শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৩৮ পূর্বাহ্ন

অহিংস রাজনীতির প্রবর্তক মহাত্মা গান্ধী : মোস্তফা

অহিংস রাজনীতির প্রবর্তক মহাত্মা গান্ধী : মোস্তফা

মহাত্মা গান্ধী ভারতের আজাদী ও স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা এবং অহিংস রাজনীতির প্রবর্তক বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাশনালআওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা পূর্ববর্তী ভারতের জাতীয় আন্দোলনের জনক হিসেবে তিনি সুপরিচিত। ওকালতির কাজে দক্ষিণ আফ্রিকায় গেলেসেখানে এশীয়দের প্রতি শ্বেতাঙ্গদের বৈষম্যমূলক আচরণে অত্যন্ত পীড়িত হন গান্ধী। এবং এর বিরুদ্ধে আন্দোলন হিসেবে তিনি বেছে নেনঅহিংস পন্থা। গান্ধীর রাজনৈতিক আদর্শের মূল কথাই ছিল অহিংস সত্যাগ্রহ কর্মপদ্ধতি।

বুধবার শাহজাহানপুরস্থ সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী মহাত্মা গান্ধীর ১৫০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয়গণমুক্তি আন্দোলন আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মহাত্মা গান্ধী বিশ্বাস করতেন, সত্য আর অহিংসা অবিচ্ছেদ্য বন্ধনে যুুক্ত। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন সংগ্রামেও গান্ধীর অহিংসপন্থা ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছিল। তাঁর রাজনৈতিক গুরু ছিলেন গোপালকৃষ্ণ গোখলে। জাতিবিদ্বেষ, সাম্প্রদায়িকতা ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধীচেতনায় বিশ্বাসী গান্ধী মনে করতেন, আধুনিক যন্ত্রসভ্যতা ও পুঁজিবাদ মানুষের শুভসত্তার পরিপন্থী।

ন্যাপ মহাসচিব বলেন, মহাত্মা গান্ধী কৃষি ও কুটিরশিল্পভিত্তিক আদর্শ সমাজ বিনির্মাণের ওপর জোর দিয়েছিলেন, যা মূলত গ্রামভিত্তিকঅর্থনৈতিক কাঠামো প্রতিষ্ঠা করে। ভারতে ১৯১৯ সালে ব্রিটিশ সরকার কর্তৃক কুখ্যাত রাওলাট আইন পাশ এবং জালিয়ানওয়ালাবাগহত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে মহাত্মা গান্ধী আন্দোলন শুরু করেন। ভারতের ‘স্বরাজ’ বা স্বাধীনতার জন্য ব্রিটিশবিরোধী ‘ভারত-ছাড়ো’ আন্দোলনেরনেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। এইসব আন্দালন সংগ্রামের জন্য তাঁকে কারাবরণও করতে হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, তাঁর অহিংসা, সত্যাগ্রহ এবং স্বরাজ দর্শনের জন্য গোটা বিশ্বের কাছে অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে রয়েছেন এই মহান পুরুষ৷ অহিংসা, সত্যাগ্রহ এবং স্বরাজ– এই তিন নীতির প্রবক্তা গান্ধীর সামনে অনুপ্রেরণা ছিল হযরত মুহাম্মদ (সা.) এবং বুদ্ধের জীবন-দর্শন৷ গান্ধী বিশ্বাস করতেন যে, গভীর বিশ্বাস বিভিন্ন ধর্মের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারে৷ জুনিয়র মার্টিন লুথার কিং, নেলসন ম্যান্ডেলা, দলাইলামা থেকে শুরু করে অং সান সু চি’র মতো বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ও জাতির গণতন্ত্র, স্বাধীনতা ও অধিকার কর্মীদের উদ্বুদ্ধ করেছে গান্ধীর মহান দর্শন৷

জাতীয় গণমুক্তি আন্দোলনের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন সংগঠনের সমন্বয় কমিটির সদস্য আবদুল হালিম, আবদুল কাইয়ূম মাহমুদ, আবদুল্লাহ আল কাউছারী, আফরোজা বেগম, ইমরুল হাসান, মিসেস সীমা মাহফুজা প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!