সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১১ পূর্বাহ্ন

শিখে চলেছি অবিরাম…

শিখে চলেছি অবিরাম…

– মনিরুল ইসলাম মনির –
কথায় আছে, “শিখেছিস কোথায়? ঠেকেছিলাম যেথায়।” আমরা প্রতিনিয়তই শিখি। দেখে-শোনে শিখি, ঠেকে-ঠকে শিখি, হেরে গিয়েও শিখি। শেখার শেষ নেই ক্ষুদ্র জীবনে। তবে আরও একটি শেখার জায়গা আছে। তা হলো শুভাকাঙ্খী রূপী শত্রুদের কাছে। বিশেষত যারা ক্ষণে ক্ষণে নিজের খোলস পাল্টাতে অভ্যস্ত। জীবনে পরাজয় বা ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি এরাই করে। এদের কাছ থেকে বেশিরভাগ শেখাই লসের খাতায় থেকে যায়। তবু আমরা সমাজবদ্ধ জীব হিসেবে চলি আর প্রতিনিয়ত শিকার হই এসব মানুষরূপী অমানুষদের।
উপরোক্ত কথাগুলো খেদোক্তিই বলা চলে। তবে খেদোক্তি তো আর এমনি এমনি আসে না। যখন কারও সহ্যের সীমানার বাইরে চলে যায় তখনই মানুষ জয়-পরাজয় না ভেবে খেদোক্তি বা প্রতিবাদ করে বসে।
বেশ কিছুদিন যাবত কিছু বিষয় লক্ষ্য করছি। যখন থেকে কাছের কেউ কেউ আপাতত দূরের কারও সাথে ঘনিষ্ঠ পর্যায়ে পৌছেছে। একদিন কোন একটি সংবাদের প্রসঙ্গে কেউ আমাকে আমার প্রতি অন্য পক্ষের ক্ষোভের কথা জানাল। আমিও অন্যায়ভাবে বেড়ে ওঠা ওই ক্ষোভের প্রতিবাদস্বরূপ পাল্টা জবাব দিলাম তার সাথে। বেশি সময় হলো না। আমার অফিস ক্ষতিগ্রস্ত হলো। বুঝতে বাকী রইল না কোথেকে কল কাঠিটা নাড়া হয়েছে। কে লাগিয়েছে। ক্ষোভ যাই থাকুক, নিমিষেই পেছনের খলনায়কের কথা ভেবে ক্ষতি করতে আসাদের উপর থেকে ক্ষোভের পরিমাণটা কমে গেল। বুঝলাম, তাদের দোষে লাভ কি? তাদের তো উস্কে দেওয়া হয়েছে।
এরপর বেশ কিছুদিন যাবত আমার শুভাকাঙ্খী সেজে আমাকে তেমনই একটি পক্ষ উস্কে যাচ্ছে। আমি কেন সেখানে চলি না, কেন সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছি, কেন বুঝতে পারছি না? ইত্যাদি। আবার এও বলা হয়, আমার অনুপস্থিতিতে কেউ আমার জায়গা দখল করে নিচ্ছে। আর সুবিধার কথা বলে তো শেষ নেই। তার কথামতো, বিশাল কিছু কেউ করে ফেলছে। তবে এসব কথায় আমি কোনবারই পাত্তা দেই না। যে যার মতো করে দক্ষতার পরিচয় দিয়ে নিজের অবস্থান ভালো করবে- এটা নিতান্তই তার ব্যক্তিগত বিষয়। হয়ত কথাচ্ছলে দু-একটা কথা বলি। এর বেশি নয়। বরং ওইসব কথায় আমার সত্যিকার অর্থেই কোন মাথাব্যথা হয় না। হওয়া অনুচিত বলে মনে করি। এরপরও কেউ আমাকে ডাক দিয়ে বলল, আমি অমুকের বিরুদ্ধে বলেছি। আমি তো শোনে অবাক! আমিতো অন্যের অনেক বিশদ বিবরণ শোনে