক আমার দেশ থেকে মাত্র ৫শ টাকার পত্রিকা সম্মানি আর মাঝে-মধ্যে দু-চারটা বিজ্ঞাপন। সবমিলিয়ে মাসে হাজার থেকে ১২শ টাকা রোজগার। এরমধ্যেও আমার দেশ এর সম্মানিটা দীর্ঘদিন যাবত বন্ধ ছিল। ফলে হাতের অবস্থা এতোটাই খারাপ ছিল যে, একটি সামর্থবান সংসারের মেয়ে এনে রাখার মতো যথেষ্ট ছিল না। তবু ভালোবাসার মমতায় স্ত্রী আমাকে আকড়ে ধরে রেখেছে কোন অভিযোগ ছাড়াই। আমার আর্থিক দূরাবস্থার কথা কাউকে কখনও বুঝতে দেয়নি সে। একদিন তো পাট শাক দিয়ে পান্তা ভাত খেতে ওর কাছে ভালো লাগে বলে জানাল। কিন্তু সেদিন দুই মুঠো পাট শাক কেনার টাকাও হাতে ছিল না। বাজারে সহকর্মীদের সাথে দীর্ঘক্ষণ চুপ করে বসেছিলাম। জনৈক বন্ধুর কাছে পাওনা টাকা নিয়ে পাট শাক কিনে বাসায় ফিরলাম। ততক্ষণে খাওয়া-দাওয়ার পর্ব শুরু হয়ে গেছে। ইচ্ছে হলেই বাজার থেকে নববধূর জন্য সামান্য কিছু কিনে আনতে পারিনি নুন আনতে পান্তা ফুরায় বলে।
কিছুদিন পর সেনাবাহিনীর সাথে ভোটার তালিকায় কাজের সুযোগ এলো। আর্থিক সংকট কাটাতে তাদের সাথে কাজে যোগ দিলাম। নতুন স্ত্রীকে বাসায় রেখে আমাকে বেশিরভাগ সময় শেরপুর রাত কাটাতে হয়েছে। এর কিছুদিন পর একটি এনজিওতে চাকুরী হয়। ভোরে ঠান্ডা ভাত খেয়ে কর্মস্থলে বেড়িয়েছি। সন্ধ্যায় ফিরে দুপুরের খাবার শেষে বাজারে সহকর্মীদের সাথে একটু আড্ডা আর সাংবাদিকতা করেছি। কিছুদিন পর আর্থিক সংকট কিছুটা কমে এলো। তবু সংসারের জন্য যাই কিছু জোগাড় করেছি, বাবা-মাকে নিয়ে একসাথে থাকায় কখনও ওর ভাগ্যে পর্যাপ্ত কিছু জোটেনি। প্রায় আড়াই বছর পর বাবা-মা’র কাছ থেকে আলাদা হলাম। টিনসেড ঘরে থাকা পুরনো সামান্য ফর্ণিচারগুলোও ছিল বার্ণিশ ছাড়া। বাবার বাড়ি থেকে পাওয়া হাত খরচের টাকা দিয়ে সে ফার্ণিচারগুলোকে বার্ণিশ করাল। আমি তার গর্ভের সন্তানের জন্য সাধ্যমত পর্যাপ্ত খাবারের যোগান দেওয়ার সুযোগ পেলাম চাকুরীটা আছে বলে। একটি মোটরবাইকও কেনা হলো এরইমধ্যে। কিছুদিন পর প্রমোশন পরীক্ষায় সর্বোচ্চ ভালো করার পরও আরও ভালো করার আশায় এনজিও’র চাকুরী ছেড়ে ঢাকায় পাড়ি জমালাম। একটি রিয়েল এস্টেট কোম্পানীর জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে সপ্তাহের ৬ দিন ৫ রাত ঢাকায় একাকী কাটাতাম। একদিন দুই রাত স্ত্রীর কাছে। ফলে স্ত্রী আবারও একাকী রাতগুলো পাড় করেছে। এরই মধ্যে ঘরে বুশরা এলো। কিছুদিন পর স্ত্রী-সন্তানের মায়ায় সেই চাকুরীটা ছেড়ে চলে এলাম নালিতাবাড়ী। এখানে আসার পর নানা প্রেক্ষাপটে আবারও ধীরে ধীরে আর্থিক সংকটে পড়ে গেলাম। ঘরে অনেক সময় বাজার থাকলেও চালের মজুদ শেষ হয়ে যেত। মায়ের কাছ থেকে ধার নিয়ে চলতাম। এক ঈদে তো ব্যাংক ঋণ করে কাটিয়েছি। ব্যবসা দিয়ে ঋণের পরিমাণ আরও বাড়তে থাকায় বাধ্য হয়ে ব্যবসাটাও বন্ধ করলাম। আর কোন অবলম্বন হাতে রইল না।
