বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন

অমি হত্যা মামলা ডিবিতে হস্তান্তর, গ্রেফতার ১০, আদালতে স্বীকারোক্তি : নেপথ্য কারণ পূর্ব শত্রুতা, মুক্তিপণ আদায়

অমি হত্যা মামলা ডিবিতে হস্তান্তর, গ্রেফতার ১০, আদালতে স্বীকারোক্তি : নেপথ্য কারণ পূর্ব শত্রুতা, মুক্তিপণ আদায়

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ী শহরের পূর্ব কালিনগর মহল্লার আব্দুর রউফ খানের ছেলে ও স্থানীয় শাহীন স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী আকিব ইসলাম খান অমি হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। আজ (৮নভেম্বর) শুক্রবার হস্তান্তরিত এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে ১০ জনকে। এদিকে বিকেলে আদালতের বিচারক ফারিন ফারজানার কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে উমর কাজী রাব্বী।
গ্রেফতারকৃতরা হলো- রাকিব হোসেন রাকিব (২১), জসিম উদ্দিন (২৫), সিয়াম (২০), রজব আলী (৩৫), রেজাউল করিম (৩৮), মফিজুল ইসলাম (১৫), আব্দুস সালাম (৫৫), রিপন (১৫), উমর কাজী রাব্বী (১৮) ও তার মা উম্মে কুলসুম (৩৫)। পূর্ব শত্রুতার জের ও হত্যার পর লাশ গুম করে মুক্তিপণ আদায় ছিল অমি হত্যার নেপথ্য কারণ। পুলিশের দেওয়া তথ্যে ও সরেজমিন তদন্তে প্রাথমিকভাবে এমনটাই মনে হচ্ছে।
পুলিশ, অমি’র পরিবার, হত্যাকারীর স্বীকারোক্তি ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, গত ২ নভেম্বর শনিবার স্কুল থেকে ফেরার পর অমি দুপুরের খাবার না খেয়ে তার মায়ের সাথে কিছুক্ষণ শোয়ে থাকে। এরপর বেলা চারটার দিকে সে বাড়ির কাছে থাকা পৌর মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে খেলতে যায়। সেখানে বেশিক্ষণ না থেকে সাড়ে চারটার দিকে বাড়ি ফিরছিল অমি। বাড়ির সামনে আসতেই অমিদের প্রতিবেশি আয়নাল হকের ছেলে উমর কাজী রাব্বী (১৮) অমিকে দেয়াশলাইয়ের কাঠি দিয়ে খেলনা বোমা বানানোর কথা বলে তাদের বাড়িতে ডেকে নেয়। বাড়ি নিয়ে অমিকে দেয়াশলাইয়ের কাঠি থেকে বোমা বানাতে দেয়। এসময় অমি বোমা বানাতে ব্যস্ত হয়ে পড়লে পূর্বপরিকল্পিতভাবে অমির গলায় পর্দা লাগানোর কাজে ব্যবহৃত বিশেষ তার দিয়ে গলায় চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে। একপর্যায়ে গলায় গামছা ও রশি পেচিয়ে হত্যা করা হয়। অমিকে হত্যার পর রাব্বী অমির মরদেহ নিজের ঘরে রেখেই স্বাভাবিকভাবে বেরিয়ে যায় এবং মাঠে ফুটবল খেলে।
এদিকে এক-দেড় ঘণ্টা সময় পাড় হয়ে গেলেও অমি বাড়ি না ফেরায় তার মা ঝর্ণা অমিকে আশপাশে খুঁজতে থাকেন। একপর্যায়ে সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত হয়। অমির স্বজন, হত্যাকারী রাব্বী ও তার পরিবারের লোকেরাও অমিকে খুঁজতে থাকে। শহরে করা হয় মাইকিং। খুঁজে দেখা হয় বিভিন্ন স্টেশনে গিয়ে। রাত নয়টার দিকে অমির পরিবারের পক্ষ থেকে নালিতাবাড়ী থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। সাড়ে নয়টার দিকে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বছির আহমেদ বাদল অমির বাড়িতে আসেন ও নিখোঁজের বিষয়ে খোঁজ-খবর নেন।
এদিকে হত্যার পর অমির মরদেহ গুম করে মোবাইল ফোনে মুক্তিপণ আদায়ের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে নতুন সীমকার্ড ও একটি মোবাইল ফোন কিনে আনে হত্যাকারীরা। কিন্তু অমি নিখোঁজের পর তাকে সন্ধানের তৎপরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় নিরাপত্তার কথা ভেবে মুক্তিপণ চায়নি হত্যাকারীরা। এমনকি মরদেহটি গুমের পথও বন্ধ হয়ে যায় তাদের। ফলে ঘরের মধ্যে হাত-পা বেঁধে বস্তাবন্দি করে রাখার হয় মরদেহটি। পরে সুযোগ বুঝে বাড়ির পাশের ধানক্ষেতে প্রায় ১শ গজ দূরে ফেলে রাখা হয় নিথর অমিকে।
এসব প্রক্রিয়ায় মধ্যে তিন দিন পেরিয়ে গেলেও অমির সন্ধান না পেয়ে পরিবারের লোকজন পুনরায় থানা পুলিশের শরণাপন্ন হন। এসময় তারা প্রতিবেশিদের সাথে ২০১৬ সালের অমির ভাই জেনিথকে ক্ষুরাঘাতের ঘটনায় বিচারাধীন মামলা নিয়ে দ্বন্দ্বের কথা পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ বিষয়টি আমলে নিয়ে নিখোঁজের চতূর্থ দিন তৎপরতা বৃদ্ধি করে। রাতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে জেনিথকে ক্ষুরাঘাতকারী রাকিব, রাকিবের সহযোগী জসিম ও সিয়ামকে।

