সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৪৯ পূর্বাহ্ন

অনির্দিষ্ট কালের পরিবহন ধর্মঘট : বান্দরবানে চরম ভোগান্তিতে পর্যটকসহ স্থানীয়রা

অনির্দিষ্ট কালের পরিবহন ধর্মঘট : বান্দরবানে চরম ভোগান্তিতে পর্যটকসহ স্থানীয়রা

বান্দরবান : চট্টগ্রাম বিভাগীয় গণ ও পণ্য পরিবহন মালিক ঐক্য পরিষদের ডাকা অনির্দিষ্ট কালের পরিবহন ধর্মঘটের কারনে বান্দরবানে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে পর্যটকসহ স্থানীয় যাত্রীরা।
রবিবার (৮সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে জেলা শহর থেকে কোন ধরণের দূর পাল্লার যাত্রীবাহী বাস ছেড়ে যায়নি। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে দূর পাল্লার যাত্রী ও সাধারণ পর্যটকরা। সকালে স্টেশনে এসে দাড়িয়ে থাকতে দেখা যায় পর্যটক চাকুরীজীবী শিক্ষক ছাত্রছাত্রীসহ সাধারণ মানুষকে। গাড়ি না পেয়ে নির্দিষ্ট্য গন্তব্যে যাওয়ার জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা তারা স্টেশনে দাড়িয়ে থেকে ফেরত যায়। এছাড়া রবিবার হাটবার হওয়ায় পন্য নিয়ে বাজারে আসতে পারেনি আশপাশের অনেক জুমিয়ারা।
পর্যটক ও সাধারণ যাত্রীদের অভিযোগ, কোন প্রকার আগাম ঘোষণা ছাড়া অনির্দিষ্ট কালের এ ধর্মঘটের কারণে আমরা বাস স্টেশন এসে আটকা পড়েছি। আগে থেকে জানানো হলে আজ আমাদের ভোগান্তি হত না।
শ্যামলী কাউন্টার ম্যানেজার বেলাল জানান, বান্দরবান শহরে সকাল থেকে পূরবী ও পূবার্ণীসহ কোন ধরণের বাস ছেড়ে যাচ্ছে না। তবে বিষয়টি আমরাও জানতাম না। অনেক পর্যটক ও সাধারণ যাত্রীরা এসে আটকা পড়েছে।
এদিকে ৯ দফা দাবী গুলো হচ্ছে- (১) পণ্য ও পণ্য পরিবহণের কাগজ পত্র হালনাগাদ করার জন্য জরিমানা মওকুফ করতে হবে। জরিমানা মওকুফের সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত কাগজপত্র যাছাই বাছাইয়ের নামে হয়রানী বন্ধ করতে হবে। (২) বিআরটিএ ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক ভোক্তা অধিকার আইন প্রয়োগ করে গণ ও পণ্য পরিবহনে কোন জরিমানা আদায় করা যাবে না। হাইওয়ে ও থানা পুলিশ কর্তৃক গাড়ি জব্দ ও রিকুইজিশন করা যাবে না। (৩) চট্টগ্রাম মেট্রো এলাকায় গাড়ির ইকোনমিক লাইফের অজুহাত দেখিয়ে ফিটনেস ও পারমিট নবায়ণ বন্ধ রাখা যাবে না। (৪) ট্রাফিক পুলিশ কর্তৃক যান্ত্রিক ত্রুটিযুক্ত গাীি ছাড়া অন্যকোন অজুহাত দেখিয়ে গণ ও পণ্য পরিবহণ টু বা ডাম্পিং করা যাবে না। ড্রাইভার কর্তৃক চালিত গাড়ির রেকার ভাড়া আদায় করা যাবে না। (৫) সহজ শর্তে চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করতে হবে। কাগজপত্র হালনাগাদের ক্ষেত্রে বিআরটিএ এর কার্যক্রমে ভোগান্তি বন্ধ করতে হবে। (৬) বৃহত্তর চট্টগ্রাম বিভাগের সড়ক ও মহাসড়কে গ্রাম সিএনজি ও মেট্রো সিএনজি চলাচলের ক্ষেত্রে আরটিসি এর সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে হবে। (৭) ঢাকা চট্টগ্রামের মহাসড়কে স্থাপিত ওয়ে স্কেল দুটি পরিচালনার দায়িত্ব বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে দিতে হবে। (৮) মহাসড়কে পণ্য চুরি/ডাকাতি রোধ কল্পে বর্তমান আইনের পরিবর্তন ঘটিয়ে নতুন আইন প্রণয়ন করতে হবে। (৯) মহাসড়ক ও মেট্রো শহর এলাকায় গণ ও পণ্য পরিবহণ যত্রতত্র দাড় করিয়ে চেকিং এর নামে হয়রানি বন্ধ করে নির্দিস্ট দুটি স্থানে চেকিং পয়েন্ট নির্ধারণ করার দাবি জানান।
এন এ জাকির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com