এরপর দীর্ঘ অধ্যবসায়ে বাংলার কাগজ অনুমোদন পেলাম। এ অধ্যবসায়ে আর্থিক অবস্থা আরও চরমে গেল। তারপরও দু’জনে লড়াই করে সংসারের হাল ধরে রাখলাম। আমাদের এ সংকট কেউ কখনও বুঝতে পারেনি, ভালোবাসা অটুট ছিল বলে। একসময় আমার দেশ এর সম্মানি বৃদ্ধির পাশাপাশি অন্যান্য মিডিয়ায় কাজের সুযোগ এলো। কাজের সম্মানী থেকে বিজ্ঞাপন সবই বাড়তে থাকল। ধীরে ধীরে আবারও স্বচ্ছলতার মুখ দেখা শরু হলো। মাত্র ৬ হাজার টাকার একটি বিজ্ঞাপন বিল দিয়ে ভাড়ার টাকা যোগাড় করে শিশু কন্যার আবদার রাখতে বাকীতে ইট কিনে সাহস করলাম ভাঙ্গা ঘরটিকে সেমিপাকা করার। মহান আল্লাহর কৃপায় ও স্ত্রীর সহযোগিতায় মাত্র আড়াই মাসে মোটামোটি সম্মানজনক জীবন-যাপনের মতো করে বাসার কাজ সেড়ে নিলাম। আল্লাহর কি রহমত! সেমিপাকা ঘরে উঠার পর আয়ের পথ বাড়তে থাকল। চার বছরে বাসা করার সব ঋণ শোধালাম। কর্মজগতেও চ্যানেল নাইন থেকে শুরু করে ভালো ভালো মিডিয়া হাতে এলো। এরই মধ্যে আমাদের দু’জনের চেহারায়ও স্বচ্ছলতার ছাপ ভেসে উঠল। মায়াবী চেহারার স্ত্রী যেন আরও ফুটে উঠল। যার মুখপানে তাকালে মনটা এমনিতেই আনন্দে ভরে যেত। একটি সন্তান নিয়ে সব হাসির মাঝে পারিবারিক একটি সংকট আমাকে একটি দুঃখের কূপে নিক্ষেপ করল। নিজের সরলতায় বুঝতে না পেরে পরিস্থিতির শিকার হলাম। সব সুখের মাঝেও একটি মেঘ বয়ে চললাম দু’জনই। এরপরও হাসিখুশি আমরা। সুযোগ পেলেই সপরিবারে ভ্রমনের আনন্দ থেকেও নিজেদের বঞ্চিত করতাম না। সবশেষ ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে দুই বন্ধুর পরিবারের সাথে সপরিবারে বান্দরবান-কক্সবাজার ভ্রমনে বের হলাম। কতো যে খুশি হয়েছিল সে, তা বুঝানো দায়। চাঁদের গাড়িতে নীলগিরি ভ্রমন, স্পিটবোটে সেন্টমার্টিন সমূদ্রে ছুটাছুটি ইত্যাদি স্মৃতিসমূহ আজ শুধুই কষ্ট দেয়।
সামর্থবান না হলেও ততোদিনে স্বচ্ছলতা ছিল সংসারে। পকেটে টাকা যাই থাকুক, নতুন বা পছন্দমতো কিছু পেলে স্ত্রী-সন্তানকে খুশি করতে কিনে বাসায় ফিরতাম। স্ত্রীর কোন চাহিদা না থাকলেও সবসময় আমি ভালো কিছু উপহার দেওয়ার চেষ্টা করতাম। সে ভীষণ খুশি হতো এতে। বাজার থেকে এক মুঠো শাক কিনতে গেলেও ফোন করে ওর পছন্দ যাচাই করে নিতাম। সংসারের এমন কোন কাজ ছিল না, যা ওর সাথে পরামর্শ না করে করেছি। এরইমধ্যে বাসায় নতুন ফার্ণিচারসহ আরও কিছু এ জাতীয় সুযোগ-সুবিধা করে নিলাম। দু’জনে স্বপ্ন বাঁধলাম আরও কিছু করব বলে। দু’জনের পারিবারিকভাবে প্রাপ্য সম্পদ নিয়ে ভবিষ্যতের স্বপ্নও দেখলাম দু’জনই। সংসারে স্বচ্ছলতা বাড়াতে সেও যোগ দিল একটি বেসরকারী স্কুলে। দু’জনার আয়ে যখনই আমাদের চাহিদামতো আমরা সুখের পূর্ণতায়, দেশের বাইরে সপরিবারে বেড়ানোর স্বপ্ন দেখলাম- তখনই হঠাৎ করে নেমে এলো দুঃখের অমানিশা। ঢাকায় বেড়ানো শেষে হাসিটা নিমিষেই বিষাদে রূপ নিল। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় যেন দিশেহারা হলাম। সেই যে দিশা হারালাম আর খুঁজে পেলাম না। মাত্র ২০ দিনের মধ্যেই কোনপ্রকার বিদায়ী আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া ১ মার্চ রাতে বিদায় নিল সে। নিজেদের ক্ষমা প্রার্থনা পর্ব বা শেষ ইচ্ছেটাও দু’জন দু’জনের কাছে প্রকাশ করতে পারিনি।
ঢাকায় যাওয়ার আগে বাসার কিছু কাজে ও আমার সাথে সহযোগিতা করতে করতে একগাল হেসে বলেছিল, ‘ঢাকায় গিয়ে আর আসব না।’ আমি বলেছিলাম, ‘এগুলো তবে কেন করলাম? কার জন্য করলাম?’ ও বলেছিল, ‘এগুলো আমার ভাগ্যে নেই! অন্য কাউকে নিয়ে ভোগ করবে একদিন!’