পরে পঞ্চমদিন দুপুরে পুলিশ সুপার আশরাফুল আজীমের উপস্থিতিতে খোঁজাখুঁজি করে সাবেক কাউন্সিলর বকুলের ধানক্ষেত থেকে অমি’র বস্তাবন্দি অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে।
উদ্ধারের সময় অমি’র গায়ে প্রতিবেশি উমর কাজী রাব্বীর ব্যবহৃত একটি শার্ট পড়ানো দেখে রাব্বীকে তাৎক্ষণিক আটক করা হয়। পরে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাব্বীকে নিয়ে ৬ষ্ঠ দিন (৭ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘটনাস্থলে হাজির হয় থানা ও ডিবি পুলিশ। এসময় অমিকে হত্যার বিবরণ দেয় রাব্বী।
তবে রাব্বীর বিবরণে যথেষ্ট গড়মিল থাকায় বিষয়টি গভীর পর্যবেক্ষণে রেখেছে পুলিশ। অধিকতর সতর্কতার সঙ্গে তদন্তের স্বার্থে মামলাটি শুক্রবার শেরপুর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়। মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ করা হয় গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমানকে।
এ বিষয়ে সহকারী পুলিশ সুপার নালিতাবাড়ী সার্কেল জাহাঙ্গীর আলম জানান, পূর্ব শত্রুতার কারণে এ হত্যাকান্ডে প্রতিপক্ষের যোগসূত্র রয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে তথ্য পাওয়া গেছে। পাশাপাশি হত্যাকারী চক্রটির উদ্দেশ্য ছিল অমিকে হত্যার পর গুম করে মুক্তিপণ আদায়। তবে এসব তথ্যও যথেষ্ট নয় দাবী করে তিনি বলেন, অধিকতর তদন্ত শেষে অমি হত্যার প্রকৃত রহস্য বেরিয়ে আসবে।
এদিকে অমি হত্যার ঘটনায় পুলিশের বর্তমান ভূমিকা ও তৎপরতায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন অমি’র পরিবারের সদস্যরা। তারা অপরাধীদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনার দাবী জানান।
এদিকে এলাকাবাসী জানিয়েছেন, অমির হত্যার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত যুবকরা স্থানীয় কিশোর তথা উঠতি যুব গ্যাং এর সদস্য। কালিনগর মহল্লায় এ গ্যাংটির সদস্য সংখ্যা অন্তত ২০ জনের উপরে হবে বলে তারা জানান। এ গ্যাংয়ের কাজ হলো- মাদক সেবন, মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজী ও অন্যান্য অপরাধমূলক কর্মকান্ড চালিয়ে যাওয়া। এ গ্যাং এর কারণে কালিনগর মহল্লাটি নষ্ট হয়ে গেছে। ভদ্র কোন মানুষের নিরাপত্তা এখানে নেই বলেও দাবী এলাকাবাসীর।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!