সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১৩ অপরাহ্ন

তাহিরপুরে পিতার হেফাজত থেকে অপহৃত শিশুপুত্র উদ্ধার, পিতার দ-

তাহিরপুরে পিতার হেফাজত থেকে অপহৃত শিশুপুত্র উদ্ধার, পিতার দ-

সিলেট : পৈচাশিক কায়দায় পিতার হাতে শিশু তুহিন হত্যাকান্ডের রেশ কাটতে না কাটতেই ফের সুনামগঞ্জের তাহিরপুর অপরহণ নাটকের ১১দিন পর পিতার হেফাজত থেকেই রিমন মিয়া নামে ৯ বছরের অপহৃত এক শিশুপুত্রকে থানা পুলিশ উদ্ধার করেছে। অভিযুক্ত ওই পিতার নাম আজিজুর রহমান ওরফে হেকমত আলী। সে উপজেলার বালিজুরী ইউনিয়নের পিরিজপুর গ্রামের মৃত হাদিস মিয়ার ছেলে।
বৃহস্পতিবার আজিজুরকে ভ্রাম্যমাণ আদালত গণউপদ্রব সৃষ্টির অপরাধে দ- দিয়ে জেলা কারাগারে পাঠিয়েছেন।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পিরিজপুর গ্রামের আজিজুর রহমানের জামেনা বেগম ও লিপিয়া বেগম নামে দুই স্ত্রীকে ঘিরে পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলছে গত ২২ বছর ধরে। প্রথম স্ত্রী জামেনার গর্ভের ৪ মেয়ে, ১ ছেলে ও দ্বিতীয় স্ত্রী লিপিয়ার গর্ভের ৩ মেয়ে এবং ৬ ছেলে সন্তান রয়েছে। প্রথম স্ত্রী পৃথক থাকলেও আজিজুর ঘটিবাটি নিয়ে দ্বিতীয় স্ত্রীর লিপিয়ার সাথেই আয়েশি জীবন যাপন করে আসছেন।
এদিকে প্রথম স্ত্রী জামেনা নিজে ও সন্তানদের নিয়ে দিন মজুরির আয়ের নগদ টাকায় সাব-কবলায় রেজিস্ট্রি মূলে কয়েক বছর আগে আজিজুরের কিছু জমিজমা ক্রয় করলেও ভোগদখল করে আসছেন আজিজুর। কিন্তু সেই জমাজমির দখল বুঝে নিতে গেলে প্রথম-দ্বিতীয় স্ত্রীর পক্ষ থেকে আদালতে দায়ের করা হয় একে অপরকে ফাঁসানোর জন্য পাল্টাপাল্টি মামলা।
একপর্যায়ে জমির দখল বুঝিয়ে না দিতে প্রথম স্ত্রী জামেনা, তার সন্তান ও মেয়ে জামাইদের উল্টো ফাঁসাতে গিয়ে আজিজুরের সহযোগীতা দ্বিতীয় স্ত্রী লিপিয়া বেগম নিজের ৯ বছরের শিশু পুত্র রিমনকে অপহরণ করা হয়েছে বলে গত ৬ অক্টোবর তাহিরপুর থানায় লিথিত অভিযোগ করেন।
তাহিরপুর থানার এসআই মো. গোলাম মোস্তাফাকে তদন্তভার দেয়া হলে পুলিশ সুপার (সদ্য পদোন্নতি প্রাপ্ত) মো. মিজানুর রহমানের দিকনির্দেশনায় তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় শিশু রিমনের অবস্থান কিশোরগঞ্জের ভৈরবের চন্ডিবের গ্রামে তার খালুর বাসায় শনাক্ত করে পুলিশ। পরে গত ১৫ অক্টোবর মঙ্গলবার রাত থেকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা একদল পুলিশ নিয়ে ভৈরবের চন্ডিবের গ্রাম হতে ভিকটিমকে উদ্ধার করতে যান। এসময় চতুর পিতা টের পেয়ে আজিজুর ফের নিজ শিশুপুত্র রিমনকে গুমের পরিকল্পনা করে।
এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সকালে ভৈরব খালুর বাড়িতে থেকে সরিয়ে রিমনকে নিয়ে বাসযোগে সুনামগঞ্জ আসার পথে রাতেই তাহিরপুর থানার ওসি আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে সুনামগঞ্জ জেলা শহরের প্রবেশ মুখে অবস্থান নেন। এসময় আবদুজ জহুর সেতুতে মামুন পরিবহন নামের একটি বাসে তল্লাশী চালিয়ে ভিকটিম রিমনকে উদ্ধার ও আজিজুরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ ঘটনায় বুধবার রাতেই আজিজুরকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হয়। তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভ্রারপ্রাপ্ত) মো. মুনতাসির হাসান ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ২৯১ ধারায় (গণউপদ্রব্য) সৃষ্টির অপরাধে আজিজুরকে ১ মাসের কারাদ-ের রায় প্রদান করেন।
বৃৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার (সদ্য পদোন্ততি প্রাপ্ত) মো. মিজানুর রহমান এর সতত্য নিশ্চিত করে বলেন, সময়মত শিশু রিমনকে পুলিশ উদ্ধারে ব্যর্থ হলে হয়তো এ শিশুটিকেও দিরাইয়ের শিশু তুহিনের মত বলির পাঠা বানানো হত।
– হাবিব সরোয়ার আজাদ

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!