আমরা কেউই সেদিন আদৌ জানতাম না, এ বলা সত্যি হয়ে যাবে। নতুন করে সাজানো ফুলের বাগান থেকে অন্য সবকিছুই ওর জন্য করেছিলাম। কিন্তু বাগানে ফুল ফোটার আগেই তার জীবন প্রদীপ নিভে গেছে। একবারের জন্য দেখার সাধ্যও তার হয়নি। সে যখন চলে গেছে, তখন বাগানটি ফুলে ফুলে পরিপূর্ণ হলো। যেন রঙের বৃষ্টি বাগানজুড়ে। রঙিন বাগান, সাজানো বাসা, নতুন কিছু আসবাবপত্র আর রঙিন স্বপ্ন- সবই ধূসর হয়ে এলো আমার জীবনে।
কষ্টের সময়গুলো পাড়ি দিয়েছি শুধু দু’জনে। স্বচ্ছলতার শুরুতে ওকে হারালাম। স্বপ্ন দেখে শেষ না করতেই ভেঙ্গে গেল। খুব কষ্ট হয়, ব্যস্ততার জন্য খুব একটা সময় দেইনি তাকে। শুধু বলতাম, আর দশ বছর পর কাজের চাপ কমিয়ে আনব। এখন নিজের অবস্থানটা শক্ত করে নেই। বুড়ো বয়সে দু’জনে আয়েশ করব। একান্তে কিছু সময় কাটাব। স্বপ্ন দেখতাম, একদিন জীবনের সব ঝামেলা কেটে যাবে। শুধু আমরা দু’জন সন্তান নিয়ে সীমিত ইচ্ছার মধ্যেই অনেক ভালো থাকব।
ভাবতে অবাক লাগে! কি করে জীবনের সাথে এতোকিছু মিল থাকতে পারে? ও একজন সাহিত্যমনা মানুষ ছিল। সদালাপী, সদা হাসোজ্জল। খুব কম ও ধীরে কথা বলত। বিয়ের পর প্রথম আলো, আমার দেশ ও বিভিন্ন আঞ্চলিক পত্রিকায় ওর গল্প-কবিতা ছাপা হতো। আমার পরিচয় গোপন করেই নিজের প্রতিভার পরীক্ষা স্বরূপ সে যোগাযোগ করে লেখা পাঠাত। অনেক লেখাই প্রকাশ পেত তার। বিয়ের আগে একটিমাত্র উপন্যাস বইমেলায় প্রকাশ করেছিল। যার নাম ছিল ‘বিদায় বেলার অশ্রু’। সত্যি, বিদায় বেলায় সে সবার অশ্রু ঝড়িয়েছে। অজ্ঞান থাকায় তার চোখের কোনেও দেখা গিয়েছিল অশ্রু গড়াতে। তার অশ্রু শেষ হয়েছে। শেষ হয়নি আমার। যতোদিন বাঁচব, অশ্রুই হবে ওর জন্য আমার সম্বল। আমাদের ঘুণে ধরা এ সমাজে ভালো মানুষেরও দোষ ধরার লোকের অভাব হয় না, সমালোচনা হয়। অথচ আমার স্ত্রীকে নিয়ে কোন সমালোচনা নেই আশপাশে, পরিচিতদের মাঝে। আছে শুধু মানুষের আফসোস! ধন্য তার জীবন। মাত্র ২৯ বছর বয়সে একটি মাত্র কন্যা রেখে আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়েছে সে। সে আছে, থাকবে আমার প্রতিটি স্পন্দনে। জীবনে চলার জন্য আমাদের অনেক পথই অবলম্বন করতে হয়। কিন্তু সত্যি বলতে তার জায়গায় শুধু সেই থাকবে। আর কারও জন্য কোনদিন সে কক্ষ খোলা হবে না। অনেকেই বলেন, আবেগ দিয়ে জীবন চলে না। আমি আবেগ দিয়েই জীবনটা উৎস্বর্গ-জয় করতে চাই। জীবনে মনের-প্রাণের মানুষ একজনই হয়। বাকী সব প্রয়োজন।
আল্লাহকে বলি, দুনিয়াতে না হয় সংক্ষিপ্ত সময় দিয়েছ আমাদের। তার মাঝেও ছিল কষ্টের গল্প। সুখের গল্প শুরু করতেই ইতি টানলে আমাদের সম্পর্কের মাঝে। তবে পরকালে যেন বঞ্চিত না হই। কোন ভালো কাজের বিনিময়ে দু’জনকে জান্নাতে একসঙ্গে রাখিও। আমিন!

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!