বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ১০:২৬ পূর্বাহ্ন

বুলবুলের ধ্বংসযজ্ঞে ঢাল হয় সুন্দরবন

বুলবুলের ধ্বংসযজ্ঞে ঢাল হয় সুন্দরবন

বাংলার কাগজ ডেস্ক : বাংলাদেশের উপকূলে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আঘাত হানলেও গতি ছিল কম। যে শক্তি নিয়ে এটি উপকূলের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল তা কমে যায় সুন্দরবনের কারণে।

বাংলাদেশের দিকে যত এগিয়েছে ততই দুর্বল হয়েছে বুলবুল। পাশাপাশি ঘূর্ণিঝড়ের ধ্বংসযজ্ঞে ঢাল হয়ে দাঁড়ায় সুন্দরবন। ফলে তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

এর আগে ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় ‘সিডর’ এবং ২০০৯ সালের ২৫ মে ‘আইলা’ একইভাবে সুন্দরবনে বাধা পেয়ে দুর্বল হয়ে পড়েছিল।

রোববার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে আবহাওয়াবিদ ড. আব্দুল মান্নান জানান, চলতি বছর যতগুলো ঘূর্ণিঝড় হয়েছে, তার অধিকাংশই সুন্দরবনকেন্দ্রিক হওয়ায় বাংলাদেশ রক্ষা পেয়েছে। এর মূল কারণ সুন্দরবন অতিক্রম করে ঘূর্ণিঝড় বেশিদূর এগোতে পারে না। তার আগেই ঘূর্ণিঝড়গুলো দুর্বল হয়ে যায়।

তিনি বলেন, একই ঘূর্ণিঝড় যদি বরিশালকেন্দ্রিক হতো তাহলে বাংলাদেশের জন্য বড় দুর্যোগ বয়ে আনতো। সুতরাং একথা বলা অনস্বীকার্য যে সুন্দরবন ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

আব্দুল মান্নান আরো বলেন, দেশের উপকূলে আছড়ে পড়া প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে এগিয়ে চলেছে। এটি ঘণ্টায় ৮-১০ কিলোমিটার গতিতে উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এটি ঢাকা ও কুমিল্লা অঞ্চল হয়ে দুপুর থেকে বিকেল নাগাদ ভারতে চলে যাবে। ত্রিপুরা থেকে আসাম এবং এর পার্শ্ববর্তী অঞ্চল দিয়ে অনেকটা দুর্বল হয়েই অতিক্রম করবে এই ঘূর্ণিঝড়। এর ফলে ঢাকাসহ ঝড়ের গতিপথ অঞ্চলে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে।

এ আবহাওয়াবিদ বলেন, ঘূর্ণিঝড়টি বর্তমানে খুলনা, সাতক্ষীরা এবং বাগেরহাট অঞ্চলে অবস্থান করছে। এটি তার অবস্থান থেকে ক্রমান্বয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে। বুলবুল উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে ক্রমান্বয়ে মাদারীপুর, ফরিদপুর, ঢাকা ও কুমিল্লা অঞ্চলের ওপর দিয়ে অতিক্রম করে ভারতের আসাম অঞ্চলের দিকে যেতে যেতে দুর্বল হয়ে যাবে। আর এজন্য দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

এর আগে গত রাতে আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপপরিচালক আয়েশা খানম জানিয়েছিলেন, ‘বুলবুল’ লোকালয়ে যত আসবে ততই দুর্বল হয়ে যাবে। সুন্দরবনের কারণেই এটি দুর্বল হয়ে যাবে। আয়েশা খানম আরও জানান, উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে বুলবুল অতি প্রবল ছিল। এটি  সুন্দরবন উপকূলে যখন আঘাত হানে সে সময় গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১০০-১২০ কি.মি.।

প্রসঙ্গত, বুলবুলের প্রভাবে শনিবার দিনভর ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিসহ দমকা হাওয়া বয়ে যায়। বৈরী আবহাওয়ায় নৌযান চলাচল বন্ধ থাকে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আজও দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হচ্ছে।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এখন স্থল নিম্নচাপে পরিনত হয়েছে। যে কারণে মহাবিপদ সংকেত নামিয়ে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এর আগে শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ১০০ থেকে ১২০ কিলোমিটার গতিতে সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দুবলার চরে আঘাত হানে বুলবুল।

উপকূলে আঘাত হানার পর ঘূর্ণিঝড়টি আরো সামান্য উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে সাতক্ষীরায় আঘাত হানে। এরপর রোববার ভোর পাঁচটায় তা খুলনা অতিক্রম করে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, খুলনা ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আরও সামান্য উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে আজ সকাল ৬টায় বাগেরহাট, বরিশাল ও পটুয়াখালী অঞ্চলে গভীর নিম্নচাপ আকারে অবস্থান করছে। এটি আরও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর ও বৃষ্টি ঝরিয়ে ক্রমশঃ দুর্বল হতে পারে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!