বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন

পেঁয়াজ সিন্ডিকেটে জিম্মি জাতি মুক্তি পাবে কবে : ন্যাপ

পেঁয়াজ সিন্ডিকেটে জিম্মি জাতি মুক্তি পাবে কবে : ন্যাপ

বাংলার কাগজ ডেস্ক : পেঁয়াজ সিন্ডিকেটে জিম্মি জাতি মুক্তি পাবে কবে? প্রশ্ন করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ওমহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, ভারতের বাজারের দোহাই দিয়েই মূল্য বৃদ্ধির মাধ্যমে গত মাসে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিল পেঁয়াজ সিন্ডিকেট। দেড় মাস আগে যে প্রতি কেজি পেঁয়াজের মূ্ল্য ছিল ৫০ টাকা। চার ধাপে দাম বেড়ে তা এখন ১২৫ থেকে ১৩০ টাকায় কিনতে হচ্ছে।বর্তমানে এক কেজি পেঁয়াজের দামে প্রায় চার কেজি মোটা চাল পাওয়া যাচ্ছে।

মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় এসব কথা বলেন।

নেতৃদ্বয় বলেন, পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির মাধ্যমে জনগণের লুটকৃত অর্থ গেছে সিন্ডিকেট আর অসাধু ব্যবসায়ীদের পকেটে। এই লুটের সঙ্গে সরকরের প্রভাবশালীকেউ না কেউ অবশ্যই জড়িত। অন্যথায় এই লুট সম্ভব হতো না। সবমিলিয়ে পেঁয়াজ সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে পুরো দেশ। আর সিন্ডিকেট ভাঙতে দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা বাণিজ্য মন্ত্রনালয় গ্রহণ করতে পারে নাই। সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রী বার বার মূল্য হ্রাসের আশ্বাস দিলেও তা কার্যকর করতেপরিপূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন।

তারা বলেন, পেঁয়াজের মূল্য যেভাবে বাড়ছে, তা স্বাভাবিক নয়। এটি এখন সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। তার মতে, পণ্যের দাম বাড়লে একজন আরেকজনের দোষ দেয়। তবে বিষয়টি নজরদারির দায়িত্ব সরকারের। কোনো ধরনের কারসাজি হলে তাদেরই চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে হবে।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, পণ্যমূল্যের ওঠানামা বাজারের ধর্ম। তবে দাম যখন অস্বাভাবিকভাবে বাড়ে, তখন জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে আসে। তাই এটা দূর করতে সরকারকেই উদ্যোগ নিতে হবে। এক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন ও আমদানির মাধ্যমে চাহিদা নিরূপণ করে সরবরাহ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করতে হবে। বিভিন্ন অজুহাতে ব্যবসায়ীরা পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি করছেন। তারা একবার মূ্ল্যবৃদ্ধি করলে আর হ্রাস করেন না।

নেতৃদ্বয় বলেন, বাণিজ্যমন্ত্রী পেঁয়াজের সংকট কাটতে সময় লাগবে আরও এক মাস- এমন বক্তব্য দিয়ে যাওয়ার পর পেঁয়াজের আড়তদার ও আমদানিকারকরা দাম ঊর্ধ্বমুখী করতে যেন আরও একটু সাহস পেয়েছেন। বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের একাধিক সংস্থা রয়েছে। কিন্তু সেগুলো তেমনকার্যকর নেই, যে কারণে সিন্ডিকেট ধরা যাচ্ছে না।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!