মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন

পাঁচ দিনের রিমান্ডে ১০ আসামি

পাঁচ দিনের রিমান্ডে ১০ আসামি

ঢাকা : বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট)  শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ১০ আসামির পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরী তাদের রিমান্ডে নেয়ার আদেশ দেন।

যাদের রিমান্ডে নেয়া হচ্ছে তারা হলেন- বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফুয়াদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান ওরফে রবিন, গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক ইশতিয়াক আহমেদ ওরফে মুন্না, ছাত্রলীগের সদস্য মুনতাসির আল জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম ওরফে তানভীর, মুজাহিদুর রহমান, অনীক সরকার, মেফতাহুল ইসলাম ও ইফতি মোশাররফ সকাল।

এর আগে রাজধানীর চকবাজার থানার পরিদর্শক কবির হোসেন হাওলাদার আসামিদের আদালতে হাজির করে ১০ দিন করে রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, ৬ অক্টোবর রাত ৮টা ৫ মিনিটের দিকে  আবরারকে বুয়েটের শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে পরের দিন রাত আড়াইটা পর্যন্ত হলের ২০১১ এবং ২০০৫ নম্বর কক্ষে পূর্বপরিকল্পিতভাবে ক্রিকেট স্ট্যাম্প এবং লাঠি-সোটা দিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় প্রচণ্ড মারধর করা হয়। এর ফলে ঘটনাস্থলে আবরারের মৃত্যু হয়। আবরারের মৃত্যু নিশ্চিত করে আসামিরা ওই ভবনের দ্বিতীয় তলার সিঁড়িতে তার মৃতদেহ ফেলে রাখে। পরে কিছু ছেলে আবরারের মৃতদেহ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলায় আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ করে মূল রহস্য উদঘাটন, এজাহারনামীয় পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তার, অজ্ঞাত আসামিদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহপূর্বক গ্রেপ্তার এবং সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে আসামিদের ১০ দিনের রিমান্ড প্রয়োজন।

এদিন বেলা দেড়টার দিকে আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। দুপুর ২টা ৫৫ মিনিটে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে হাতকড়া পরিয়ে এজলাসে তোলা হয় তাদের। বেলা ৩টা ৩ মিনিটের দিকে শুনানি শুরু হয়। আদালতে সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম রিমান্ড আবেদন পড়ে শোনান।

রাষ্ট্রপক্ষে সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর হেমায়েত উদ্দিন খান (হিরণ) রিমান্ড মঞ্জুরের পক্ষে শুনানি করেন।

তিনি বলেন, সহপাঠীরা পরিকল্পিতভাবে আবরারকে নির্মমভাবে আঘাত করে হত্যা করে। এটি একটি আলোচিত ও লোমহর্ষক ঘটনা। এ ঘটনায় বাংলাদেশ স্তব্ধ। এ আসামিরা এখন আবরারের বাবা-মায়ের কাছে কী জবাব দেবে? বুয়েট একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান। এখন সেখানে খুনি জন্ম নিয়েছে। ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে তারা এ অপকর্ম করছে। সংগঠনের দোষ দেব না। আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। পুলিশ যে রিমান্ড আবেদন করেছে তা মঞ্জুরের প্রার্থনা করছি।

এদিন চার আসামির পক্ষে রিমান্ড বাতিলপূর্বক জামিনের আবেদন করে শুনানি করেন তাদের আইনজীবীরা। অপর ছয় আসামির পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না।

মুজাহিদুর রহমানের পক্ষে তার আইনজীবী মোরশেদা খাতুন শিল্পী এবং শামীমুর রহমান বলেন, আমরা সবাই চাই প্রতিটা অপরাধের বিচার হোক। কিন্তু এ আসামি ঘটনাস্থলে ছিল না। পরিস্থিতির শিকার। তদন্ত হোক, তখন বেরিয়ে আসবে দোষী না নির্দোষ। এখন এ আসামির রিমান্ড বাতিলের প্রার্থনা করছি।

ইফতি মোশাররফের পক্ষে আইনজীবী মো. আমিরুল ইসলাম দাবি করেন, তার মক্কেলকে ভিডিও ফুটেজে দেখা গেলেওতিনি ঘটনার সঙ্গে জড়িত নন।

ইশতিয়াকের আইনজীবী বলেন, ইশতিয়াক ঘটনাস্থলে ছিল না। সেদিন সে কুমিল্লায় বিয়ের অনুষ্ঠানে ছিল।

খন্দকার তাবাখখারুলের আইনজীবী আবেদুর রহমান (সবুজ) বলেন, ভিডিও ফুটেজে দেখা গেলেও তাবাখখারুল ঘটনার সঙ্গে জড়িত নন।

শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে প্রত্যেকের পাঁচ দিন করে রিমান্ডের আদেশ দেন।

বেলা ৩টা ১২ মিনিটের দিকে তাদের আদালতে থেকে নিয়ে যাওয়া হয়।

সোমবার আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় তার বাবা বরকতুল্লাহ বাদী হয়ে রাজধানীর চকবাজার থানায় মামলা করেন। মামলায় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ১৯ জনকে আসামি করা হয়।

রোববার রাতে বুয়েটের শেরেবাংলা হলের দ্বিতীয় তলার সিঁড়ি থেকে অচেতন অবস্থায় আবরার ফাহাদকে উদ্ধার করা হয়। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আবরার বুয়েটের ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!