1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:২৪ অপরাহ্ন

কুলিয়াচরে ‘স’ মিল ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা তুলে নেয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

কুলিয়াচরে ‘স’ মিল ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা তুলে নেয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) : কিশোরগঞ্জের কুলিয়াচর উপজেলার ডুমরাকান্দা বাজারের সবুজ মেম্বারের মালিকানাধীন নাঈম টিম্বার স’মিল ভাংচুর ও লুটপাটের প্রতিবাদে আজ (১৫ নভেম্বর) শুক্রবার দুপুরে ভৈরব ‘ল’ চেম্বারে সংবাদ সম্মেলন করেন ভোক্তভোগি সবুজ মেম্বার।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে ভোক্তভোগি সবুজ মিয়া লিখিত অভিযোগে জানান, গত ২৯ অক্টোবর রাত ৩টার সময় কুলিয়ারচর উপজেলার ডুমরাকান্দা বাজার এলাকায় সাবেক ইউপি মেম্বার সবুজ মিয়ার মালিকানাধীন নাঈম টিম্বার ‘স’মিল পুর্বশ্রুত্রতার জের ধরে ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা তুলে নেয়া হুমকি ও এজাহারের বিপরীতে অন্য ধারা ব্যবহার করে ঘটনাটি অন্যদিকে প্রভাবিত করার করা হয়েছে।
তিনি তাঁর লিখিত বক্তব্যে জানান, ঘটনার দিন প্রতিপক্ষের লোকজন দা, বল্লমসহ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে তাঁর মালিকাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, লুটপাট ও ভাংচুর করেন। এতে করাত মেশিন, সেলু মেশিন, ঘর ও অন্যান্য মালামালসহ আনুমানিক ১২/১৩ লাখ টাকার আর্থিক ক্ষতিসাধন করেন।
এঘটনাটি ভোক্তভোগি সবুজ মেম্বার কুলিয়ারচর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও পৌর মেয়রকে ইমতিয়াজ বিন মুছা জিসানকে অবগত করলে তাঁর পরামর্শে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিতে গেলে ঘটনার প্রধান হোতা সালুয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নজরুল ইসলামের নাম বাদ দিয়ে অভিযোগ দেয়ার জন্য ভোক্তভোগি সবুজ মিয়াকে চাপ প্রয়োগ করেন ওসি। পরে সবুজ মেম্বার বিষয়টি উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতিকে জানালে তিনি কুলিয়ারচর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই তালুকদারকে ফোন করার পরও ওসি কোন কর্ণপাত করেননি। শেষ পর্যন্ত মুল অভিযুক্ত প্রতিপক্ষ নজরুল ইসলামকে বাদ দেয়ার পর ঘটনার তিনদিন পর থানায় মামলা গ্রহণ করেন ওসি। মামলা গ্রহণ করলেও লুটপাট, ভাংচুর ও মারধরের অভিযোগে বিপরীতে (১৪৩/৪৪৮/৪২৭/৩৮০/১১৪/৩৪ দন্ড বিধি) ধারায় দিয়ে মামলাটি এফআইআরভুক্ত করে সত্য ঘটনাটি অন্যদিকে প্রভাবিত করেন বলে অভিযোগ করা হয়। যাহা ভোক্তভোগির মুল ঘটনার সুষ্ঠ বিচারের জন্য সম্পূর্ণ পরিপহ্নী। মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হলেন- কুলিয়ারচর উপজেলার মধ্য সালুয়া গ্রামের মো: তোতা মিয়া (৬৫), রবি উল্লাহ (৪৫), মো: হাবু মিয়া (২৩), রুবেল মিয়া (৩০), পন্ডিত মিয়া (৫২), ফারুক মিয়া (৪০) এবং উত্তর সালুয়া গ্রামের নাদিম মিয়া (৪৫) শামীম মিয়া (৪৮), হালিম মিয়া (৩৫), আরশ মিয়া (৪৬) ও ছলিম মোল্লা (৫৫)।
অভিযুক্তরা ভোক্তভোগি সবুজ মেম্বারের স’মিল এর জায়গা জবর দখল করার জন্য ও মামলা তুলে নেয়ার জন্য প্রতিপক্ষ নজরুল ইসলাম ও তাঁর লোকজন মামলার বাদীকে ভয়ভীতি, হুমকি প্রদর্শন করছে বলেও অভিযোগ করা হয়। উক্ত ঘটনাটির সঠিক তদন্তের মাধ্যমে সুষ্ঠ বিচারের আশায় সংশ্লিষ্ট উদ্ধতর্ন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ভোক্তভোগি সবুজ মিয়া।
– আলহাজ্ব সজীব আহমেদ

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!