1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন

ভাল ফলনেও লাভের মুখ দেখছে না পাহাড়ের কলাচাষীরা

ভাল ফলনেও লাভের মুখ দেখছে না পাহাড়ের কলাচাষীরা

বান্দরবান : পাহাড়ি জেলা বান্দরবানে জুম চাষের পাশাপাশি অর্থকরি ফসল হিসেবে কলা চাষ খুবই জনপ্রিয়। পাহাড়ের মাটি ও আবহাওয়া কলা চাষের উপযোগী হওয়ায় স্বল্প খরচে ফলনও ভাল হয়। এছাড়া কলা ১২ মাসী ফল হওয়ায় এবং পুষ্টিগুনে ভরপুর ও খেতে সুস্বাদু হওয়ায় বাজারে এর চাহিদাও ব্যাপক। তাই ফলজ চাষ হিসেবে কলা পাহাড়ি চাষীদের কাছে অন্যতম।
কিন্তু ফলন ভালো হলেও সংরক্ষণের জন্য হিমাগার এবং কোনপ্রকার ব্যবস্থা না থাকায় স্বল্পমূল্যে বিক্রি এবং একাধিক ইউনিয়ন পরিষদের ইজারা, হাট-বাজার ইজারাদার, সড়ক ইজারাদার ও মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্যতের কারণে কলাসহ বিভিন্ন ফলজ পণ্যের ন্যায্য দাম না পাওয়ায় হতাশ পাহাড়ের চাষীরা।
কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, প্রতিবছর পার্বত্য জেলা বান্দরবানে বিভিন্ন প্রজাতির কলা উৎপাদিত হলেও বাংলা কলা ও চাঁপা কলার উৎপাদন বেশি হয়ে থাকে। এ বছর বান্দরবানে ৮হাজার ২’শ ৫৮ হেক্টর জমিতে কলার আবাদ হয়েছে এবং ২ লাখ ১২ হাজার মেট্রিকটন কলার উৎপাদন হয়েছে।
চিম্বুক এলাকার কলাচাষী মেনথং ¤্রাে জানান, কলার ফলন ভাল হয়েছে। কিন্তু কলা নিয়ে বাজারে যাওয়ার সময় বিভিন্ন জায়গায় ট্যাক্স দিতে হয় এবং সংরক্ষণ করে রাখার কোন ব্যবস্থা নেই। তাই দিনে নিয়ে দিনেই বিক্রী করে দিতে হয়। এর ফলে দামও বেশি পাওয়া যায়।
রোয়াংছড়ির কলাচাষী উক্যানু মার্মা বলেন, অনেক দূর থেকে কলা নিয়ে এসেছি বিক্রী করতে। সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় আনার সাথে সাথেই বিক্রি করে দিতে হয়। এর জন্য ভাল দাম পাওয়া যায় না।
এছাড়া রাস্তায় কয়েক দফা টোল আদায় করার কারণে উৎপাদন খরচও বেড়ে যায়। বিক্রির পর হিসেব করলে দেখা যায়, তেমন একটা লাভ থাকে না।
কলা ব্যাপারীরা জানান, ন্যায্য মূল্য দিয়ে চাষীদের কাছ থেকে কলা ক্রয় করলেও বাজারে নিয়ে আসার সময় প্রত্যেক উপজেলায় জেলা পরিষদের বাজার ফান্ড, উপজেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন পরিষদ একই পণ্যের ওপর কয়েক দফা টোল আদায় করে। এর ফলে প্রতি কলার ছড়ায় অনেক টাকা দাম বেড়ে যায়। ফলে খরচ পুষিয়ে উঠতে না পেরে লাভের মুখ দেখেন না কৃষকরা।
ইজারাদাররা জানান, জেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ ও বাজার পয়েন্ট ডাক অতিরিক্ত মূল্য দিয়ে নিলাম নিতে হয়। তাই কৃষিপণ্যের ওপর টোলও বেড়ে যায়।
বান্দরবান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. একেএম নাজমুল হক জানান, কৃষিজ ফসল সংরক্ষণে হিমাগারের অভাব ও পণ্য পরিবহনে একাধিক ইজারা প্রদানসহ মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্মের কারণে কলাচাষীরা ন্যায্য দাম পায় না। তবে কৃষকরা যাতে তাদের পণ্যের ন্যায মূল্য পায় সেজন্য সমবায় মাট (সমবায় বাজার) ব্যবস্থা তৈরিসহ নানা বিষয়ে কাজ করছে কৃষি বিভাগ।
– এন এ জাকির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!