কথাচ্ছলে কিছুটা জানার চেষ্টা করেছি মাত্র। বিরুদ্ধে তো অন্যেই আমার কাছে বলে বেড়ায়। আমাকে উৎসাহী করার চেষ্টা করে। আমাকে ক্ষেপানোর চেষ্টা করে। আমি বিষয়টিকে মাথায় না নিয়ে মুখ থেকেই ঝেড়ে শেষ করে দেই। অথচ তারপর উল্টো আমাকে নিয়েই চর্চা হয়েছে। চেষ্টা করা হয়েছে, সহকর্মীদের সাথে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে দিতে। সত্যিই আমরা পারি বটে! আমার কাছে কিভাবে উপস্থাপন করা হলো আর সেখানে কিভাবে উল্টো আমকেই দোষী বানানোর চেষ্টা! অথচ ওই পক্ষটির কতোই না পাশে থাকার চেষ্টা করেছি সবসময়। বিশেষত দুঃসময়ে। ভাবতে গিয়ে অবাক হলেও পরক্ষণেই ভাবি, জগতে এমন উদাহারণ ভুরি ভুরি। আপনি কারও উপকার বা উপকারের চেষ্টা করেছেন, পরবর্তীত ওই ব্যক্তিই আপনাকে বাঁশ খাওয়াবে। তবে দুঃখ হয় তাদের জন্য। যারা সর্বদাই এমন কাজে নিয়োজিত থাকেন। তারা আপাতত নিজেদের বুদ্ধিমান ও লাভবান ভাবলেও নিজের অজান্তেই নিজের ক্ষতি ডেকে আনছেন নিঃসন্দেহে। যেখানে মিথ্যে বলে দ্বন্দ্ব নিরসন করার বৈধতা পর্যন্ত ইসলাম দিয়েছে। সেখানে এমন চুগলখুরি বা বাড়িয়ে বলে দ্বন্দ্ব তৈরির বিষয়ে ফায়সালা মহান আল্লাহর উপরই। এরা আসলে মৃত্যুকে ভুলে গেছে। অন্যের মাঝে দ্বন্দ্ব বাধিয়ে নিজেরা মজা পায়। কিন্তু একবারও ভাবে না, সামনে কঠিন সময় অপেক্ষা করছে। একদিন সবকিছুর জবাব দিতে হবে।
আল্লাহকে বলি, তুমি আমাকে এবং আমাদের সবাইকে এমনসব ঘৃণীত কাজ থেকে হেফাজত করিও। আমার কথায়-কাজে যেন দ্বন্দ্ব না বেড়ে বরং আমার সহযোগিতায়-কৌশলে দ্বন্দ্ব নিরসন হয় সেভাবে পরিচালিত করিও। আমীন!
আর অন্যদের ব্যাপারে বলে রাখি, আমি গতানুগতিক জগতের অনেকটা বাইরে থাকার চেষ্টা করছি প্রতিনিয়ত। হ্যাঁ, পেশাগত কারণে ন্যায়-অন্যায়ের বিচারে কাজ করছি। তবে সেটা কাউকে হেয় বা ক্ষতিগ্রস্ত করতে নয়। নিতান্তই নিজের দায়িত্ববোধ আর নিজেকে টিকিয়ে রাখতে। কাজেই অযথা কেউ কোন বিষয় নিজের গায়ে মেখে নিবেন না বলে বিশ্বাস ও প্রত্যাশা রাখি। আশাকরি, কানপড়ায় বিশ্বাসী না হয়ে সরাসরি বিশ্বাসী হবেন। কানপড়া আমাদের অনেক ক্ষতিতে ফেলে দেয়। তারপরও কেউ নিলে সে বিচার একজনের কাছেই থাকবে। পাশাপাশি পূর্বের সব অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে হয়ত নিজের সঠিক সিদ্ধান্ত নিতেও আর ভুল হবে না। নিশ্চই তিনি সকল কিছুর খবর রাখেন, ন্যায় বিচারক ও পরাক্রমশালী।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com