বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৫০ পূর্বাহ্ন

আকস্মিক রোহিঙ্গা বিদ্বেষঃ আমার ভাবনা

আকস্মিক রোহিঙ্গা বিদ্বেষঃ আমার ভাবনা

– মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান –

একটি জনসভা এবং যুবলীগের একজন কর্মীর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পর রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে এমন বিদ্বেষ ছড়ানো শুরু হয়েছে, এমন অপপ্রচার শুরু হয়েছে যাতে করে অনকের মনে এ আশংকা দানা বেধেছে, যে উগ্র বর্মী জান্তার কাছে যে ভয়াবহ, অমানবিক ও নিষ্ঠুর নির্যাতনের শিকার হয়ে তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মানবিক সিদ্ধান্তে বাংলাদেশে আশ্রয় পেয়েছেন কালক্রমে কিছু রোহিঙ্গা বাংলাদেশীদের দ্বারা না যানি তারা আবারো নির্মম নির্যাতনের শিকার হতে শুরু করেন।

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে এ মুহুর্তে সবচেয়ে বেশী বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে একদল এমন বাংলাদেশী যারা মূলত রোহিঙ্গা, তাদের বাপ দাদা, পূর্বপুরুষ সকলেই রোহিঙ্গা। বাংলাদেশে জন্ম নিয়ে, এদেশের আইডি কার্ড এবং পাসপোর্ট নিয়ে তারা বাংলাদেশী হয়েছেন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস বাংলাদেশে পরবর্তীতে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে এদের ভূমিকা সবচেয়ে বেশী।

আমি মনে করি, আরাকান থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ভাইবোনের মধ্যে কাদেরকে রোহিঙ্গা এবং কাদেরকে বাংলাদেশী বলে গণ্য করা হবে? এদেশে জন্ম নেয়া তাদের উত্তরসুরীদের বিষয়ে কী ফয়সালা হবে? এসব বিষয়ে কোন সুস্পষ্ট মানদণ্ড বা নীতিমালা না থাকলে তা হওয়া ভীষণ জরুরী।
এটা এ কারনে বললাম, বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে আরাকান থেকে বাংলাদেশে আশ্রয়প্রার্থীদের সন্তান সদস্য হিসেবে ছিলেন এবং আছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এমন রোহিঙ্গা সন্তানও রয়েছেন। তারা নিশ্চয়ই এ দেশের নাগরিক হিসেবেই জনপ্রতিনিধিত্ব করছেন। তাদের নিশ্চয়ই বাংলাদেশী পাসপোর্ট এবং জাতীয় পরিচয় পত্র রয়েছে।
এদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র এবং পাসপোর্টধারী, যাদের বাপদাদা আরাকানী ছিলেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান চলছে। এসব পাসপোর্ট ধারীদের যারা বিদেশে বসবাস করেন, ক্ষনিকের জন্য দেশে এসে তারাও গ্রেফতার হচ্ছেন।
একথা কে না জানে ভয়াবহ গনহত্যা এবং নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, মালয়েশিয়া, তুরস্ক সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে যেসব রোহিঙ্গা ভাইবোন আশ্রয় নিয়েছেন তারা সকলেই সেসব দেশে গিয়েছেন হয়তো বাংলাদেশী পাসপোর্ট বা পাকিস্তানি পাসপোর্ট নিয়ে। এছাড়া বিদেশ পাড়ি দেবার কোন সুযোগও তাদের ছিল না।
দেশছাড়া সেসব রোহিঙ্গা ভাইবোন সেসব দেশে শুধু ভালো ভাবে আছেনই না বরং এদের উল্লেখযোগ্য একটি অংশ সেসব দেশের নাগরিকত্বও লাভ করেছেন।

আমি মনে করি বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে যে কোন প্রক্রিয়ায় যেসব রোহিঙ্গা ভাইবোন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের অধিকার লাভ করেছেন এটা ভালোই হয়েছে।
কোন রোহিঙ্গা ভাইবোন যদি সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সহ বাংলাদেশে জনপ্রতিনিধি হতে পারেন তাহলে এদেশে জন্মগ্রহণকারী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর কেউ যদি বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে আজীবনের জন্য বিদেশে পারি দেন তাতে আমাদের সমস্যা কোথায় তা আমার বোধগম্য নয়।
আমি মনে করি, ভালো মন্দ সব দেশে, সব জাতীতেই রয়েছে। কেউ অপকর্ম করলে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে ন্যায়ানুগ পন্থায় বিচারের মাধ্যমে দোষী ব্যক্তিদের যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করা অপরিহার্য।

তাই বলে কিছু মন্দ লোকের অপকর্মের দায়ভার তার দেশ বা জাতির উপর চাপিয়ে দিয়ে অবশিষ্ট লোকদের উপর নির্যাতন চালানো, সকলকে দোষী হিসেবে আখ্যায়িত করা কোনভাবেই ন্যায়বিচার ও সভ্যতার পরিচায়ক হতে পারে না।
পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তা’আলা বলেন, ” একজনের পাপের বোঝা অন্যজন বহন করবেনা।”
আল্লাহ তা’আলা অন্যত্র বলেন, ” কোন জাতীর প্রতি তোমাদের বিদ্বেষ যেন সে জাতির প্রতি ন্যায়বিচারে কোন রুপ বিরুপ প্রভাব ফেলতে না পারে। ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করো কেননা তা তাক্বওয়ার অতি নিকটবর্তী অবস্থান।”

কিছু অসভ্য রোহিঙ্গাদের অপকর্মের দরুন গোটা রোহিঙ্গা জাতীকে যদি আমরা অসভ্য ও বর্বর বলে প্রচারণা চালাই, তাহলে বাংলাদেশী কিছু অসভ্য ও বর্বর লোকের জন্য গোটা বাংলাদেশীদেরকে বর্বর ও অসভ্য হিসেবে মূল্যায়ন করাকে কি আমরা মেনে নেব।
নিশ্চয়ই না। এটা সঠিক কোন মানদণ্ডও না।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!