1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:২২ অপরাহ্ন

‘বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন’ পুরোপুরি বাস্তবায়ন করুন : ন্যাপ মহাসচিব

‘বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন’ পুরোপুরি বাস্তবায়ন করুন : ন্যাপ মহাসচিব

ঢাকা : ‘বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন’ পুরোপুরি বাস্তবায়নের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া।

তিনি বলেন, বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন-১৯৯১ পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে হবে। সব ভাড়াটিয়াদের বাড়ি ভাড়ার চুক্তিপত্র দিতে হবে। এলাকাভিত্তিক বাড়ি ভাড়া রেট কার্যকর করতে হবে। স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য সরকারি খাস জমিতে হাউজিং প্রকল্প ও কলোনি নির্মাণ করে কিস্তির ভিত্তিতে বরাদ্দ দিতে হবে। বাড়ি ভাড়ার টাকা রশিদ ও ব্যাংকের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে।

শনিবার (১৬ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুসারে নতুন বছরে বাড়ি ভাড়া স্বাভাবিক রাখার আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশ মেস সংঘ (বিএমও) আয়োজিত মানবন্ধন কর্মসূচীতে সংহতি প্রকাশ করে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আইনি ঝামেলায় পড়তে হতে পারে এ কারণে, বাড়িওয়ালারা লিখিত কোনো কিছুই করেন না৷ আবার কর ফাঁকি দেওয়ার উদ্দেশ্যেও বাড়ি ভাড়া সংক্রান্ত কোনো প্রমাণ রাখেন না বাড়িওয়ালারা৷ এমন পরিস্থিতিতে বাড়ি ভাড়া আইনকে ঢেলে সাজানো প্রয়োজন, একই সাথে কমিশন গঠন করে এলাকা ভেদে বাড়ি ভাড়া নির্ধারণ করা দরকার৷

ন্যাপ মহাসচিব বলেন, ঢাকা শহরের সব এলাকার বাসাভাড়াই দিন দিন বেড়ে চলছে। বাসাভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে বাড়িওয়ালারা নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, গৃহঋণের সুদ, রক্ষণাবেক্ষণ খরচ বৃদ্ধিসহ নানা যুক্তি দেখান। কেউ বাসাভাড়া বাড়ান বছরের প্রথমে; আবার কেউ বা মাঝামাঝি সময়ে। গত ২৫ বছরে রাজধানীতে বাড়িভাড়া বেড়েছে প্রায় ৪০০ শতাংশ। অথচ একই সময়ে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে ২০০ শতাংশ। অর্থাৎ নিত্যপণ্যের দামের তুলনায় বাড়িভাড়া বৃদ্ধির হার প্রায় দ্বিগুণ।

তিনি বলেন, বাসাভাড়া বৃদ্ধি একটি অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেছে। এটি নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন। তিনি বলেন, বিভিন্ন এলাকায় সবচেয়ে বেশি বাড়িভাড়া বেড়েছে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষের। যেসব এলাকায় এই শ্রেণির মানুষ বসবাস করে, সেসব এলাকায় বাসার চাহিদাও বেশি, তাই এখানে বাসাভাড়া বেশি বাড়ে।

বাসার চাহিদার তুলনায় জোগান কম হওয়ায় বাড়িভাড়া বেশি। এটি অনিয়ন্ত্রিত একটি বাজার। বাড়ি ভাড়া নিয়ে সরকারের যে আইন আছে, তা কাগজেই বিদ্যমান, বাস্তবে এটির ব্যবহার নেই। এটির ব্যবহার হলে বাড়িভাড়া কিছুটি নিয়ন্ত্রণ করা যেত। এ ছাড়া মামলা নিষ্পত্তি সময়সাপেক্ষ হওয়ায় মানুষ এ আইনে মামলা করতে তেমন আগ্রহী নয়। এই আইন সহজে নিষ্পত্তি করা হলে বাড়িওয়ালারা হুট করে বাড়ি ভাড়া বাড়াতে পারত না। তাই এই আইনের সহজ সমাধান বের করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বিএমও প্রতিষ্ঠাতা মহসচিব আয়াতুল্লাহ আকতার সভাপতিত্বে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কংগ্রেসের মহসচিব এডভোটেক ইয়ারুল ইসলাম, নতুন ধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট মোমিন মেহেদী, আরো বক্তব্য রাখেন সৈয়দ আখতার সিরাজী, লিটন দ্রুং, রাসেল আনান জিন্টু, শাহরিয়ার প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে বিএমও মহসচিব আয়াতুল্লাহ আকতার বলেন, শহরে বসবাস করার ক্ষেত্রে গ্রাম থেকে আসা বিশেষ করে চাকুরিজীবী, শ্রমজীবী, শিক্ষার্থী, মেস মেম্বাররা বাড়ি ভাড়া দিতে গিয়ে একটি মহাবিড়ম্বনায় পড়ে। তাদের শহরের জীবন যাত্রায় আয়ের সিংহভাগ বাড়ি ভাড়ায় চলে যায়। দ্বিতীয়ত এক শ্রেণির বাড়ি মালিক নিলজ্জভাবে প্রতি নতুন বছরে লাগামহীনভাবে বাড়ি ভাড়া বৃদ্ধি করে থাকেন। আমাদের দাবি অযৌক্তিকভাবে কোন অবস্থাতেই বাড়ি ভাড়া অস্বাভাবিক বৃদ্ধি করা যাবে না। বাড়ি ভাড়া বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ আদালতের হাইকোর্ট বিভাগের নির্দেশনা পালন করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!